Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৫ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ১ ১৪২৮ ||  ০৩ জিলক্বদ ১৪৪২

করোনাকালে আরেকটি ঈদ

খান মাহবুব || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৫৫, ১৪ মে ২০২১   আপডেট: ১১:০৭, ১৭ মে ২০২১
করোনাকালে আরেকটি ঈদ

আমার ছোট মেয়ে সেদিন বলছিল, ‘বাবা দু’বছর ধরে ঈদ হয় না কেন?’ আমি ভেবে দেখলাম আমার মেয়ের কোমলমতি দৃষ্টিতে আসলেই দু’বছর ধরে ঈদ হয় না। ঈদ মানেই তো আনন্দ। নতুন জামাকাপড়, জুতা ইত্যাদি সব। ঈদ মানে সবাই মিলে বেড়াতে যাওয়া, দাদাবাড়ি-নানাবাড়ি বেড়ানোসহ রাজ্যের সব আনন্দ আয়োজন। অতিমারি করোনার তাণ্ডব সব আনন্দকে জীবন থেকে হিমঘরে বন্দি করে রেখেছে। করোনার কালসমুদ্রে বিশ্ববাসী নিমজ্জিত। এর মধ্যে ঈদের আনন্দ কোথায়?

পৃথিবীর সমস্ত জাতি-গোষ্ঠির মধ্যে ধর্মীয় ও সামাজিক রীতিতে উৎসবের রেওয়াজ চালু আছে প্রাচীনকাল থেকেই। এগুলো জীবনকে আনন্দময় করে বাঁচিয়ে রাখার রশদ। ইসলাম ধর্ম আবির্ভাবের পর ৬২৪ খ্রিস্টাব্দের ১৭ রমজান বদরের যুদ্ধে বিজয়ের ১৩-১৪ দিন পর মদীনায় সর্বপ্রথম ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়েছিল। ৬৩০ খ্রিস্টাব্দের ২১ রমজান মক্কা বিজয়ের ৮-৯ দিন পর মক্কা মুক্কারমায়ও ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়েছিল।

পূর্ববঙ্গে ঢাকার নবাব পরিবারে ঈদের জৌলুস থাকলেও জনমানুষের মধ্যে ঈদের আনন্দের সংযোগ ঘটে ফরায়েজী আন্দোলনের পর। ঢাকার নবাব বাড়ির ঈদ আয়োজনের কিছুটা ভাগিদার ছিলেন ঢাকার নাগরিকরা। ঈদের মিছিলে নগরের অনেকেই সমবেত হতেন। নবাব সলিমুল্লাহ ঈদের দিন কলকাতা থেকে ক্লাসিক থিয়েটার ভাড়া করে আনতেন সাধারণ মানুষকে নাটক দেখানোর জন্য। এছাড়া ঘোড়দৌড়, ফুটবল, হকি, টেনিস প্রভৃতি প্রতিযোগিতার আয়োজন হতো ঈদুল ফিতরে। নবাবী ও পাকিস্তানি পরাধীন সামন্তযুগে সাধারণ মানুষের অবস্থা শোচনীয় ছিল, কিন্তু ঈদের উৎসবে অংশগ্রহণে কোনো বাধা ছিল না। তবে আর্থিক সামর্থ্য ও ঈদের তাৎপর্য সম্পর্কে জানার ঘাটতি ছিল মানুষের মাঝে। পাকিস্তানি জামানায় লেসওয়ালা রুমি টুপি বা টার্কিস ক্যাপ আর বাহারি আতর মেখে ঈদ জামাতে সামিল হতেন অনেকে। 

বাঙালি মুসলিম সমাজে সর্বজনীন উৎসব হিসেবে ঈদের ব্যাপ্তি ঘটে স্বাধীনতার পর। বিশেষত গত শতকের নব্বইয়ের দশকে এ দেশের মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধিতে ঈদ আনন্দ নতুন মাত্রিকতা পায়। উচ্চ-মধ্যবিত্ত ও ধনীক শ্রেণির মধ্যে ঈদের আনন্দ সাম্প্রতিক সময়ে এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, ঈদের কেনাকাটা করতে কলকাতা, মুম্বাই, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া পর্যন্ত ছুটে যান অনেকে। ঈদের ধর্মীয় ভাব-গাম্ভীর্য ও ঈদের পারস্পরিক মিলনের বার্তার চেয়ে বড় হয়ে ওঠে উৎসবের ডামাডোল। ঈদের ফ্যাশন, খাদ্য তালিকায় চিরায়ত রূপের পরিবর্তনও আসে যা আমাদের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যের সারথি নয়। ঈদের আনন্দে জৌলুস যত বাড়তে থাকে ‘ঈদ মোবারক’-এর প্রীতির বার্তা দূরে যেতে থাকে। তবুও ঈদ আসে আমাদের জীবনে রঙিন খামে মোড়ানো এক রেশমি পরশের সুবাস নিয়ে।

সাম্প্রতিক সময়ে করোনার তাণ্ডব বিশ্ববাসীর সমস্ত আনন্দ বিষিয়ে দিয়েছে। পৃথিবীর দুই গোলার্ধের মানুষ আজ দিকভ্রান্ত। জীবন ও জীবিকা দুলছে পেন্ডুলামের মিহি সুতোয়। বেঁচে থাকাই যেখানে প্রতিদিন হুমকির সম্মুখীন সেই কালপর্বে আবার ঈদ!

ঈদের দু’টো বড় দিক। এক আনন্দ উৎসব এবং অর্থের সংযোগ। করোনাকালে ঈদে দু’টোই ভাটার টানে। মানুষের চোখে মুখে নিত্যদিনের উদ্বেগ এবং বিষণ্নতা। আর অর্থের সংযোগ সে তো গুড়েবালি। ধনীদের হাতেও এখন অঢেল টাকা নেই। কারণ দীর্ঘদিন অর্থের প্রবাহে তারল্য সংকট চলছে। আমাদের জিডিপি যখন দুই ডিজিটে উত্তীর্ণ করতে তৎপর, তখন করোনার ফলে প্রবৃদ্ধি ৩/৪ ডিজিট নিম্নমুখী হওয়ার সমূহ আশঙ্কা রয়েছে। এ দিকে বিশ্বে করোনায় ইতোমধ্যে ৩২ লাখ মানুষের প্রাণসংহার হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশেও মারা গেছে প্রায় ১২ হাজার মানুষ। 

গত এক বছরের করোনার ক্রান্তিকাল পেরিয়ে এ বছরের প্রারম্ভে করোনা যখন অনেকটাই কমে গিয়েছিল ঠিক তখনই আমরা স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি ভুলে গিয়েছিলাম। এ বছর মার্চে পুনরায় করোনার তাণ্ডব আফ্রিকান ও ইন্ডিয়ান ভেরিয়েন্ট জেঁকে বসলো। মৃত্যু ও সংক্রমণ পূর্বের সব রেকর্ড ছাড়ালো। আবার লকডাউন, স্বাস্থ্যবিধি, মাস্ক, সামাজিক দূরত্ব, আইসোলেশন, কোয়ারেন্টাইনসহ করোনাজনিত বিভিন্ন শব্দ ও বিষয়ের সঙ্গে সংযোগ ঘটলো আমাদের।

এই কালপর্বেই আবার ঈদ। ঈদের একটা বড় দিক হচ্ছে সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে অর্থ প্রবাহ। ঈদকে কেন্দ্র করে অর্থ চক্রাকারে ঘুরতে থাকে এবং পুঁজিপতিদের অলস কিছু অর্থ বাণিজ্যের উদ্দেশ্যে ঈদের বাজারে যুক্ত হয়। এই অর্থ ইতিবাচক সুবিধাভুক্ত হয়। বেচাকেনা থেকে শুরু করে ধারদেনা শোধ সব যেন ঈদকেন্দ্রিক— ঈদ বলে কথা। ভোগ্যপণ্যের বাৎসরিক বাণিজ্যের বড় একটা অংশ ঘটে ঈদ মৌসুমে। উদাহরণ টেনে বলা যায় করোনা পূর্ববর্তী ২০১৮ সালের ঈদেও ভোক্তা পর্যায়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে।

এ বছর ঈদে মধ্যবিত্ত শ্রেণির আয় কমে যাওয়া ও সঞ্চিত অর্থ শেষ হয়ে যাওয়ার দরুণ বিপাকে। নিম্নবিত্ত মানুষ কাজ হারিয়ে নিরন্ন মানুষের কাতারে সামিল। সরকার রমজান ও ঈদ সামনে রেখে টিসিবির মাধ্যমে তেল, ডাল, চিনি, পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রির ব্যবস্থা করেছে। যদিও সিন্ডিকেট এসব পণ্য বিতরণেও প্যাকেজ প্রথাসহ নানা অনিয়মে জড়িয়ে সরকারের শুভ উদ্যোগকে শতভাগ সফলতার মুখ দেখতে দেয় না। মূলত সরকারি উদ্যোগ বাস্তবায়ন পর্যায়ে স্বার্থান্বেষী শ্রেণি ভণ্ডুলে তৎপর। এই তালিকায় ঈদ উপলক্ষে সরকারের জনহিতকর উদ্যোগও যুক্ত। সম্প্রতি ঈদকে সামনে রেখে সরকার ৩৬ লাখ পরিবারকে সহায়তা প্রদান করেছে। করোনাকালে এ জাতীয় উদ্যোগ আশাব্যাঞ্জক। তবে শুধু সরকার নয়, ঈদের সমতার মহিমায় সমাজের বিত্তবানদের একটু হাত বাড়াতে হবে। তবেই এই বিষাদকালে ঈদের দিন সবার জন্য হতে পারে আনন্দের উপলক্ষ— এটাই তো ঈদের দিনের মূল প্রতিপাদ্য।

 

লেখক: প্রাবন্ধিক, খণ্ডকালীন শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা/ফিরোজ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়