ঢাকা, সোমবার, ৯ মাঘ ১৪২৪, ২২ জানুয়ারি ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বাহারি পণ্য নিয়ে বাণিজ্য মেলায় এসএমই

হাসিবুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০১-১১ ৪:৪৪:২৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-১১ ৪:৫১:২৮ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২৩ তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে বাহারি পণ্য দিয়ে সাজিয়েছে এসএমই প্যাভিলিয়ন।

বৃহস্পতিবার ১১তম দিনে মেলায় গিয়ে দেখা যায়,   ক্রেতাদের সমাগম অন্য দিনের তুলনায় একটু বেশি। তীব্র শীতকে উপেক্ষা করে ক্রেতারা মেলায় কেনাকাটা করতে আসছেন। আর ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে এসএমই প্যাভিলিয়ন বাহারি পণ্যের পসরা সাজিয়েছে।

এসএমই প্যাভিলিয়নে গিয়ে দেখা গেছে, হাতের তৈরি আকর্ষণীয় বিভিন্ন পোশাক, হ্যান্ডিক্রাফট, লেদার পণ্য, জুট পণ্য, প্লাস্টিক পণ্য, রংপুরের ঐতিহ্যবাহী শতরঞ্জী, জামদানি ও মসলিন শাড়ি, বিয়ের শাড়ি, বুটিক পণ্য, নারিকেল দিয়ে তৈরি বিভিন্ন সামগ্রী রয়েছে।

এছাড়া খাবারের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের আচার, খাঁটি মধু ও ঘিসহ বাহারি অনেক পণ্যেও আছে এই প্যাভিলিয়নে। এসব পণ্য সবই দেশি উদ্যোক্তাদের তৈরি ও নিজস্ব প্রতিষ্ঠানের বলে এসএমই ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

এসব পণ্যের গুণগত মান ভালো ও টেকসই হয় বলে জানিয়েছেন এমএমই ফাউন্ডেশনের সহকারী মহাব্যবস্থাপক ফাহিম বিন আসমাত।

বাণিজ্য মেলার এসএমই ফাউন্ডেশনের ‘প্যাভিলিয়ন- আর পি-১’ অনেক পণ্যের সমাহার দেখে মুগ্ধ হচ্ছেন মেলায় আসা লোকজন।

চাদর ও মাফলার কিনেছেন মোহাম্মদ সোহেল হোসেন তিনি বলেন, চাদরগুলোর নতুনত্ব আছে। এটি অনেকটা জামদানি স্টাইলের। এমন ধরনের চাদর আমার চোখে এই প্রথম পড়েছে।

একই স্টল থেকে জামদানি গহনা কিনছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী হাবিবা। তিনি বলেন, জামদানি আমাদের ঐতিহ্য। আর এটা দিয়ে তৈরি গহনা দেখতে খুব সুন্দর ও হালকা হওয়া কিনলাম।

নারীদের বিভিন্ন অলঙ্কারও পাওয়া যাচ্ছে এসএমই ফাউন্ডেশনের প্যাভিলিয়নে। এই প্যাভিলিয়নে ২২টি ছোট ছোট স্টল রয়েছে। যেখানে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা তাদের পণ্যের প্রদর্শন করছেন। এখানে রয়েছে গলার হার, চুড়ি, কানের গহনা, নাকের গহনা, পার্স, বিভিন্ন শো-পিস, টিস্যু বক্স, ফুলদানি, ওয়ালমেট, ফটোফ্রেমসহ নানা ধরনের পণ্যসামগ্রী। আছে সিকা, ঝুলানো ফুলদানি, ফুলের টব, পুতুলসহ বাচ্চাদের বাহারি খেলনা সামগ্রী। এছাড়াও আছে চামড়ার তৈরি বিভিন্ন ব্যাগ, পার্স, বিস্কুট, চানাচুরসহ বিভিন্ন খাবারের পণ্য।

দেশীয় শিল্প, সংস্কৃতির ও ঐতিহ্যের নিপুণ কারুকাজ ফুটে উঠেছে বাহারি রঙ ও নকশার মসলিন, সুতি, তাঁত কাপড়ের প্রতিটি পোশাকে। বিভিন্ন প্রিন্ট, সুই-সুতার কাজ, অ্যামব্রয়ডারি, লেসসহ বিভিন্ন হাতের কাজে নতুনত্ব পেয়েছে প্রতিটি পোশাকে। শাড়ি, পাঞ্জাবি, সালোয়ার কামিজ, কুর্তি, শার্ট, ছোটদের পোশাক, ওড়না, কাপ্তানসহ উদ্যোক্তাদের সরাসরি নিজস্ব কারখানা থেকে তৈরি এ পোশাক পাওয়া যাবে এসএমই প্যাভিলিয়নে।

এসএমই ফাউন্ডেশনের সহকারী মহাব্যবস্থাপক ফাহিম বিন আসমাত জানান, উৎপাদনকারীরাই তাদের স্টলে পণ্য নিয়ে এসেছেন। এসব পণ্যর গুণগত মান অনেক ভালো। দেশি পণ্য কিনে এসব উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে দর্শনার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। এক প্যাভিলিয়নে এত পণ্যের সমাহার থাকায় এক ছাদের নিচেই অনেক পণ্য পাবে ক্রেতারা বলেন তিনি।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১১ জানুয়ারি ২০১৮/হাসিবুল/সাইফ

Walton
 
   
Marcel