ঢাকা     বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১১ ১৪৩১

বগুড়া-৪ 

স্বতন্ত্র প্রার্থীর প‌ক্ষে কাজ করা‌য় আ.লী‌গের ৩ নেতা‌কে মারধর

বগুড়া প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৫৮, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ২১:১০, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩
স্বতন্ত্র প্রার্থীর প‌ক্ষে কাজ করা‌য় আ.লী‌গের ৩ নেতা‌কে মারধর

বগুড়ার নন্দীগ্রামে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অভিযোগ তুলে আওয়ামী লীগের তিন নেতাকর্মীকে মারধর করা হয়েছে। জাসদ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। 

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুরে নন্দীগ্রাম উপজেলার শিমলা বাজারে ঘটনাটি ঘটে। আহতরা হলেন- নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি রুবেল হোসেন, সহ-সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন ও যুগ্ম সম্পাদক রুহুল আমিন। তারা নন্দীগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মহাজোটের হয়ে ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন জেলা জাসদের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য একেএম রেজাউল করিম তানসেন। একই আসনে সাবেক বিএনপি নেতা জিয়াউল হক মোল্লা ‘ঈগল’ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের ওই তিন নেতা এবার জিয়াউল হক মোল্লার পক্ষে ভোটের প্রচারণায় নেমেছেন। দুপুরে তারা জিয়াউল হক মোল্লার নির্বাচনি প্রচারণা শেষে শিমলা বাজারে রুহুল আমিনের দোকানে বসে গল্প করছিলেন। এসময় নৌকার প্রার্থী তানসেনের ভাগ্নে মিলন রহমানের নেতৃত্বে ১০ থেকে ১২ জন এসে আওয়ামী লীগের ওই তিন নেতার ওপর হামলা চালান। তারা তিন নেতাকে মারধরের পাশাপাশি দোকানটির মালামাল তছনছ করেন।

৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রুবেল হোসেন বলেন, তানসেন নৌকা মার্কা নিয়ে দুইবার এমপি হয়ে আওয়ামী লীগের লোকজনদেরই বিপদে ফেলেছেন। এজন্য তাকে আমরা বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দলের প্রার্থী না থাকায় মোল্লার পক্ষে স্থানীয়ভাবে কাজ করছি। 

তিনি আরও বলেন, সোমবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে শিমলা বাজারে ডা. জিয়াউল হক মোল্লা গণসংযোগ করে চলে যান। আমরা রুহুল আমিনের দোকানে বসে নির্বাচনি আলোচনা করছিলাম। এসময় জাসদ মনোনীত সংসদ সদস্য রেজাউল করিম তানসেনের ভাগ্নে মিলন ও চাচাতো ভাই বাবুর নেতৃত্বে ১০-১২ জন যুবক এসে আমাদের মারধর করেন এবং এলাকা ছাড়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এছাড়া রুহুল আমিনের দোকানের মালামাল তছনছ করে ফেলে দেয়।

মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা জাসদের সভাপতি ও নৌকার প্রার্থী একেএম রেজাউল করিম তানসেন বলেন, আওয়ামী লীগের তিন নেতা দলের বিরুদ্ধে গিয়ে বিএনপি নেতার পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছে। এই নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডতা হয়েছে। মারপিটের অভিযোগ সত্য নয়। 

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজমগীর হোসাইন বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এনাম/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়