ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২০ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৬ ১৪৩১

ছেলের চুরির অপবাদে নির্যাতিত মা’র রহস্যজনক মৃত্যু

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:১৩, ২২ মে ২০২৪  
ছেলের চুরির অপবাদে নির্যাতিত মা’র রহস্যজনক মৃত্যু

বিচারের দাবিতে থানার সামনে আদিবাসীদের অবস্থান

ঠাকুরগাঁওয়ে ছেলের চুরির অপবাদে মাকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় দায়ন ঋষি (৩৭) নামে মশর আদিবাসী গোষ্ঠীর এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২২ মে) সকালে সদর উপজেলার পৌর শহরের ৯ নম্বর ওয়ার্ড পরিষদ পাড়া এলাকায় এক লিচু বাগান থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। দায়ন ঋষি পরিষদ পাড়ার বিষু ঋষির স্ত্রী। বিচারের দাবিতে এলাকার কয়েকশ’ আদিবাসী ঠাকুরগাঁও সদর থানায় অবস্থান নেয়। তার এমন মৃত্যু রহস্যজনক বলছেন প্রতিবেশী ও পরিবারের লোকজন।

দুপুরে সদর থানায় অবস্থান করার সময় মৃত ওই নারীর প্রতিবেশী ও স্বজনরা বলেন, দায়ন ঋষির ছেলে শিশু রাজেন ও প্রতিবেশী সঞ্জিত মিলে নাকি একই এলাকার আমজাদ নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে থেকে ৩ লাখ টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করেছে। এমন অভিযোগে মঙ্গলবার সকালে চুরি করার সন্দেহে রাজেনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় আমজাদসহ তার সহযোগীরা। অতঃপর তাদের নির্যাতন করে। পরে রাতে তার মাকেও তুলে নিয়ে যায় আমজাদের লোকজন। এরপর বুধবার সকালে বাড়ির পাশে একটি লিচু গাছে দায়ন ঋষিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ঝুলন্ত অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে।

তারা অভিযোগ করে বলেন, যারা তাদের তুলে নিয়ে গিয়েছিল তারাই ওই গৃহবধূকে হত্যা করার পর হয়তো গলায় ফাঁস দিয়ে গাছে ঝুলিয়ে দিয়েছে। তাই আমরা হত্যাকারীদের কঠোর বিচারের দাবিতে থানায় এসেছি। যারা এই কাণ্ড ঘটিয়েছে আমরা তাদের ফাঁসি চাই।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর দোলন কুমার মজুমদার বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে আমজাদসহ ৪-৫ জন ব্যক্তি আমার কাছে আসেন। বিষুর ছেলে নাকি আমজাদের বাড়িতে ঢুকে টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করেছে; এমন সন্দেহে তাকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল। পরে খবর নিয়ে জানতে পারি, তাদের মা দায়ন ঋষিকেও তুলে নিয়ে তারা মারপিট করেছে। যারা তুলে নিয়ে গেছে আমি তাদের সাথে কথা বলেছি। মারপিট না করে থানায় দিতে বলি। কিন্তু তারা সেটা না করে আরও মারপিট করে। ছেলেটির বাবা সেখানে গেলে তাকেও মারেন তারা। পরে সন্ধ্যায় টাকা উদ্ধার করার জন্য স্থানীয় ছেলেদের হাতে তুলে দেন তাদের। এরপর আর ওই মহিলাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে আজকে সকালে জানতে পারি তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহতের ছেলে রাজেন বলেন, রাত দেড়টার দিকে আমাকে ছেড়ে দিলেও এলাকার যুবলীগ নেতা রঞ্জিত ও তার লোকজন মাকে ডেকে নিয়ে যায়। আমি বাড়ি চলে আসি। দীর্ঘক্ষণ পরেও মা বাড়িতে না আসলে আমরা মাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাইনি। পরে সকালে বাড়ির পাশে গাছ থেকে মা’র ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের স্বামী বিষু ঋষি অভিযোগ করে বলেন, যারা আমার ছেলে ও স্ত্রীকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল তারাই তাকে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমি তাদের বিচার চাই।

এবিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিথুন সরকার বলেন, এ বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে ও ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে জানা যাবে মৃত্যুর কারণ এবং নিহতের পরিবার অভিযোগ দিলে অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হিমেল/ফয়সাল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ