ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

টার্নওভার ৫ কোটি টাকা হলে সফটওয়্যারে হিসাব বাধ্যতামূলক

এম এ রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৯-২৩ ১২:০৬:৫৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১০-১২ ২:০৭:১৪ পিএম

এম এ রহমান মাসুম : প্রতিষ্ঠানের লেনদেন ও টার্নওভারের তথ্য এতোদিন নিজেদের ইচ্ছেমতো সংরক্ষণ করলেও এখন তা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) নিয়ন্ত্রণে আসছে।

মোট বিক্রয় বা টার্নওভার পাঁচ কোটি টাকা বা তার অধিক হলেই মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট সংক্রান্ত দলিলাদি ও হিসাবপত্র এনবিআর কর্তৃক নির্ধারিত সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংরক্ষণ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এর ফলে ভোক্তাদের কাছ থেকে ভ্যাট আদায় করলেও তা এনবিআরকে ঠিকমতো পরিশোধ না করার সুযোগ আর থাকবে না। এতে বন্ধ হবে ভ্যাট ফাঁকি এবং রাজস্ব আদায় বাড়বে বলে এনবিআর সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

এ আদেশ আগামি ১ জানুয়ারি থেকে পরিপালনের বাধ্যবাধকতা করা হয়েছে। না মানলে রাখা হয়েছে শাস্তির বিধানও। গত ১৭ সেপ্টেম্বর এমন কিছু বিধান রেখে আদেশ জারি করেছে এনবিআর। সংস্থাটির উর্ধ্বতন একটি সূত্র রাইজিংবিডিকে ওই আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এনবিআরের প্রথম সচিব (মূসক নীতি) হাছান মুহম্মদ তারেক রিকাবদার সই করা ওই আদেশ ১৯৯১ সালের মূসক আইনের ৩১ ও ৩৮ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে জারি করা হয়েছে। 

যেখানে বলা হয়েছে,যে সব মূসক নিবন্ধিত বা নিবন্ধনযোগ্য প্রতিষ্ঠানের পূর্ববর্তী আর্থিক বৎসরে মোট বিক্রয় বা টার্নওভার পাঁচ কোটি টাকা বা তার অধিক,সেই সব প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলকভাবে ভ‌্যাট সংক্রান্ত দলিলাদি ও হিসাবপত্র এনবিআর কর্তৃক নির্ধারিত সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংরক্ষণের এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে মূসক কার্যালয়ে কম্পিউটার সিস্টেমে প্রেরণের লক্ষ্যে আদেশ প্রদান করা হলো।

এ বিষয়ে এনবিআরের সদস্য (ভ্যাটনীতি) ও ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পের পরিচালক মো. রেজাউল হাসান বলেন, মূলত ভ্যাট ফাঁকি বন্ধ ও রাজস্ব আদায় প্রক্রিয়া স্বচ্ছতার মধ্যে নিয়ে আসতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের টার্নওভার পর্যবেক্ষণ করতে পারলেই রাজস্ব আদায় অনেক বেড়ে যাবে বলে আমাদের বিশ্বাস। তবে বিষয়টি বাস্তবায়ন একটু কষ্টসাধ্য হবে। এজন্য সচেতনতা ও প্রচারের পাশাপাশি মাঠপর্যায়ে অভিযানও পরিচালনা করতে হতে পারে এনবিআরকে।

এনবিআরের আদেশ অনুযায়ী, যে সব বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের দলিলাদি ও হিসাবপত্র নির্ধারিত সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা নেই কিন্তু মূসক সংশ্লিষ্ট হিসাবপত্র সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংরক্ষণ করতে ইচ্ছুক, তারাও এনবিআরের ওয়বেসাইটে প্রকাশিত সফটওয়্যারের তালিকা হতে সফটওয়্যার সংগ্রহ করে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে।

অন্যদিকে যে সব বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের দলিলাদি ও হিসাবপত্র নির্ধারিত সফটওয়্যারের মাধ্যমে সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা আরোপিত হয়েছে, সে সকল প্রতিষ্ঠান চাইলে যে কোনো সফটওয়্যার নির্মাণকারী ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হতেও সংশ্লিষ্ট সফটওয়্যার সংগ্রহ করে ব্যবহার করতে পারবে। তবে তা এনবিআর কর্তৃক পরীক্ষিত ও অনুমোদিত হতে হবে।

এক্ষেত্রে সফটওয়্যার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের তালিকাভুক্তির জন্য চারটি বৈশিষ্ট‌্য থাকা বাধ্যতামূলক।

এসব বৈশিষ্ট্য  হলো-
১। প্রতিষ্ঠানকে রেজিস্ট্রার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস এর দপ্তর হতে প্রাইভেট বা পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসাবে নিবন্ধিত হতে হবে।

২। সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসাবে ন্যূনতম পাঁচ বছর নিরবচ্ছিন্নভাবে কার্যক্রম পরিচালনা এবং বিক্রয়োত্তর সেবা প্রদান করিবার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

৩। প্রতিষ্ঠানের হিসাবরক্ষণ সংক্রান্ত বা কমিটির বিবেচনায় সমমানের সফটওয়্যার নির্মাণ এবং কমপক্ষে তিনটি মধ্যম বা বৃহৎ প্রতিষ্ঠানে তাহা সফলভাবে স্থাপন করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। মধ্যম বা বৃহৎ প্রতিষ্ঠান বলতে সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান, এনজিও, ব্যাংক, বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান, লিমিটেড কোম্পানি এবং মাধ্যমিকোত্তর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বৃহৎ করদাতা ইউনিট (মূসক) এর আওতাভুক্ত প্রতিষ্ঠানকে বোঝাবে।

৪। সফটওয়্যারটি অনুমোদন প্রদানের পূর্বে বোর্ডের চাহিদা অনুযায়ী উপযুক্ত ও কার্যকর কিনা সে বিষয়ে সরেজমিনে পরীক্ষাপূর্বক নিশ্চিত হওয়ার ব্যবস্থাদি আবেদনকারী কোম্পানির পক্ষ থেকে সম্পন্ন করতে হবে।

আর সফটওয়্যারের ক্ষেত্রে ২৩ বৈশিষ্ট‌্য থাকতে হবে। এগুলো হলো-
১। নির্মিত সফটওয়্যারটি ১৯৯১ মূসক আইন ও বিধিমালা, প্রজ্ঞাপন ও আদেশ পরিপালনে সক্ষমতা সম্পন্ন হতে হবে।

২। সফটওয়্যারে যাবতীয় বাণিজ্যিক কার্যক্রম সংশ্লিষ্ট তথ্যাদি রেকর্ডপূর্বক মূসক আইন ও প্রণীত অন্যান্য বিধানাবলীর আওতায় পূর্ণাঙ্গ অটোমেশনের সুবিধা সম্বলিত ব্যবস্থা সন্নিবেশিত থাকতে হবে।

৩। সফটওয়্যারে ক্রয় হিসাব রেজিস্টার ও বিক্রয় চালানপত্রে কোন তথ্য এন্ট্রি দেয়ার সাথে সাথে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিক্রয় হিসাব, চলতি হিসাব রেজিস্ট্রার এবং দাখিলপত্রে আপডেট হতে হবে।

৪। সফটওয়্যারে আদর্শ হার বা ট্যারিফ মূল্য বা সংকুচিত ভিত্তিমূল্যে সরবরাহ করার সুবিধা সৃষ্টিসহ উৎসে মূসক আদায়,কর্তন,অপচয় ও উপজাত পণ্য ব্যবস্থাপনা, ডেবিট নোট ও ক্রেডিট নোটের ব্যবস্থাপনা, চুক্তিভিত্তিক উৎপাদন,উপকরণ কর রেয়াত ব্যবস্থাপনা ও মূল্য ঘোষণা ব্যবস্থাপনা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পন্ন করার সুবিধা থাকতে হব।

৫। মূল্য ঘোষণায় বর্ণিত সহগ এর ভিত্তিতে উৎপাদিত পণ্য, ব্যবহৃত উপকরণ ও বিক্রয়ের বিপরীতে প্রকৃত উপকরণ ও উৎপাদিত পণ্যের স্থিতির একটি তুলনামূলক প্রতিবেদন প্রতি কর-মেয়াদ শেষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রণীত হতে হবে।

৬। মাসিক দাখিলপত্রসহ অন্যান্য রেজিস্টারাদি (ক্রয় হিসাব, বিক্রয় হিসাব, চলতি হিসাব) এবং রিপোর্ট অটোমেটেড সিস্টেম থেকে প্রস্তুত ও প্রিন্ট করার সুবিধা থাকতে হবে।

৭।সফটওয়্যারে শুধুমাত্র একবার মূল মূসক চালানপত্র প্রিন্ট করা যাবে। সফটওয়্যারটিতে যেন একটি চালানপত্র দ্বিতীয়বার বা পরবর্তী সময়ে ইস্যু করা না যায় তেমন ব্যবস্থা থাকতে হবে।

৮। মূসক চালানপত্রে সময় ও তারিখ স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রিন্ট করতে হবে, যা কেবলমাত্র যখনই প্রিন্ট করা হবে সে সময় ও তারিখ প্রদর্শন করিবে।

৯। প্রতিদিনের কার্যক্রম শেষে কম্পিউটার জেনারেটেড রিপোর্ট ও বিধি মোতাবেক হিসাবরক্ষণ সংক্রান্ত সকল বাণিজ্যিক দলিলাদি, যেমন- চালানপত্র, ডেবিট বা ক্রেডিট নোট, ক্রয় রেজিস্টার, বিক্রয় রেজিস্টার, চলতি হিসাব, দাখিলপত্র ইত্যাদি প্রিন্ট করে প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা কর্তৃক স্বাক্ষর করে সংরক্ষণ করতে হব।

১০। প্রতি করমেয়াদ শেষে উপযুক্ত কর্মকর্তার সই করা হিসাবরক্ষণ সংক্রান্ত সব বাণিজ্যিক দলিলাদির হার্ডকপি স্থায়ীভাবে বাঁধাই করতে হবে। যা অন্যুন ছয় বছর সংরক্ষণ করতে হবে।

১১। মূসক বিধিমালার নির্ধারিত ছকের তথ্য ক্ষুন্ন না করে নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান তার প্রয়োজন অনুযায়ী অতিরিক্ত তথ্যসহ মূসক চালানপত্র এবং অন্যান্য বাণিজ্যিক দলিলাদি তৈরি ও সংরক্ষণ করতে পারবে।

১২। সফটওয়্যারে এনবিআর সংশ্লিষ্ট মূসক কর্তৃপক্ষের চাহিদা অনুযায়ী নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অ্যাকসেস সুবিধা থাকতে হবে।

১৩। সিস্টেমে মূসক চালানপত্রের সাথে পণ্য ভান্ডার (স্টক) ইন্টিগ্রেটেড থাকতে হবে, যেন সিস্টেমে মূসক চালানপত্র ইস্যু করা হলে বিক্রয় রেজিস্টারের সংশ্লিষ্ট কলামে অভিন্ন সমন্বয় স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পাদিত হয় এবং স্টকের পরিমাণে ম্যানুয়ালি কোনো প্রকার পরিবর্তন করা সম্ভব না হয়।

১৪। বিক্রিত পণ্য ফেরত বা ক্রয়াদেশ বাতিলের ক্ষেত্রে ডেবিট বা ক্রেডিট নোটের মাধ্যমে তা সমন্বয় করতে হবে যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিক্রয় এবং চলতি হিসাব রেজিস্টারে প্রতিফলিত হবে।

১৫। এনবিআরের অন্যান্য সফটওয়্যার বা উপাত্ত ভান্ডার বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের সাথে তথ্য ও উপাত্ত বিনিময়ের সুবিধা থাকতে হবে।

১৬। নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়িক প্রাঙ্গনে সকল তথ্যসহ সিস্টেম পরিচালনা করতে হবে।

১৭। ইস্যুকৃত মূসক চালান কোনো কারণে বিনষ্ট হলে কিংবা তা বাতিল করার প্রয়োজন হলে তা এডিট ও পুনরায় প্রিন্ট করার সুযোগ থাকবে না। সেক্ষেত্রে ডেবিট নোট/ক্রেডিট নোট ব্যবহার করে চালানপত্র বাতিল করতে হবে এবং পুনরায় ধারাবাহিক ক্রমিক নম্বর ব্যবহার করে চালনপত্র ইস্যু করতে হব।

১৮। আইনানুগভাবে ক্ষমতাপ্রাপ্ত যেকোনো মূসক কর্মকর্তা সিস্টেমে প্রবেশ করে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পারবেন।

১৯। ওরাকল,ডিবিটু, এসকিউএল ইত্যাদির যে কোনোটিকে ডাটাবেজ ব্যাক হ্যান্ড হিসাবে ব্যবহার করা যাবে।

২০। দাখিলপত্র এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় ম্যানেজমেন্ট রিপোর্ট স্বয়ংক্রিয়ভাবে সিস্টেমে থেকে প্রস্তুত করার ব্যবস্থা থাকতে হবে এবং দাখিলপত্রসহ বিভিন্ন আবেদন/তথ্যাদি এনবিআরের ডাটা সিম্টেম অনুযায়ী আপলোডের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

২১। প্রতিদিনের কার্যক্রম শেষে সব তথ্য ন্যূনতম দুটি ব্যাক-আপ নেয়ার ব্যবস্থা থাকতে হবে। যেকোনো ডেটা হারানোর দায়-দায়িত্ব নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানকে বহন করতে হবে।

২২। সফটওয়্যারে হ‌্যাকিং এবং টেম্পারিংসহ সব ধরনের ঝুঁকি হতে সুরক্ষার জন্য পরিপূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকতে হবে।

২৩। সিস্টেমের ব্যবহার বিষয়ে এবং মূসক অপারেশন বিষয়ে বিস্তারিত ও সংক্ষিপ্ত রিপোর্ট প্রণয়নের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

আর যে সকল প্রতিষ্ঠান এ সফটওয়্যার ব্যবহার করবে না তাদের শাস্তির বিধান রাখা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে মূল্য সংযোজন কর আইনের ৩৭ ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে এনবিআর। আইনের ওই ধারা অনুযায়ী, কোনো প্রতিষ্ঠান ভ্যাট ফাঁকি দিলে ফাঁকি দেওয়া ভ্যাটের অর্ধেক বা সমপরিমাণ অর্থদণ্ড আরোপের বিধান রয়েছে। এছাড়া অন্যূন ২০ হাজার ও অনূর্ধ্ব ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডও দিতে পারবেন এনবিআর।

অন্যদিকে আদেশে আরো বলা হয়েছে, যে সব মুসক নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান ইতোপূর্বে কমিশনার কর্তৃক অনুমোদিত সফটওয়্যার স্থাপন করেছেন, সে সব প্রতিষ্ঠানের সফটওয়্যার সরবরাহকারীগণ প্রযোজ্য বৈশিষ্ট্য প্রতিপালনপূর্বক মূসক আইন ও বিধিমালার সর্বশেষ বিধি-বিধানের সহিত সামঞ্জস্যপূর্ণ ও হালনাগাদ করে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সফটওয়্যারসমূহ পরীক্ষা করিবার জন্য কমিটি বরাবরে আবেদন করতে হবে। এ আদেশ ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি হতে বাধ্যতামূলক হবে। এছাড়া এনবিআর ২০১১ সালের ২৯ জুনে জারিকৃত সাধারণ আদেশ নং-৬৪/মূসক/২০১১ বাতিল করা হলো।

তবে ব্যবসায়ীরা মনে করছেন হিসাব সংরক্ষণে সফটওয়্যার বাধ্যতামূলক করা হলেও তা বাস্তবায়ন বেশ কঠিন। কারণ সব ব্যবসায়ীর পক্ষে হঠাৎ করে এ সফটওয়্যার স্থাপনও সম্ভব নয়। এ বিষয়ে এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, এটা খুবই ভালো উদ্যোগ। তবে আমরা আশা করব, ব্যবসায়ীদের হয়রানি ছাড়াই এসব কাজ হবে।

এর আগে ভ‌্যাট আদায়ে স্বচ্ছতা ও পরিমাণ বৃদ্ধিতে ১৩ ধরণের ব‌্যবসায় ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) বাধ‌্যতামূলক করে এনবিআর। এর ফলে যেসব ব্যবসা কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্টার (ইসিআর) মেশিন রয়েছে তাদের নতুন ইএফডি মেশিন স্থাপন করতে হবে।

** ১৩ ব্যবসায় বাধ্যতামূলক ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস





রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮/এম এ রহমান/এনএ

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC