ঢাকা     বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ২ ১৪২৯ ||  ১৮ মহরম ১৪৪৪

বিমা খাতে আস্থা ফেরাতে কাজ করবো: আইডিআরএ চেয়ারম্যান

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০০:০৫, ১ জুলাই ২০২২  
বিমা খাতে আস্থা ফেরাতে কাজ করবো: আইডিআরএ চেয়ারম্যান

বিমা খাত ইমেজ সংকটে আছে। বিমার প্রতি জনগণের আস্থার অভাব আছে। বিমা খাতে মানুষের আস্থা ফেরানোর লক্ষ্যেই কাজ করবো। বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) নতুন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারী এসব কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) মতিঝিল আইডিআরএ কার্যালয়ে বিমা খাতের সাংবাদিকদের সংগঠন ইন্স্যুরেন্স রিপোর্টার্স ফোরাম (আইআরএফ)-এর সদস্যদের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, বিমা খাতে ইমেজ সংকট আছে। পলিসি হোল্ডারদের (গ্রাহক) স্বার্থ দেখা আমার প্রথম কাজ। এর মাধ্যমে বিমা খাতে মানুষের আস্থা ফিরে আসবে। মানুষ যদি বিমা করে তার সুফলটা পায়, তাহলে একজনের দেখা দেখি আরও দশ জন আসবে। আর একজন যদি প্রতারিত হয় বা বঞ্চিত হয়, তাহলে ওইটা আরও দশ জনকে নিরুৎসাহিত করবে। সে কারণে তাদের (গ্রাহক) স্বার্থ আমাদের দেখতে হবে এবং তাদের বোঝাতে হবে আমরা তাদের স্বার্থ দেখছি। সে জন্য আমরা দৃশ্যমান কিছু ব্যবস্থা নেব।

তিনি আরও বলেন, আমরা আস্থা ফেরাতে যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করবো এরমধ্যে একটি হবে ডিজিটালাইজেশন। ব্যাংকে আপনি আজকে টাকা জমা দিলে, আপনি বুঝেন আপনার টাকা জমা হয়েছে। আপনি এসএমএস পান, ব্যাংক স্টেটমেন্ট নিয়ে দেখতে পারেন। অনলাইনে আপনি দেখতে পারেন আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের কী অবস্থা। এ রকম বিমা খাতেও আমরা ডিজিটালাইজেশন করতে চাই। এ কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। শুরুতে এটা সীমিত আছে। আমরা চাইবো ব্যাংকিং সিস্টেমের মতো একটা অনলাইন সিস্টেমের দিকে যেতে।

জয়নুল বারী বলেন, আমি ৩ বছরের জন্য নিয়োগ পেয়েছি। যোগদান করার পর কী কী উন্নয়ন হয়েছে, কী কী করার দরকার তার একটি তালিকা করেছি। আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যে তিন বছর মেয়াদি একটি পরিকল্পনা করবো। এর মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদের কাজ থাকবে। কোনটা করতে এক মাস, কোনটা করতে ছয় মাস, আবার কোনটা করতে এক বছর সময় লাগবে। এ রকম একটা পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে কাজ করে যাবো।

তিনি বলেন, গভর্নেন্স ও কমপ্লায়েন্স’র কিছু বিষয় আছে। অনেক কিছু আমরা করেছি। আমরা পর্যায়ক্রমে গভর্নেন্স ও কমপ্লায়েন্স নিশ্চিতে কাজ করবো। সেগুলো আমাদের স্টেকহোল্ডার নিয়েই করবো। তবে আমাদের অগ্রাধিকার থাকবে মানুষের স্বার্থ এবং এই সেক্টরকে উন্নয়ন করতে হবে।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে যাতে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত না হয়, সেটা আমাদের দেখতে হবে। একটা প্রাইভেট সেক্টর তো প্রফিটের জন্য কাজ করে। প্রাইভেট সেক্টর এবং গভর্নমেন্ট সেক্টরের উদ্দেশ্য এক থাকে না। সুতরাং প্রাইভেট সেক্টরের বিষয়টিও আমাদের দেখতে হবে। সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে, সবার মতামত নিয়েই আমরা কাজ করবো।

সৌজন্য সাক্ষাতে আইডিআরএ’র সদস্য মো. দলিল উদ্দিন, নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র এস এম শাকিল আখতার, আইআরএফ সভাপতি গোলাম মওলা, সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত ) মাসুদ মিয়া উপস্থিত ছিলেন।  

ঢাকা/এনএফ/এনএইচ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়