ঢাকা     সোমবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৩ ১৪২৭ ||  ১০ সফর ১৪৪২

আমার পক্ষে কিছু গোপন করা সম্ভব নয়: ইলিয়াস কোবরা

রাহাত সাইফুল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৪৮, ১৪ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
আমার পক্ষে কিছু গোপন করা সম্ভব নয়: ইলিয়াস কোবরা

ঢাকাই চলচ্চিত্রের এক সময়ের পরিচিত মুখ ইলিয়াস কোবরা। মার্শাল আর্ট-নির্ভর সিনেমায় খল চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তাও পেয়েছিলেন। ১৯৮৭ সালে সোহেল রানা পরিচালিত ‘মারকশাহ’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তার আত্মপ্রকাশ। এরপর প্রায় সাড়ে পাঁচশ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। যদিও দীর্ঘদিন চলচ্চিত্রের পর্দায় দেখা যায়নি তাকে। তবে হঠাৎ করেই ভিন্ন এক কারণে আলোচিত ইলিয়াস কোবরা। আলোচনার সত্য-মিথ্যা, ভক্তের কৌতূহল ইত্যাদি বিবেচনায় রাইজিংবিডির জ্যেষ্ঠ বিনোদন প্রতিবেদক রাহাত সাইফুল টেলিফোনে কথা বলেছেন ইলিয়াস কোবরার সঙ্গে।

রাইজিংবিডি: অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা নিহত হওয়ার পর এই ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপনাকে নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। এর কারণ কী বলে মনে করেন?

ইলিয়াস কোবরা: কারণ আমি নিজেও জানি না। বলা হচ্ছে, আমার বাগানবাড়ির কথা। কিন্তু আমার কোনো বাগানবাড়ি নেই। কথাটা আমি সংবাদ সম্মেলন করেও জানিয়েছি। বাগানবাড়ি থাকলে আমার আশপাশের লোকজন অবশ্যই জানতো। আমি পরিচিত মুখ, যে কারণে আমার পক্ষে কোনো কিছু গোপন করা সম্ভব নয়। তাছাড়া যেখানে এই ঘটনা ঘটেছে, সেটা আমার বাড়ি থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে। ঢাকা থেকে বাড়ি আসার পরে আমি কয়েকটি অনলাইনের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারি। আমি শতভাগ নিজ দায়িত্বে বলছি- এসব বানোয়াট তথ্য। সিনহার সঙ্গে আমার কোনো সর্ম্পক ছিল না। এমনকি আমি তাকে কোনোদিন দেখিনি। 

রাইজিংবিডি: তাহলে আপনাকে কেন জড়ানো হচ্ছে বা আপনার নাম আলোচিত হচ্ছে?

ইলিয়াস কোবরা: এটা আমারও প্রশ্ন। আমি চলচ্চিত্রে অভিনয় করি। এমন একটি সেনসেটিভ বিষয় টেনে আমার সন্মান নষ্ট করা হচ্ছে। আমি আমার গ্রামে মসজিদ কমিটির সভাপতি। বিভিন্ন সেবামূলক কাজ করি। এতে অনেকেই মনে করছেন আমি নির্বাচন বা রাজনীতি করবো। এজন্য হয়তো আমার পেছনে কেউ লেগেছে। এছাড়া গত দুই-তিনমাস আগে মসজিদের একটি জায়গা একজন দখলে নিয়েছিল। আমি মামলা করেছি এবং জমি উদ্ধার করেছি। মামলায় তার সাজাও হয়েছে। এ নিয়েও শত্রুতা থাকতে পারে।

রাইজিংবিডি: ওসি প্রদীপের সঙ্গ আপনার পরিচয় কীভাবে হলো?

ইলিয়াস কোবরা: দু’টি অনুষ্ঠানে ওসি প্রদীপ ছিলেন, আমিও ছিলাম। সেখান থেকেই পরিচয়। এছাড়া নোয়াখালীপাড়া মাদকবিরোধী কমিটির আমি সভাপতি। করোনার কারণে ইয়াবা সেবন বেড়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করতে অনুরোধ করে থানায় দরখাস্ত দিয়েছিলাম।

রাইজিংবিডি: অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যার বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখছেন?

ইলিয়াস কোবরা: এটি মর্মান্তিক একটি ঘটনা; অত্যন্ত দুঃখজনক। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত।

রাইজিংবিডি: শিল্পী সমিতির নির্বাচনে আপনি সাধারণ সম্পাদক পদে কয়েকবার নির্বাচন করে হেরেছেন।

ইলিয়াস কোবরা: চলচ্চিত্রে আমি প্রায় ৩০ বছর। বর্তমানে সিনেমার অবস্থা ভালো না। সিনেমার উন্নয়নে কাজ করার জন্যই আমি নির্বাচন করেছি।

সাক্ষাৎকারের এই পর্যায়ে ইলিয়াস কোবরা ব্যস্ততার কথা জানিয়ে বলেন, ‘সন্ধ্যার পর ফোন দেবেন। তখন কথা বলবো।’ কিন্তু পরে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

ঢাকা/তারা

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়