ঢাকা     বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৯ ||  ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

চট্টগ্রাম বন্দরে অস্ত্রের বিশাল চালান নিয়ে এলো সোয়াত জাহাজ 

শাহ মতিন টিপু || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:২৪, ২৪ মার্চ ২০২২   আপডেট: ১৪:১২, ২৪ মার্চ ২০২২
চট্টগ্রাম বন্দরে অস্ত্রের বিশাল চালান নিয়ে এলো সোয়াত জাহাজ 

জাহাজ সোয়াত বোঝাই করে আনা বিপুল অস্ত্রশস্ত্র

একাত্তরের ২৪ মার্চ ছিল লাগাতার চলা অসহযোগ আন্দোলনের ২৩তম দিন। 

আজ সেনাবাহিনী রংপুর, সৈয়দপুর, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষুব্ধ জনতার মিছিলের ওপর গুলি চালায়। সৈয়দপুরে সেনাবাহিনী গুলি চালিয়ে ১৫ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। সৈয়দপুরের ঘটনার পর পরই ঢাকার মিরপুরেও অবাঙালীরা বাঙালীদের ওপর হামলা চালায়। 

এর প্রতিবাদে ধানমন্ডির ৩২নং বাসভবনে সমবেত বিক্ষুব্ধ জনতার উদ্দেশে বঙ্গবন্ধু বলেন, সৈয়দপুর, রংপুর, চট্টগ্রাম ও জয়দেবপুরে সেনাবাহিনীর কার্যকলাপে আমি শোকাহত। 

বঙ্গবন্ধু হুঙ্কার ছেড়ে বলেন, জোর করে কোন সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হলে তার ফল ভাল হবে না। 

এদিন বঙ্গবন্ধু ও ইয়াহিয়ার মধ্যে কোন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে প্রেসিডেন্ট ভবনে বঙ্গবন্ধু ও ইয়াহিয়ার উপদেষ্টামন্ডলীর মধ্যে প্রায় দু’ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা হয়েছে। বৈঠকের পর তাজউদ্দীন আহমেদ অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের বলেন, আওয়ামী লীগ আলোচনা আর দীর্ঘায়িত করতে ইচ্ছুক নয়।

আলোচনার নামে কালক্ষেপণ করে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে বিমান বোঝাই করে বিপুল পরিমাণে সৈন্য আর অস্ত্র আনা হয়। এরই অংশ হিসেবে অস্ত্রের সবচেয়ে বড় চালানটি আসে এমভি সোয়াত নামক জাহাজে। চট্টগ্রাম বন্দরের ১৭ নং জেটিতে নোঙর করা হয়।

অস্ত্র বোঝাই জাহাজ সোয়াত থেকে পাকসেনারা অস্ত্র খালাস করতে গেলে প্রথমে শ্রমিকরা অস্ত্র খালাসে অস্বীকার করে ও বাধা দেয়। এতে সেনাবাহিনী গুলি চালায়। ফলে ঘটনাস্থলেই ১৪ জন শ্রমিক প্রাণ হারায়।

এরপর সেনা সদস্যরা কিছু অস্ত্র খালাস করে ১২টি ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়ার সময় প্রায় ৬০ হাজার শ্রমিক রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে তাদের পথরোধ করে। এ সময় সেনাবাহিনীর নির্বিচার গুলিবর্ষণে কমপক্ষে ২৫০ শ্রমিক নিহত হয়। 

চট্টগ্রাম জেটির ভয়াবহ সেই গণহত্যা সম্পর্কে মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া লেখেন, ২৪ মার্চ, ১৯৭১; বেলা দেড়টায় কর্নেল সিগরীর হুকুমে ইবিআরসি থেকে ৬০ জন বাঙালি সৈন্যকে ২০ নম্বর বেলুচ রেজিমেন্টের একটা কোম্পানির সঙ্গে চট্টগ্রাম পোর্টে পাঠানো হয়। 

একটা বদমতলবে বাঙালি সৈন্যদের বিনা অস্ত্রে পোর্টে পাঠানো হয়েছিল, এতে কোনো সন্দেহ নেই। অন্যদিকে বেলুচ রেজিমেন্টের সেনাদের পাঠানো হয়েছিল অস্ত্রসজ্জিত করে। চট্টগ্রাম পোর্টের ১৭ নম্বর জেটিতে পোঁছানোর পর বেলুচ রেজিমেন্টের জওয়ানরা ওই জেটির চতুর্দিক ঘিরে রাখে। আর বাঙালি সেনাদের নিয়োগ করা হয় সোয়াত জাহাজ থেকে অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ খালাস করার জন্য। বেলুচ রেজিমেন্টের জওয়ানদের সঙ্গে কমান্ডার ছিলেন এক পাঞ্জাবি মেজর। আর বাঙালি সেনাদের সঙ্গে ছিলেন নায়েব সুবেদার নূরল ইসলাম ও নায়েব সুবেদার গোলাম সাত্তার।

বেলুচ রেজিমেন্টের জওয়ানরা যখন জেটির চতুর্দিকে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে মজবুত করার জন্য ব্যস্ত, তখন বাঙালি সৈন্যরা সোয়াত থেকে অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ খালাসের কাজে ঘামে ভিজে একাকার। জেটিতে যাওয়ার পর বাঙালি সৈন্যদের প্রথম খাবার দেয়া হয় ২৫ তারিখের বিকালে অর্থাৎ পুরো একটা দিন পর। তাও সে খাবার জোটে মাত্র দশজন সৈন্যের ভাগ্যে। 

এ রকম অভুক্ত অবস্থায় যখন বাঙালি সৈন্যরা মাল খালাসে ব্যস্ত, তখন ব্রিগেডিয়ার আনসারী ও কর্নেল সিগরী বারবার জেটিতে গিয়ে তদারক করেন। এর আগে আমরা কখনও দেখিনি কিংবা শুনিনি যে, জাহাজের মাল খালাসের সময় কোনো ব্রিগেডিয়ার স্বয়ং এ ধরনের কাজ করেন। বাঙালি সৈন্যরা যখন অনাহার আর ক্লান্তিতে দিশাহারা, তখন ব্রিগেডিয়ার আনসারী ও কর্নেল সিগরী বারবার তাগিদ দিচ্ছেন দ্রুত মাল খালাসের জন্য।

সেদিন চট্টগ্রামের এ ঘটনায় সারাদেশের মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। স্রোতের মতো মিছিল রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে এসে সমবেত হয়।

বিকেলে  কাপ্তানবাজার থেকে আসা এক নারী জানান, মিলিটারিরা কাল রাতে তার দুই ছেলেকে গুলি করে মেরেছে। বঙ্গবন্ধু গর্জে উঠে তৎক্ষণাৎ তাজউদ্দীন আহমেদকে নির্দেশ দিলেন প্রেসিডেন্ট ভবনে টেলিফোন করতে। বঙ্গবন্ধু প্রেসিডেন্টের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্যালাপ শেষে বললেন, ‘প্লিজ, স্টপ দিস কিলিং।’ 

রাত ৮টায় ভুট্টোর প্রধান সহচর গোলাম মোস্তফা খার ভুট্টোর সর্বশেষ একটি বার্তা নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করেন এবং বঙ্গবন্ধু এর চূড়ান্ত জবাব দেন। ভুট্টোর এ প্রস্তাবে পুরনো ফর্মুলাই পেশ করা হয়। অর্থাৎ কেন্দ্রে পিপলস্ পার্টির সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি তথা কোয়ালিশন সরকার গঠন। 

সারাদিনের বিভিন্ন ঘটনায় বঙ্গবন্ধু চড়া মেজাজে থাকলেও বেশ সংযত ও দৃঢ় কণ্ঠে গোলাম মোস্তফাকে বলেন, ‘দিস ইজ নট অ্যান্ড উইল নেভার এ্যাক্সেপটেবল টু আস। প্লিজ টেল ইওর লিডার কিলিং দ্য পিপল বাই দ্য আর্মি ইজ নট এ গুড থিং অ্যান্ড আই হ্যাভ নাথিং মোর।

ঢাকা/টিপু

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়