ঢাকা     সোমবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||  আশ্বিন ১১ ১৪২৯ ||  ২৯ সফর ১৪৪৪

তানভীরের ১০ টাকার বিরিয়ানি

মুজাহিদ বিল্লাহ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৫৯, ১৫ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১৫:০৬, ১৫ আগস্ট ২০২২
তানভীরের ১০ টাকার বিরিয়ানি

চমকে উঠেছেন? ভাবছেন যেখানে ১০ টাকায় এক প্লেট ভাত পাওয়া যায় না সেখানে বিরিয়ানি পাওয়া যাবে কীভাবে? কিন্তু এ কোনো মুখরোচক গল্প নয়। 

রাজধানী ঢাকার ওয়ারীর বনগ্রাম রোডে ছোট্ট এক খাবার দোকান। বাড়তি কোনো আড়ম্বর নেই। তবে গ্রাহক চাহিদা প্রচুর। এই দোকানেই মিলবে ১০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা প্লেটের বিরিয়ানি। সরেজমিনে দেখা গেলো, দোকানের সামনেই দাঁড়িয়ে খাবার খাচ্ছেন অনেকে। ভেতরে দুই বেঞ্চে বসে খাচ্ছেন চারজন। বসার জায়গা ফাঁকা নেই। সুতরাং দাঁড়িয়ে থেকেই কথা হলো হোটেল মালিকের সঙ্গে। 

জানা গেল, প্রায় ৩০ বছর ধরে বিরিয়ানি বিক্রি করছেন তানভীর মিয়া। এলাকার ছোট্ট শিশুদের কাছে তিনি ‘তানভীর ভাই’ নামে পরিচিত। মূলত দরিদ্র মানুষ ও যেসব শিশু দামী খাবার কিনে খেতে পারেন না তাদের জন্যই কম দামে বিরিয়ানির দোকান দেন তানভীর। গরুর মাংসের দাম যখন কম ছিল তখন ৫ টাকা করেও বিরিয়ানি বিক্রি করেছেন তিনি। জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় এখন আরো ৫ টাকা মূল্য বাড়িয়েছেন। বলাবাহুল্য ৫০ শতাংশ মূল্য বাড়ার পরেও গ্রাহকের কোনো অসন্তুষ্টি নেই। এমনকি কোনো শিশু যদি খাবার পর অর্থ পরিশোধ করতে না পারে তাতেও তানভীরের কোনো অভিযোগ নেই। 

কথাপ্রসঙ্গে আরো জানা গেল, বাসায় তানভীর নিজেই রান্না করেন এই বিরিয়ানি। সন্ধ্যা হলেই দোকানে এনে বিক্রি করেন। এবং আরো মজার ব্যাপার এই দোকানের মালিক এবং কর্মচারী তানভীর নিজেই।

তানভীরের ১০ টাকার বিরিয়ানিতে থাকে মুরগির মাংস এবং ২০ টাকার বিরিয়ানিতে মাংসের পাশাপাশি থাকে ডিম। বিরিয়ানিতে ব্যবহার করা হয় কমদামি পোলাওয়ের চাল এবং মুরগির রোস্টের অংশ কেটে নেওয়ার পর যা বাকি থাকে সেগুলো। বিরিয়ানির সঙ্গে মেলে সালাদ- মরিচ, লেবু, শসা ও পিঁয়াজ। 

ফতুল্লা থেকে কাপ্তানবাজার কাজে এসেছেন মামুন শেখ। কৌতূহল নিয়েই খেতে এসেছেন। রাইজিংবিডিকে তিনি বলেন, ‘খাবার মুটামুটি ভালোই। ১০ টাকায় যে বিরিয়ানি বিক্রি করে এইতো অনেক। এখনকার দিনে এমন দামে বিরিয়ানি কল্পনা করা যায় না!’

প্রতিদিন তানভীরের বিরিয়ানি খেতে আসেন শ্রমিক আব্দুল হাসান। তিনি বলেন, ‘আমি অনেকদিন থেকেই নিয়মিত খাই। তানভীর ভাই ভালো মানুষ। মাঝে মধ্যে টাকা না থাকলে পরে দিয়ে দেই। খাবারে স্বাদ ভালো।’

তানভীর মিয়া রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘মূলত গরিব শ্রমিক ও মানুষ যেন খেতে পারে তাই আমি এই দোকান চালাই। নিজে যতটুকু পারি ততটুকুই বিক্রি করি।’

তবে ১০ টাকার এই বিরিয়ানি খেতে চাইলে আপনাকে যেতে হবে সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টার মধ্যে। বনগ্রাম রোডের যে কাউকে ‘তানভীরের বিরিয়ানির দোকান’ বললেই চিনিয়ে দেবে আপনাকে।

/তারা/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়