ঢাকা     শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ১৭ ১৪২৯ ||  ০১ জিলহজ ১৪৪৩

ব‌্যাটিং ধসে পরাজয় উঁকি দিচ্ছে দৃষ্টিসীমায়

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৩০, ২৬ মে ২০২২   আপডেট: ১৭:৪৬, ২৬ মে ২০২২
ব‌্যাটিং ধসে পরাজয় উঁকি দিচ্ছে দৃষ্টিসীমায়

সংক্ষিপ্ত স্কোর: দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ ৩৪/৪ (১৩ ওভার) 

প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কা ৫০৬/১০ (১৬৫.১ ওভার); লিড: ১৪১ রান 

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ- ৩৬৫/১০ (১১৬.২ ওভার) মুশফিক ১৭৫*।

১৪১ রান পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে শেষ বিকেলে শ্রীলঙ্কার গতিতে এলোমেলো বাংলাদেশ। মাত্র ৭৫ মিনিটের লড়াইয়ে টপ অর্ডার হয়ে গেল টপলেস।

তামিম ইকবাল শুরুতেই শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন। শান্ত ২ রানে রান আউট হন। জয়কে সিঙ্গেল নেওয়ার জন্য ডাক দিলেও প্রান্ত বদল করতে পারেননি। পয়েন্ট থেকে জয়াবিক্রমার সরাসির থ্রোতে ভাঙে উইকেট। 

মুমিনুল আরো একবার হতাশ করে ফেরেন শূন্য রানে। রাজিথার বলে ক্যাচ দেন উইকেটের পেছনে। বাংলাদেশের কফিনে শেষ পেরেকটু ঠুকিয়ে দেন আশিথা। দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ দিয়ে দুইবার জীবন পাওয়া জয় ফেরেন সাজঘরে। 

দিনের শেষাংশে দলকে বিপদে ফেলেননি মুশফিক ও লিটন। ২৩ বলে ১১ রান যোগ করে দুজন বিপদ সামলে নেন। মুশফিক ১৪ ও লিটন ১ রানে অপরাজিত আছেন। 

১০৭ রানে পিছিয়ে থেকে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করেছে বাংলাদেশ। অভাবনীয় কিছু না হলে আরেকটি টেস্ট পরাজয় উঁকি দিচ্ছে। এই টেস্ট বাঁচাতে হলে পঞ্চম দিনে নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলতে হবে। পারবে তো বাংলাদেশ? 

দুইবার ‘জীবন’ পেয়েও ব্যর্থ জয়

ইনিংসের প্রথম ওভারেই জয় সাজঘরে ফিরতে পারতেন। তামিমের আগেই তার পেয়ার হয়ে যেত যদি শ্রীলঙ্কা তার উইকেটের আবেদন করতেন। কাশুন রাজিথার বল ড্রাইভ করতে গিয়ে টাইমিং মেলাতে পারেননি ডানহাতি ওপেনার। কিন্তু তার ব্যাটের আলতো চুমু পেয়ে বল যায় উইকেটের পেছনে। কিন্তু লঙ্কানরা কেউই তার উইকেটের আবেদন করেননি। পঞ্চম ওভারে রাজিথার বলে দ্বিতীয় স্লিপে আবার ক্যাচ দেন জয়। এবার কামিন্ডু মেন্ডিস তার ক্যাচ ছাড়েন। শূন্য ও ৯ রানে জয় দুবার জীবন পেলেও ইনিংস বড় করতে পারেননি। দশম ওভারে আশিথা ফার্নান্দোর লাফিয়ে উঠা বলে দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ দেন ১৫ রানে। বাংলাদেশ হারাল চতুর্থ উইকেট।

তামিমের প্রথম ‘পেয়ার’, শান্ত-মুমিনুলও সাজঘরে

তামিম ইকবাল ম্যাচে দ্বিতীয়বার রানের খাতা খোলার আগেই আউট। শান্ত ও মুমিনুল এলেন আর গেলেন। শান্ত রান আউটে কাটা পড়লেন। মুমিনুল ক্যাচ দিলেন উইকেটের পেছনে। ১৪১ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেই চরম বিপদে বাংলাদেশ। ১৯ রান তুলতেই নেই ৩ উইকেট। মুমিনুল রানের খাতা খুলতে পারেননি। শান্তর ব্যাট থেকে এসেছে ২ রান। 

তামিমের ‘পেয়ার’, শুরুতেই ধাক্কা খেল বাংলাদেশ

বিব্রতকর রেকর্ডে নিজের নাম জড়ালেন তামিম ইকবাল। প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও তামিম আউট শূন্য রানে। তাতে অনাকাঙ্খিত ‘পেয়ার’ রেকর্ডের সঙ্গী হলেন তামিম। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি তার ১১তম ডাক।    

১৪১ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খেল বাংলাদেশ। পেসার আশিথা ফার্নান্দোর বল ফরোয়ার্ড ডিফেন্স করতে গিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে কুশল মেন্ডিসের হাতে ক্যাচ দেন। ১১ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি তামিম। ডাক হওয়া ইনিংসে আজই সবচেয়ে বেশি বল খেলেছেন। 

সাকিবের ঘূর্ণিতে ৫০৬ রানে থামল শ্রীলঙ্কা

লেজের ব্যাটসম্যান আশিথা ফার্নান্দোকে নিয়ে ব্যাটিংয়ে ছিলেন ম্যাথুজ। প্রান্ত আগলে একাই ব্যাটিং করছিলেন তিনি। কিন্তু সাকিবের বুদ্ধিদীপ্ত বোলিং এবং ফিল্ডিংয়ে হার মানতে হয় এই সেঞ্চুরিয়ানকে। 

বাঁহাতি স্পিনারের হাওয়ায় ভাসানো বল লং অনে পাঠিয়ে ২ রান নিতে চেয়েছিলেন ম্যাথুজ। সেখানে মুশফিক ছিলেন ফিল্ডিংয়ে। বলের ওপর দ্রুত পৌঁছে গেলে মুশফিকের থ্রো ছিল মন্থর গতির। সাকিব মিড অনের কাছাকাছি চলে গিয়েছিলেন। মুশফিকের থেকে পাওয়া বল লুফে নিয়ে সরাসরি থ্রোয়ে ভাঙেন উইকেট। আশিথা ফার্নান্দো রান আউট। ১৪৫ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাথুজ ফেরেন সাজঘরে। 

শ্রীলঙ্কা গুটিয়ে যায় ৫০৬ রানে। বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রানের জবাবে শ্রীলঙ্কা লিড পায় ১৪১ রানের।  

৪০.১ ওভারে ১১ মেডেনে ৯৬ রানে ৫ উইকেট নিয়ে সাকিব দলের সেরা বোলার। ৩৮ ওভার হাত ঘুরিয়ে ইবাদত পেয়েছেন ৪ উইকেট।

চট্টগ্রামে ১৯৯ রান করা ম্যাথুজ এবার থামলেন ১৪৫ রানে। সঙ্গীর অভাবে তার ইনিংস বড় হয়নি। ৩৪২ বলে ১২ চার ও ২ ছক্কায় সাজিয়েছেন ১৩তম টেস্ট সেঞ্চুরির ইনিংসটি। 

পাঁচ বছর পর ঘরের মাঠে সাকিবের ‘ফাইফার’

২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে শেষ পাঁচ উইকেট পেয়েছিলেন সাকিব। দুই ইনিংসেই সাকিবের পকেটে গিয়েছিল ৫টি করে উইকেট। এরপর ৭ টেস্ট খেললেও ঘরের মাঠে পাঁচ উইকেট ছিল না তার। পাঁচ বছর পর সাকিবের অপেক্ষা ফুরাল। জয়াবিক্রমাকে উইকেটের পেছনে তালুবন্দি করিয়ে ফাইফারের স্বাদ পেলেন। এছাড়া চার বছর পর সাদা পোশাকে পাঁচ উইকেট পেলেন সাকিব। সবশেষ ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংসটনে ছয় উইকেট পেয়েছিলেন। ক্যারিয়ারের এটি তার ১৯তম পাঁচ উইকেট। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তৃতীয়।     

ইবাদতের চতুর্থ শিকার রামেশ মেন্ডিস

নতুন বল হাতে পেয়ে আগুণ ঝরাচ্ছেন পেসার ইবাদত হোসেন। সাফল্যের জন্য খুব বেশি অপেক্ষা করতে হলো না তাকে। শ্রীলঙ্কার লেজের ব্যাটসম্যান রামেশ মেন্ডিসকে ভেতরে ঢোকোনো বলে এলবিডব্লিউ করেছেন। তাকে ফিরিয়ে ৪ উইকেট পেলেন ডানহাতি পেসার।

স্টাম্পিংয়ের আবেদন করে কট বিহাইন্ডে সাকিবের চতুর্থ উইকেট

সাকিবের অফস্টাম্পের অনেক বাইরের বল এগিয়ে এসে খেলতে চেয়েছিলেন ডিকভেলা। কিন্তু বল নাগালে পাননি। লিটন অনেক বাইরের বল ধরে স্টাম্পিং করলেও ডিকভেলা আগেই ভেতরে ঢুকে গিয়েছিলেন। বাংলাদেশের স্টাম্পিংয়ের আবেদন করলে তৃতীয় আম্পায়ারের সাহায্য নেন শরীফদৌল্লাহ ইবনে সৈকত।

রিপ্লেতে দেখা যায় স্টাম্প ভাঙার আগে ডিকভেলা নিরাপদে জায়গায় ফিরে যান। কিন্তু আলট্রা এজ চেক করতে গিয়ে দেখা যায় বিপত্তি। বল ব্যাটের আলতো চুমু খেয়ে যায় উইকেটের পেছনে লিটনের গ্লাভসে। তাতে সাকিব পেয়ে যান চতুর্থ উইকেট। চট্টগ্রামে ফিফটি পাওয়া ডিকভেলা ১০ বলে ৯ রানে ফেরেন সাজঘরে।   

১৯৯ রানের জুটি ভাঙলেন ইবাদত

দ্রুত রান তোলার তাড়ায় বিরতির পর আগ্রাসী ক্রিকেট চালু রেখেছিলেন ম্যাথুজ ও চান্দিমাল। বিরতির পর ইবাদতের শর্ট বল পুল করে দারুণ চার হাঁকান চান্দিমাল। এক বল পর তার ফুলার লেন্থ বল উড়াতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এক্সট্রা কভারে তামিমের হাতে ধরা পড়েন চান্দিমাল। চান্দিমালের বিদায়ে ভাঙল ১৯৯ রানের জুটি। ষষ্ঠ উইকেটে ম্যাথুজ ও চান্দিমাল ৪১৫ বলে ১৯৯ রানের জুটি গড়েছিলেন। চান্দিমালের ক্যারিয়ারের দ্বাদশ সেঞ্চুরির ইনিংসটি শেষ হয় ১২৪ রানে। ২১৯ বলে ১১ চার ও ১ ছক্কায় ইনিংসটি সাজিয়েছেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান।   

রান ফোয়ারার সেশনে প্রবল চাপে বাংলাদেশ

ম্যাথুজ সেঞ্চুরির অপেক্ষায় ছিলেন। অনায়েসে তিন অঙ্কের ম্যাজিকাল ফিগার ছুঁয়েছেন। চান্দিমালও তাই। সেঞ্চুরিতে পৌঁছতে কোনো বাধা পেরুতে হয়নি তার। দুই ডানহাতি ব্যাটসম্যান এরপর আগ্রাসী ব্যাটিং বেছে নেন। তাতে স্কোরবোর্ড দৌড়েছে। রান ফোয়ারার দ্বিতীয় সেশনে শ্রীলঙ্কা ২৫ ওভারে ৯০ রান তুলেছে। তাতে প্রবল চাপে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রানের জবাবে শ্রীলঙ্কার রান ৫ উইকেটে ৪৫৯। লিড ৯৪ রানের। ম্যাচে এখনো চার সেশন বাকি। অতিথিদের লিড বড় হলে ম্যাচ বাঁচাতে কঠিন পথ পাড়ি দিতে হবে মুমিনুল হকের দলকে। ম্যাথুজ ১২৩ ও চান্দিমাল ১২০ রানে ব্যাটিং করছেন। 

ম্যাথুজের পর চান্দিমালের সেঞ্চুরি

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের পর সেঞ্চুরির দেখা পেলেন দিনেশ চান্দিমাল। ইবাদত হোসেনের প্রথম দুই বলে টানা চার মারার পর চতুর্থ বলে সিঙ্গেল নিয়ে সেঞ্চুরি করেন তিনি। ১৮১ বলে ৯ চার ও ১ ছয়ে ক্যারিয়ারের ১২তম শতকের দেখা পান লঙ্কান ব্যাটসম্যান।

রিভিউ নিয়ে টিকে গেলেন ম্যাথুজ

দেড়শর পথে ম্যাথুজ-চান্দিমালের জুটি, কিন্তু তার আগেই ভাঙতে পারতো। মোসাদ্দেক হোসেনের সপ্তম ওভারে ম্যাথুজের বিরুদ্ধে জোরালো এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া পায় বাংলাদেশ। কিন্তু রিভিউ নেন শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যান, তাতে আম্পায়ারের আউটের সিদ্ধান্তে আসে পরিবর্তন। ১০৫ রানে ম্যাথুজ পান জীবন।

দীর্ঘ অপেক্ষার পর ম্যাথুজের সেঞ্চুরি, চারশ পেরিয়ে শ্রীলঙ্কা

হাফ সেঞ্চুরিতে পৌঁছেছিলেন ১২৫ বলে। সেখান থেকে সেঞ্চুরি পেতে খেললেন আরো ১৪৯ বল। চোয়ালবদ্ধ ব্যাটিংয়ে ক্যারিয়ারের ১৩তম সেঞ্চুরি তুলে নেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। ২৭৪ বলে ৬টি চার ও ২ ছক্কায় তিন অঙ্ক ছুঁয়েছেন এ ব্যাটসম্যান। চট্টগ্রামের পর ঢাকাতেও সেঞ্চুরি পেলেন ম্যাথুজ। এবার সেঞ্চুরি পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে তাকে। চট্টগ্রামে সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন ১৮৩ বলে। এবার ২৭৪ বলে। সব মিলিয়ে ৪৩৫ মিনিট ক্রিজে থেকে সেঞ্চুরি পেয়েছেন। এদিকে শ্রীলঙ্কার দলীয় রানও চারশ পেরিয়েছে। লিড ৩৫ রানের। 

আরেকটি রিভিউ নষ্ট করলো বাংলাদেশ

১৩৬তম ওভারে খালেদ আহমেদের লেন্থ বল চান্দিমাল টাইমিং মেলাতে পারেননি। বল আঘাত করে তার প্যাডে। বাংলাদেশের আবেদনে এবার সাড়া দেননি জো উইলসন। খালি চোখেই বোঝা যাচ্ছিল বল লেগ স্টাম্প দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু খালেদের আগ্রহে মুমিনুল রিভিউ নেন। বল ইন লাইন পিচ করলেও ইমপ্যাক্ট ছিল বাইরে। লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরে দিয়ে বেরিয়েও যায়। এই ইনিংসে বাংলাদেশ দ্বিতীয়বার ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে রিভিউ নষ্ট করলো। আবার একটি রিভিউতে ফলও পেয়েছে। 

রিভিউ নিয়ে টিকে রইলেন ম্যাথুজ

১৩২তম ওভারের ঘটনা। পেসার খালেদের একটু লাফিয়ে উঠা লেন্থ বল ফরোয়ার্ড ডিফেন্স করতে চেয়েছিলেন ম্যাথুজ। বল তার ব্যাটের কাছাকাছিও ছিল না। কিন্তু বাংলাদেশের আবেদনে সাড়া দিয়ে আম্পায়ার জো উইলসন আঙুল তোলেন। সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নিয়ে নেন সেঞ্চুরির অপেক্ষায় থাকা এ ব্যাটসম্যান। রিপ্লেতেও দেখা যায় বল তার ব্যাটের নাগালেও ছিল না। রিভিউ নিয়ে টিকে রইলেন ম্যাথুজ। 

বাংলাদেশের হতাশায় মোড়ানো আরেকটি সেশন

৩৩ ওভারের লম্বা সেশনে বাংলাদেশ উইকেট নেওয়ার বল করতে পারলো দুয়েকটি। সেগুলো খুব ভালোভাবে সামলে নিয়ে ম্যাথুজ ও চান্দিমাল বাংলাদেশকে হতাশায় মোড়ানো আরেকটি সেশন উপহার দিলেন। নির্বিষ বোলিংয়ে সাবলীল ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের রান টপকে লিড বড় করার পথে তারা। 

ম্যাথুজ চট্টগ্রামের পর ঢাকাতেও সেঞ্চুরির পথে এগিয়ে যাচ্ছেন। ৯৩ রানে অপরাজিত আছেন। তাকে সঙ্গ দেওয়া চান্দিমালের ব্যাট থেকে এসেছে ৬৩ রান। দুজনের ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে এখন পর্যন্ত এসেছে ১০৩ রান। এই সেশনে বাংলাদেশে কোনো উইকেট নিতে পারেনি। অতিথিরা তুলেছে ৮৭ রান।

শ্রীলঙ্কার প্রত্যাশিত লিড, বাংলাদেশের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রান ছাড়িয়ে গেলো শ্রীলঙ্কা। দিনেশ চান্দিমাল ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের জমাট জুটিতে প্রত্যাশিত লিড পেলো অতিথিরা।

৮৩ রানে পিছিয়ে থেকে বৃহস্পতিবার চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করেছিল তারা। কোনো বিপদ ছাড়াই শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশের রান টপকে গেলো। স্বাগতিক বোলার এই সেশনে তেমন ভালো বোলিং করতে পারেননি। উইকেট নেওয়া কিংবা চাপে ফেলার মতো কোনো পরিস্থিতি তৈরি করতে পারেননি। ষষ্ঠ উইকেটে ম্যাথুজ ও চান্দিমালের জুটির রানও শতরান ছাড়িয়েছে। তৃতীয়বার তাদের জুটির রান একশ ছাড়িয়েছে।

শ্রীলঙ্কা লিড নেওয়ায় বাংলাদেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়তে যাচ্ছে বলার অপেক্ষা রাখে না। ম্যাচে এখনো দেড় দিন বাকি। অতিথিরা কোনোভাবে ১৫০ রানের লিড পেলে পঞ্চম দিনে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে। ম্যাচ বাঁচাতে তখন লড়তে হবে। 

চান্দিমালের ফিফটি

তাইজুলের বল এগিয়ে এসে মিড উইকেটে পাঠিয়ে এক রান নিলেন চান্দিমাল। ৪৯ থেকে তার রান পৌঁছে গেলো ৫০ এ। ১১৮ বলে ক্যারিয়ারের ২২তম ফিফটি তুলে নিয়েছেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ৪ চার ও ১ ছক্কায় ইনিংসটি মেরামত করেছেন শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক। 

বাংলাদেশের নির্বিষ বোলিং, শ্রীলঙ্কার নিয়ন্ত্রিত ব্যাটিং

প্রথম ঘণ্টায় বোলিংয়ে তেমন কিছুই করতে পারেনি বাংলাদেশ। দুই পেসার ইবাদত ও খালেদ ছিলেন একাবারেই নির্বিষ। দুই স্পিনার সাকিব ও তাইজুল তেমন কিছু করতে পারেননি। তাতে ম্যাথুজ ও চান্দিমাল অনায়েসে ব্যাটিং করে যাচ্ছেন। ২২ গজে তাদের এক মুহূর্তের জন্য ভোগাতে পারেননি কেউ। বাংলাদেশর করা ৩৬৫ রানের জবাবে লিড নেওয়ার পথে অতিথিরা। দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে দুই ব্যাটসম্যান যেভাবে রান করছেন তাতে লিড বড় হলে বিপদেই পড়তে পারে স্বাগতিকদের। 

মোসাদ্দেকের ১ ওভারের স্পেল

তৃতীয় দিনে সারাদিনে মাত্র ২ ওভার হাত ঘুরিয়েছিলেন মোসাদ্দেক। অফস্পিনারকে চতুর্থ দিনের শুরুতে বোলিংয়ে এনেছিলেন মুমিনুল হক। কিন্তু এবার ১ ওভারেই শেষ তার স্পেল! আগের দিন ২ ওভারে ১৪ রান দিয়েছিলেন। আজ একমাত্র ওভারে ব্যয় করেন ৩ রান। তবে বিশেষ কারণে তাকে বোলিংয়ে এনেছিলেন মুমিনুল। দিনের শুরু থেকে পেসার ইবাদত প্রেসবক্স প্রান্ত থেকে বোলিং করছিলেন। মোসাদ্দেককে ওই প্রান্ত থেকে বোলিংয়ে এনে ইবাদতের প্রান্ত (থানা প্রান্ত) বদলে দেন মুমিনুল। 

তিনশ পেরিয়েছে শ্রীলঙ্কার রান

প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কার রান তিনশ পেরিয়েছে। বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রানের দারুণ জবাব দিচ্ছে অতিথিরা। ম্যাথুজ ও চান্দিমাল সাবলীল ব্যাটিংয়ে এগিয়ে নিচ্ছেন দলের রান। 

কী আছে ম‌্যাচের ভাগ‌্য

বৃষ্টির কারণে তৃতীয় দিন ৩৯ ওভার খেলা হয়নি। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে শেষ দুদিন ৩০ মিনিট আগে খেলা শুরু হবে। কিন্তু তাতেও কি ম‌্যাচের ফল বের হবে? এখনো প্রথম ইনিংসের খেলা শেষ হয়নি। শ্রীলঙ্কা ৮৩ রানে পিছিয়ে। হাতে ৫ উইকেট। অভাবনীয় কিছু না হলে ম‌্যাচে ফল বের করা কঠিন। 

অভাবনীয় কিছু হতে হলে উইকেটের সাহায‌্য লাগবে। শ্রীলঙ্কার কোচ নাভিদ নেওয়াজ যেমন বললেন, ‘উইকেটের ওপর নির্ভর করছে ম‌্যাচের ভাগ‌্য।’ উইকেট ম‌্যাড়ম‌্যাড়ে হলে কোনো দলই সুফল পাবে না। তবে উইকেট ভাঙলে, বল টার্ণ করলে স্পিনাররা সাহায‌্য পাবে। তাতে ম‌্যাচে ফল বের হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে

শ্রীলঙ্কার লিড নাকি ব‌্যাটিংয়ে ধস নামাবে বাংলাদেশ?

অ‌্যাঞ্জেলো ম‌্যাথুজ খুব সাবলীল ব‌্যাটিংয়ে ‍তুলে নিয়েছেন ফিফটি। দিনেশ চান্দিমাল থিতু হয়েছেন। দুই পরীক্ষিত ও অভিজ্ঞ ব‌্যাটসম‌্যান নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশের রান টপকে শ্রীলঙ্কার লিড বাড়াতে চাইবেন। ৮৩ রানে এখনও পিছিয়ে লঙ্কানরা। 

বাংলাদেশ কি পারবে অতিথিদের ব‌্যাটিংয়ে ধস নামাতে? সাকিব, ইবাদত তৃতীয় দিনের শুরুতে জুটি বেঁধে দারুণ বোলিং করেছিলেন। চতুর্থ দিনের সকালে তাদের আরেকটি সম্মিলিত আক্রমণে ধস নামতে পারে। তাতে প্রথম ইনিংসে ভালোভাবে এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও থাকবে। বোলাররা কি পারবেন সকালটা রাঙাতে?

ঢাকা/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়