ঢাকা     শনিবার   ২৫ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

আত্মরক্ষার কৌশল শিখছেন খুলনার সেই কিশোরী ফুটবলাররা

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:০৩, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৫:০৮, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩
আত্মরক্ষার কৌশল শিখছেন খুলনার সেই কিশোরী ফুটবলাররা

এবার আত্মরক্ষার সাতটি কৌশল শিখছেন ‌‘তেঁতুলতলা সুপার কুইন ফুটবল একাডেমি’র সেই কিশোরীরা। জাতিসংঘ জরুরি শিশু তহবিল-ইউনিসেফ এই উদ্যোগ নিয়েছে। খুলনার বটিয়াঘাটার তেতুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আত্মরক্ষার এ প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে কিশোরীদের। গ্রামের অন্য কিশোরীরাও অংশ নিয়েছে চার দিনব্যাপী এই প্রশিক্ষণে।

আরও পড়ুন: এবার নারী ফুটবলারদের উপর এসিড নিক্ষেপের হুমকি 

গত ২৯ জুলাই হাফপ্যান্ট ও জার্সি পরে ফুটবল খেলার কারণে ‘তেঁতুলতলা সুপার কুইন ফুটবল একাডেমি’র চার কিশোরী ফুটবলারকে মারধর করা হয়। ওই ঘটনার পর দেশব্যাপী আলোচনায় আসে তেতুলতলা গ্রামের কিশোরীরা।

বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে দেখা যায়, ‘তেঁতুলতলা সুপার কুইন ফুটবল একাডেমি’র খেলোয়াড় ছাড়াও গ্রামের শিশু কিশোরীরা মাঠে ভিড় করছেন। তাদের আত্মরক্ষার বিভিন্ন কৌশল শেখাচ্ছেন ব্লাক বেল্ট পাওয়া সানজিদা আকতার মৌমি। কিশোরীরা বেশ আগ্রহ নিয়ে কৌশলগুলো রপ্ত করছেন। প্রশিক্ষণে হামলার শিকার কিশোরী ফুটবলার সাদিয়া নাসরিন, মঙ্গলী বাগচি, হাজেরা খাতুন ও জুঁই মন্ডলসহ ১২০ জন কিশোরী উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: খুলনায় নারী ফুটবলারদের লাঞ্ছিতকারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

‘তেঁতুলতলা সুপার কুইন ফুটবল একাডেমি’র ক্যাপ্টেন রিতু বৈরাগী বলেন, ‘আমাদের ওপর হামলার পর সবাই আত্মরক্ষার কৌশল শেখার অপেক্ষায় ছিলেন। খেলোয়াড় ছাড়াও গ্রামের অন্য কিশোরীরাও বেশ আগ্রহ নিয়ে এই প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। এখন কেউ আমাদের হয়রানি করলে আমরাই প্রতিরোধ করতে পারবো।’

ফুটবল একাডেমির সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ কুমার মণ্ডল জানান, আপাতত চার দিন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলবে। এই চার দিনে কিশোরীদের আত্মরক্ষার সাতটি কৌশল শেখানো হবে। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর যুব ও ক্রীড়া সচিবের গ্রামে আসার কথা রয়েছে। সেখানে প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত হবে।

আরও পড়ুন: নারী ফুটবলারদের হামলা মামলার ৩ আসামি কারাগারে

প্রসঙ্গত, হাফপ্যান্ট ও জার্সি পরে ফুটবল খেলার কারণে ‘তেঁতুলতলা সুপার কুইন ফুটবল একাডেমি’র চার কিশোরী ফুটবলার সাদিয়া নাসরিন, মঙ্গলী বাগচি, হাজেরা খাতুন ও জুঁই মণ্ডলকে গত ২৯ জুলাই মারধর করা হয়। এ ঘটনায় ৩০ জুলাই সাদিয়া নাসরিন বাদী হয়ে চারজনকে আসামি করে বটিয়াঘাটা থানায় মামলা করেন। মামলা তুলে না নিলে তিন আসামি মেয়েদের মুখে এসিড মারার হুমকি দেন। এরপর ৩১ জুলাই সাদিয়া বটিয়াঘাটা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এই মামলার আসামিরা কারাগারে রয়েছেন। মূলত কিশোরীদের উপর হামলা-মামলা এবং হুমকির ঘটনায় গণমাধ্যমে শিরোনাম হয় তেঁতুলতলা গ্রাম।

নূরুজ্জামান/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়