ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৪ ১৪২৭ ||  ১১ সফর ১৪৪২

‘আমরা বরিশালের পোলা পঁচাশি টাকা তোলা’

রাহাত সাইফুল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৪০, ৪ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
‘আমরা বরিশালের পোলা পঁচাশি টাকা তোলা’

‘দোলা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে গিয়ে পরিচয় ওমর সানি-মৌসুমীর। শুটিং সেটেই পরস্পরের প্রতি ভালোলাগা তৈরি হয়। এরপর ভালোবাসা, অতঃপর বিয়ে। দাম্পত্য জীবনের দেড় যুগ পূর্ণ করেছেন চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় এই তারকা দম্পতি। সম্প্রতি রাইজিংবিডির বিনোদন বিভাগের সঙ্গে এই জুটির ঈদের স্মৃতি নিয়ে কথা হয়।

ওমর সানি ক্যারিয়ারের সোনালি সময়ের ঈদের কথা স্মরণ করে বলেন, ‘এমনও হয়েছে চাঁদ রাত পর্যন্ত আমরা শুটিং করেছি। ‘বাংলার বধূ’ সিনেমায় একটানা ১২ দিন শুটিং করেছিলাম। এ জে মিন্টু পরিচালিত সিনেমা। তার নামেই সিনেমা চলতো। তার ওপর এই সিনেমায় শাবানা আপা, আলমগীর সাহেব ছিলেন। বিগ বাজেট, বিগ কাস্টিং! একদিকে শুটিং হতো, অন্যদিকে এডিটিং। একসঙ্গে কয়েকটা ফ্লোরে শুটিং হতো। তখন সপ্তাহে দু’বার হয়তো গোসলের সুযোগ পেতাম। একদিন মা কেঁদে বলেই ফেলল- বাবা তুই কোন লাইনে গেলি? ঠিকমতো ঘুম নেই, গোসল নেই। আমার এতো টাকা-পয়সা লাগবে না। তুই আমার কাছে থাক।’

মৌসুমী স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘তখন আমাদের আড্ডাবাজি হতো এফডিসিকেন্দ্রীক। গুলশানে উইংপি ছিল। ওখানে আড্ডা দিতাম। আমার বাচ্চা, মান্না ভাইয়ের, অমিত ভাইয়ের বাচ্চাদের নিয়ে চলতো পারিবারিক আড্ডা। নায়ক রাজ্জাক সাহেব, আলমগীর সাহেব সবসময় এটা করতেন।’

ওমর সানি কথার রেশ ধরে বলেন, ‘শাবানা আপার মতো একজন দেশসেরা সিনিয়র নায়িকা বড়  টিফিন বক্স ভর্তি করে খাবার নিয়ে আসতেন। আমাদের ডেকে খাওয়াতেন। তখন প্রডাকশন বয়কে দেখেছি টাই পরা। মনে পড়ছে, প্রডাকশন বয় দিলু ভাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করেছিলেন। আমি কষ্ট পেতাম এই ভেবে যে, আমি তো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করিনি। অথচ তিনি আমাকে ‘সনি সাহেব’ বলে ডাকছেন। শাবানা আপা  আমাদের বসিয়ে খাওয়াতেন। আলমগীর ভাইয়ের জন্য গরুর মাংস ভুনা করে নিয়ে আসতেন। আমাদের মধ্যে একটা বন্ডিং ছিল।’

মৌসুমীর কাছে জানতে চাই বিয়ের পর প্রথম কোরবানি ঈদের কথা। তিনি বলেন, ‘বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে প্রথম কোরবানি ঈদের কথা মনে পড়লে এখনো হাসি পায়। ঈদের দিন সকালে গরু জবাই করার পর সানি  মাংস কাটতে বসেছিল। দেখে যতটা না অবাক হয়েছিলাম, তার চেয়ে বেশি হাসি পাচ্ছিল।’

ওমর সানি মৌসুমীর কথা শুনে হেসে ওঠেন। বলেন, ‘কোরবানি নিয়ে আমাদের অনেক মজার ঘটনা আছে। আগে আমি আর মৌসুমী মালা কিনতাম। মাজার থেকে মালা কিনে গরুর গলায় পরিয়ে দিতাম।’

মৌসুমীর হাতের কোন রান্না ওমর সানির পছন্দ? জানতে চাইতেই ওমর সানির ঝটপট উত্তর, ‘ভুনা খিচুরি’। কথায় কথায় জানা গেল, মৌসুমী খুব ভালো রাঁধুনী। রান্নায় চাইনিজ প্যাটার্ন বেশি পছন্দ। তবে ওমর সানির পছন্দ গরুর মগজ দিয়ে তৈরি একটি রেসিপি। গরুর বটও তার ফেবারিট- জানা গেল সে কথাও।

এদিকে মৌসুমী জানালেন, সানির হাতের সবজি খিচুরি তার পছন্দ। আড্ডার এ পর্যায়ে ওমর সানি নিজেই বললেন, ‘আমি অনেক রান্না করতে পারি। আমরা বরিশালের পোলা পঁচাশি টাকা তোলা! কাচ্চি ছাড়া বাঙালি সব খাবার রান্না করতে পারি।’

ঢাকা/তারা

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়