ঢাকা     বুধবার   ০৬ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২২ ১৪২৯ ||  ০৬ জিলহজ ১৪৪৩

পরিবারসহ প্রাণে বাঁচলেন সংগীতশিল্পী রূপঙ্কর

বিনোদন ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:২৯, ২৩ মে ২০২২   আপডেট: ১৭:৪৫, ২৩ মে ২০২২
পরিবারসহ প্রাণে বাঁচলেন সংগীতশিল্পী রূপঙ্কর

অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন কলকাতার সংগীতশিল্পী রূপঙ্কর বাগচী ও তার পরিবার। শনিবার (২১ মে) রাত ৮টার দিকে তার বাড়ির রান্না ঘরে আগুন লেগে যায়। পরে নিরাপত্তা রক্ষীদের সহায়তায় অনেক কষ্টে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। রান্না ঘরের ক্ষয়ক্ষতি হলেও বাগচী পরিবার নিরাপদে রয়েছেন।

রূপঙ্কের বাসায় দুটো রান্না ঘর, দুটো চিমনি। একটি রান্না ঘর আধুনিকভাবে খোলা জায়গায় সাজানো। অন্যটি একটু পুরোনো ধাঁচের। তবে দুটোই একটি ঘরের মধ্যে তৈরি। সেখানেই নিয়মিত রান্নার কাজ করেন তাদের গৃহপরিচারিকা।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে রূপঙ্কের স্ত্রী চৈতালি ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে জানান, গৃহপরিচারিকা বাসায় না থাকায় শনিবার (২১ মে) রাতে রান্না করতে যান রূপঙ্করের কন্যা মহুল। আধুনিক রান্না ঘরের চিমনি জ্বেলে রান্নার তোড়জোড় করতে থাকেন। এ দিকে দীর্ঘদিন ব্যবহার না করায় চিমনিতে পাখি বাসা বেঁধেছে, তা জানতেন না বাগচী দম্পতি, মহুলও সে কথা জানতেন না। চিমনি যে জ্বলছে না, তাও বুঝতে পারেনি; বিশেষ পদের উপকরণ জোগাড়ে ব্যস্ত ছিল মহুল।

বেশ কিছুক্ষণ পর চিমনির মোটর চালু হয়। তার অল্প সময় পরই বিস্ফোরণ ঘটে। আগুন ধরে যায় চিমনিতে। চিমনির মধ্যে থাকা পাখির বাসাতেও আগুন ছড়িয়ে পড়ে। শুকনো খড়, কাঠিতে ঘর ভর্তি। আগুন ততক্ষণে ছড়িয়ে পড়ে চারপাশের ল্যামিনেট করা কাঠের ক্যাবিনেটেও। আচমকা এমন অঘটনে সবাই কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন বলেও জানান চৈতালি।

কন্যা মহুলকে সরিয়ে এনে আগুন নেভানোর জন্য পানি ঢালতে থাকেন রূপঙ্কর। অন্যদিকে তার স্ত্রী সমস্ত বৈদ্যুতিক আলো নিভিয়ে দেন। অন্ধকার ঘরে তখন শুধুই আগুনের শিখা। বাকি বাসিন্দাদেরও সজাগ করে দেন। ফোনে বাড়ির নিরাপত্তা রক্ষীদের ডাকেন। পরে অগ্নি নির্বাপক দিয়ে সবার চেষ্টায় আগুন নেভানো সম্ভব হয়।

ঢাকা/শান্ত

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়