RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ৫ ১৪২৭ ||  ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বাবার প্রত্যাশা, বেকসুর খালাস পাবেন মিন্নি

বরগুনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৭:৪২, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:০৮, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
বাবার প্রত্যাশা, বেকসুর খালাস পাবেন মিন্নি

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা করা হবে বুধবার। বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করবেন।

সকালে এ রায় ঘোষণা করার কথা রয়েছে।

এ রায়ে নিহত রিফাতের স্ত্রী ও এ মামলার অন্যতম আসামি আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি বেকসুর খালাস পাবেন বলে আশা করছেন তার বাবা মো. মোজাম্মেল হোসেন কিশোর।

মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলামও সেই আশা পোষণ করছেন।

মিন্নির বাবা বলেন, ‘আমরা আসলেই মর্মাহত এবং আমরা হয়রানির শিকার। নিজের জীবন বাজি রেখে যে মিন্নি তার স্বামীকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলো, সেই মিন্নি প্রধান সাক্ষী থেকে আসামির কাঠগড়ায়- এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।’

তিনি বলেন, ‘মিন্নির আইনজীবীরা যে যুক্তিতর্ক আদালতে উপস্থাপন করেছেন, সেই যুক্তি খন্ডন করতে রাষ্ট্রপক্ষ ব্যর্থ হয়েছেন। মিন্নি যে নির্দোষ এটা আদালতকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছেন আমাদের আইনজীবীরা। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে এ কারণেই বলছি- মিন্নি এ মামলা থেকে বেকসুর খালাস পাবে।’

মিন্নির আইনজীবী মো. মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে মিন্নির উপস্থিতিতে কলেজের শহীদ মিনারে হত্যার পরিকল্পনার যে মিটিং এর কথা বলা হয়েছে, সেখানে মিন্নি ছিলো না। আহত রিফাত শরীফকে মিন্নি হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছে। কিন্তু সে বিষয়টি চার্জশিটের কোথাও নেই।’

তিনি বলেন, ‘রিফাত শরীফের রক্তমাখা মিন্নির জামা-কাপড় পুলিশ নিলেও আদালতে সেই জামা-কাপড় উপস্থাপন করা হয়নি। অথচ বলা হয়েছে- নয়ন বন্ডের বাসা থেকে মিন্নির জামা-কাপড় জব্দ করা হয়েছে এবং এই জব্দ তালিকায় সাক্ষ্য করা হয়েছে নয়ন বন্ডের মা সাহিদা খাতুনকে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে উদ্ধার করা জামা-কাপড় যে মিন্নির তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণ করা হয়নি এবং নয়ন বন্ডের মাকে মামলায় সাক্ষীও করা হয়নি।’

আইনজীবী আসলাম আরো বলেন, ‘যদি কেউ কাউকে খুন করার পরিকল্পনা করে, তাহলে সে কখনো বাঁচাতে যায় না। মিন্নি যেভাবে রামদার নিচে গিয়ে তার স্বামীকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছে এবং পরবর্তীতে রিফাত শরীফকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছে- এতেই বোঝা যায় মিন্নি নির্দোষ। মিন্নি কোন ভাবেই হত্যার সাথে জড়িত না। আমরা এই তথ্যউপাত্তগুলোই আদালতে উপস্থাপন করেছি। আমরা মনে করি, আদালতকে আমরা সন্তুষ্ট করতে পেরেছি। তাই আশা করছি মিন্নি বেকসুর খালাস পাবে।’

রুদ্র রুহান/টিপু

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়