RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১২ ১৪২৭ ||  ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কান্নায় ভেঙে পড়লেন আবুল হায়াত

আমিনুল ইসলাম শান্ত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:০১, ২৭ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:২৫, ২৭ নভেম্বর ২০২০
কান্নায় ভেঙে পড়লেন আবুল হায়াত

‘আলী যাকের শুধু একজন অভিনেতা নন, তিনি সামাজিক মানুষ ছিলেন। মানুষের মধ্যে ভালোবাসা বিলিয়েছেন। আমরা সবাই তাকে ভালোবাসি। পারিবারিকভাবে, দলগতভাবে সবাই তাকে ভালোবাসি। প্রতিটি ক্ষেত্রে তিনি সার্থক।’ কথার রেশ না ফুরোতেই কান্নায় ভেঙে পড়লেন বরেণ্য অভিনেতা আবুল হায়াত।

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, অতুল অভিনয়শিল্পী, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দ সৈনিক, নাট্যজন আলী যাকেরের প্রয়াণে বেদনাবিধুর দেশের শিল্পীসমাজ, নাট্যাঙ্গন। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে না ফেরার দেশে চলে গেছেন তিনি। তাঁর সঙ্গে আবুল হায়াতের দীর্ঘ দিনের গভীর বন্ধন ছিল। অনেক মঞ্চ এবং টেলিভিশন-সফল নাটকে দু’জনকে একসঙ্গে দেখা গেছে। যেগুলো তুমুল আলোচিত এবং প্রশংসিত। অভিনয় ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই আলী যাকেরের সঙ্গে বন্ধুত্বের সূচনা। প্রিয় বন্ধু ও সহকর্মীকে হারিয়ে শোকে কাতর আবুল হায়াত। বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘সকাল থেকে খুব কষ্ট হচ্ছে! আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করুক।’

আলী যাকেরের সঙ্গে সম্পর্কের সূচনার কথা উল্লেখ করে আবুল হায়াত বলেন, ‘আমাদের সম্পর্কটা ৫০ বছরের। ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ’ নাটক করতে যখন আলী যাকের নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়ে আসেন তারও আগে থেকে আমার স্ত্রীর তিনি পূর্ব পরিচিত। অর্থাৎ আমার স্ত্রী যখন খুলনায় ছিল তখন থেকে আলী যাকেরের সঙ্গে পরিচয়। সম্পর্কে আলী যাকের আমার স্ত্রীর বড় ভাই হয়।’

আলী যাকেরের নাটক দেখে অভিনয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠেন আবুল হায়াত। বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘তাঁর নাটক দেখে আমার নাটকের প্রতি আগ্রহ জন্মায়। আলী যাকের আগে থেকেই নাটক-পাগল মানুষ ছিলেন। আমাদের নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়ের শেষ পর্যন্ত কর্ণধার ছিলেন। তার নির্দেশনায় আমি অনেক নাটকে অভিনয় করেছি। আমার পরিচালনায় অনেক টেলিভিশন নাটকে তিনিও অভিনয় করেছেন। আমরা পরস্পরের প্রতি আস্থাশীল ছিলাম। তার মতো সহশিল্পী খুব কম আছে।’

৭৬ বছর বয়সে আবুল হায়াত এখনো দাপটের সঙ্গে অভিনয় করছেন। তবে মৃত্যু ভাবনা তাকেও ভাবিয়ে তুলেছে। প্রিয় বন্ধুকে হারিয়ে বিষয়টি আরো প্রকট হয়েছে। ‘আমারও সময় চলে এসেছে, আর সময় নেই!’- মুঠোফোনের ওপাশ থেকে ভেসে এলো সজন হারানোর বেদনায় কাতর আবুল হায়াতের কান্নাভেজা কণ্ঠ।

ঢাকা/শান্ত/তারা

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়