ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ১০ ১৪৩১

আমদানি করা নিম্নমানের গমের ভুসিতে বাজার সয়লাব

হাসান মাহামুদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৪৩, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩  
আমদানি করা নিম্নমানের গমের ভুসিতে বাজার সয়লাব

আমদানি করা নিম্নমানের গমের ভুসি অবাধে বাজারে বিক্রি হচ্ছে। দেশীয় উৎপাদকরা ভুসির চাহিদা পূরণে সক্ষম। তা সত্বেও ভুসি আমদানি করায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন দেশীয় উৎপাদকরা। ইতোমধ্যে বন্ধ হয়েছে ৫০ শতাংশ আটা-ময়দার মিল। উৎপাদন বন্ধ থাকলে সঙ্কট দেখা দেওয়ার পাশাপাশি দাম বাড়বে আটা-ময়দার। পশুস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি ভেজাল গমের ভুসি বিক্রি হচ্ছে নামি কোম্পানির মোড়কে। এদিকে, নিরাপদ পশুখাদ্য নিশ্চিত করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ে ভুসির ওপর আমদানি শুল্ক বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে বছরে গমের ভুসির চাহিদা ২১ লাখ ৯০ হাজার টন। সারা দেশে ছোট-বড় ১ হাজার ১০০-এর বেশি আটা-ময়দার মিলে উৎপাদন হয় ২২ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। চাহিদার চেয়ে বেশি উৎপাদন হলেও বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করে গমের ভুসি আমদানি করা হচ্ছে। বিপুল পরিমাণ ভুসি অবিক্রিত থাকায় দেশি কোম্পানিগুলো আটা-ময়দা উৎপাদন বন্ধ রাখতে বাধ্য হচ্ছে। এ কারণে আটা-ময়দার মিলের প্রায় অর্ধেকই বন্ধ হয়ে গেছে। পশুস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি ভেজাল গো-খাদ্য আমদানি নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি দেশীয় শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে গমের ভুসি আমদানির ওপর শুল্ক বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

নারায়ণগঞ্জ আটা-ময়দা মিল মালিক সমিতির সভাপতি জসিম উদ্দিন মৃধা বলেছেন, আমদানিকৃত ভুসি খুবই নিম্নমানের। তাই, এসব ভুসি কিছুটা কম দামে বিক্রি হচ্ছে। ফলে, আমাদের দেশের মিলে উৎপাদিত ভুসি বিক্রি হচ্ছে না। গমের ভুসি আমদানিতে আটা-ময়দা আমদানির সমান শুল্ক আরোপ করা হলে আমরা টিকে থাকতে পারব।

বর্তমানে আটা-ময়দার আমদানি শুল্ক ৩৮ শতাংশ হলেও গমের ভুসি আমদানির শুল্ক মাত্র ৫ শতাংশ। আবার খামারিরা সরাসরি আমদানি করতে পারছেন কোনো শুল্ক ছাড়াই। এই সুযোগ নিয়ে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী দেশে নিম্নমানের ভুসি আমদানি ও নামি কোম্পানির মোড়কে (ব্যাগ) বাজারজাত করছে। ভেজাল গো-খাদ্য বিক্রি বন্ধের পাশাপাশি নিরাপদ গমের ভুসি বাজারজাত করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ডা. মো. নাজমুল হক বলেন, আমরা ভেজাল গো-খাদ্যের (ভুসি) বিষয়ে কঠোর অবস্থানে। বিশেষ করে, আমদানিকৃত ভুসিতে ভেজাল পেলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। পশুর জন্য ক্ষতিকর এসব ভুসি আমদানির ওপর আমাদের নজরদারি আছে। ভেজাল গমের ভুসি না কেনার জন্য খামারিদের পরামর্শ দেই আমরা।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সূত্র জানায়, এক বছরের ব্যবধানে ভুসি আমদানি বেড়েছে ৮৮ শতাংশের বেশি। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) ৪ লাখ ৩৯ হাজার ৫৩ মেট্রিক টন গমের ভুসি আমদানি করা হয়েছে। ২০২২ সালের প্রথম ছয় মাসে আমদানি করা হয়েছিল ২ লাখ ৩৩ হাজার ৪১৬ মেট্রিক টন। চলমান ডলার সঙ্কটে খাদ্যপণ্য ও জ্বালানি আমদানি ব্যাহত হলেও ভুসি আমদানি বেড়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জরুরি পণ্যে এলসি উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ দিলেও তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। গত বছরের ৬ নভেম্বর সচিবদের সঙ্গে বৈঠকে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে খাদ্যপণ্য, সার ও জ্বালানি আমদানির এলসি খোলা নিশ্চিত করতে বলেন প্রধানমন্ত্রী। সরকারপ্রধানের নির্দেশনা উপেক্ষা করে একটি চক্র দেশীয় শিল্পকে ধ্বংস করতে নিম্নমানের গমের ভুসি আমদানি করছেন।

এ বিষয়ে বসুন্ধরা ফুডের বিভাগীয় প্রধান (বিক্রয় ও বিতরণ) রেদোয়ানুর রহমান বলেন, ‘বর্তমানে দেশে যে ভুসির চাহিদা আছে, তার চেয়ে বেশি ভুসি দেশেই উৎপাদন হচ্ছে। সাধারণত, গম থেকে ৩০ শতাংশ ভুসি উৎপাদন হয়। কারখানাগুলোতে উৎপাদিত ভুসি সর্বোচ্চ ৪-৫ দিনের বেশি মজুদ করে রাখা যায় না। মজুদ ভুসি বিক্রি করতে না পারলে নতুন করে উৎপাদনে যেতে পারে না কারখানাগুলো। ফলে, বাধ্য হয়ে অনেক কারখানায় উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে বাজারে আটা-ময়দার সরবরাহ সঙ্কট তৈরি হয়ে দাম বেড়ে যেতে পারে।’ 

তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা নিম্নমানের ভুসিতে বাজার সয়লাব। তাদের নিতে হয় না কোনো বিএসটিআই সনদ, লাগে না কোনো মান পরীক্ষা। এসব নিম্নমানের ভুসির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশীয় কোম্পানিগুলো। প্রাণিসম্পদ খাত হুমকির মুখে পড়ছে। দেশের আটা-ময়দার মিলগুলোতে পর্যাপ্ত থাকার পরও ভুসি আমদানির ফলে দেশের মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রার অপচয় হচ্ছে। অন্যদিকে, ডলার সঙ্কটের কারণে জ্বালানি ও জরুরি খাদ্যপণ্য আমদানি ব্যাহত হচ্ছে।’ 

রেদোয়ানুর রহমান আরও বলেন, বর্তমানে আমদানিকৃত আটা-ময়দায় ৩৮ শতাংশ শুল্ক আছে। কিন্তু, এর উপজাত (বাই প্রোডাক্ট) ভুসিতে মাত্র ৫ শতাংশ শুল্ক আছে। যদিও পশুখাদ্য উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো বিনা শুল্কে ভুসি আমদানি করতে পারছে। এসব নিম্নমানের ভুসি দেশের নামিদামি কোম্পানির বস্তা নকল করে বাজারজাত করছে। এতে মানসম্পন্ন পশুখাদ্য পাচ্ছেন না খামারিরা। 

জানতে চাইলে এসিআই কনজ্যুমার ব্র্যান্ডসের ইনস্টিটিউশন সেলসের মহাব্যবস্থাপক অবন্তি কুমার সরকার বলেন, আমদানি করা নিম্নমানের ভুসিতে বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। আমাদের উৎপাদিত ভুসি বিক্রি করতে পারছি না। আমদানিকৃত ভুসি দেশে নামিদামি কোম্পানিগুলোর মোড়কে (ব্যাগ) বিক্রি করছে। এতে আমাদের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। অনেক মিল বন্ধ হয়ে গেছে। আমাদেরটাও বন্ধের পথে। ভুসি বিক্রি করতে না পারায় আটা-ময়াদার উৎপাদন বন্ধ রাখা হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে দেশে আটা-ময়দার দাম আরও বেড়ে যাবে।

চলতি বছরের ৬ মার্চ কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে বসুন্ধরা ভুসির মোড়কে (ব্যাগ) ভেজাল ভুসি বিক্রি করায় দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২১ বস্তা ভেজাল গমের ভুসি জব্দ করা হয়।

/রফিক/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়