ঢাকা     সোমবার   ০৪ মার্চ ২০২৪ ||  ফাল্গুন ২০ ১৪৩০

অনলাইন ক্লাসে আপত্তি জাবি শিক্ষার্থীদের

জাবি সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩২, ১০ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৯:৩৪, ১০ ডিসেম্বর ২০২৩
অনলাইন ক্লাসে আপত্তি জাবি শিক্ষার্থীদের

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) নতুন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসের পরিবর্তে সশরীরে ক্লাস শুরু করতে চান। ভর্তি পরীক্ষার পাঁচ মাস পরেও তারা এখনও ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারেনি। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সিট সংকটের কারণ দেখিয়ে অনলাইনে ক্লাস শুরু করেছে।

জাবির নতুন ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষার পাঁচ মাস পরেও শ্রেণি কার্যক্রম সশরীরে শুরু করতে না পারায় ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়ে রোববার (১০ ডিসেম্বর) দুপুর দেড়টায় মানববন্ধন করেছে প্রগতিশীল শিক্ষার্থীরা।

ভর্তি কার্যক্রমে পিছিয়ে পড়া ও প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস শুরু করতে না পারার কর্তৃপক্ষের সমালোচনা করেন বক্তারা। শিক্ষার্থীদের এসময় ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কার কর, নতুন হল চালু কর, ৫২ ব্যাচকে ক্লাসে আনো, ভর্তি এগিয়ে আনো প্রভৃতি প্ল্যাকার্ড বহন করতে দেখা যায়।

এসময় ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের যুগ্ম আহ্বায়ক হাসিব জামানের সঞ্চালনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহিত্য সংগঠন চিরকুটের দপ্তর সম্পাদক আহসান লাবীব বলেন, যেখানে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রথম বর্ষের শ্রেণিকক্ষ পাঠদান চার থেকে ছয় মাস শেষ, সেখানে জাহাঙ্গীরগনর বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা এখনও প্রবেশই করতে পারেনি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সিট সংকটের কারণ দেখিয়ে অনলাইনে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করেছে। অথচ করোনাকালীন অনলাইন ক্লাসের কারণে শিক্ষার্থীদের মনে বিরূপ প্রভাব পড়েছে।

তিনি বলেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত সব বিষয়ে সমন্বয় করে যথাসময়ে পাঠদান নিশ্চিত করা। কিন্তু জাবি প্রশাসন পাঠদান ব্যতীত সবকিছু করতে আগ্রহী। তারা হল থেকে অছাত্রদের বের করতে পারেনা। একটি বা দুটি বিজ্ঞপ্তি দেয়ালে টাঙিয়ে দিয়ে তারা তাদের দায়িত্ব সমাপ্ত করে।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সংগঠক সোহাগি সামিয়া বলেন, অনলাইনে পাঠদানের কারণে শিক্ষার গুণগতমান নিছে নেমে গেছে। নেটওয়ার্কের দুর্ভোগ, ইন্টারনেট খরচ বহন করার সামর্থ্য দেশের সব শিক্ষার্থীর নেই। জাবির নবীনতম শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাস তাদের পড়াশোনার গুণগত মান হারাবে।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আগে থেকেই বলেছে নতুন ছয়টি হল তৈরি হয়ে গেলে আর গণরুম থাকবে না। দুর্ভাগ্যবশত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ সেশনের শিক্ষার্থীদেরকে এখনও গণরুমে থাকতে হচ্ছে। ২০২১-২২ সেশনের শিক্ষার্থীদের গণরুমের মাধ্যমেই সশরীরে ক্লাস শুরু করতে হয়েছে। আর এখন ২০২২-২৩ সেশনের শিক্ষার্থীদের ছয় মাস ঘরে বসিয়ে রেখে অনলাইনে ক্লাস শুরু করেছে।

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের আহ্বায়ক আলিফ মাহমুদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাজ ভালো গবেষক তৈরি করা, শিক্ষার মান উন্নয়ন করা। কিন্তু জাবি প্রশাসন যেসব উপায়ে অর্থ উপার্জন করা যায়, সেগুলো নিয়েই ব্যস্ত। তারা কীভাবে টাকা মেরে খেতে হবে, কীভাবে বিভিন্ন উন্নয়নের নাম করে পকেট ভরা যাবে- এটি ভালো করেই জানে। এই অথর্ব প্রশাসন বাৎসরিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য তোড়জোড় করে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাস শুরু করেছে। অথচ তারা ভর্তি পরীক্ষার পরে ছয় মাস প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের ঘরে বসিয়ে রেখেছে।

সমাপনী বক্তব্যে ছাত্র ফ্রন্ট জাবি শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক কনোজ কান্তি রায় বলেন, প্রধানমন্ত্রী অনেক আনন্দ নিয়েই নতুন হলগুলো উদ্বোধন করলেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হলগুলো এখনও চালু করতে পারেনি। প্রশাসন তার নিজের স্বার্থের জন্য যেকোনো কাজে যুক্ত হতে পারে। এই প্রশাসনের মাথায় তড়িঘড়ি করে রাতের আধারে গাছ কেটে নতুন ভবন নির্মাণ করা যায় ও অর্থ লুটপাট করা যায়- সে বুদ্ধি আসে। কিন্তু এটা আসে না, কীভাবে দ্রুততম সময়ে ক্লাস শুরু করা যায়।

/আহসান/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়