ঢাকা     শুক্রবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৫ ১৪২৯ ||  ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

দে‌শে ৪৫ শতাংশ নারী অপুষ্টিতে ভুগছেন

জ্যেষ্ঠ প্রতি‌বেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:২৬, ১৬ আগস্ট ২০২২  
দে‌শে ৪৫ শতাংশ নারী অপুষ্টিতে ভুগছেন

ছবি: সংগৃহীত

১৫ থেকে ৪৯ বছর বয়সী বিবাহিত নারীর সংখ্যা দে‌শে ৩ কোটি ৮০ লাখ। যার মধ্যে ৫০ লাখ নারীর ওজন প্রয়োজনের তুলনায় কম। অন্যদিকে, ১ কোটি ২০ লাখ নারীর ওজন বেশি। কম ওজ‌নের নারীরা যেমন অপু‌ষ্টি‌তে ভুগ‌ছেন, তেম‌নি যা‌দের ওজন বে‌শি তারাও অপুষ্টির কারণেই স্থূল। সবমিলিয়ে দে‌শে প্রায় ৪৫ শতাংশ নারীই অপুষ্টিতে ভুগছেন।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি) আয়োজিত ‌‘বাংলাদেশের নারীদের অপুষ্টি দ্বৈত বোঝা’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইসিডিডিআরবি,র গবেষক মহিউদ্দিন হাওলাদার।

আইসিডিডিআর,বি, যুক্তরাষ্ট্রের দাতা সংস্থা ইউএসএআইডি এবং ডেটা ফর ইমপ্যাক্ট এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। 

অনুষ্ঠানে বলা হয়, স্বাস্থ্য ও পুষ্টিবিষয়ক নীতিতে, পরিকল্পনায় কম ওজনবিষয়ক অপুষ্টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে বাংলাদেশে নারীদের মধ্যে স্থূলতার সমস্যা দিন দিন প্রকট হয়ে উঠ‌ছে। 

বক্তারা ব‌লে‌ছেন, দেশের নারীদের পুষ্টি পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হচ্ছে না। আগে ১৫ থেকে ৪৯ বছর বয়সী নারীর উচ্চতা তুলনায় ওজন অনেক কম দেখা যেত। ১০ বছরের ব্যবধানে অপুষ্টি দ্বৈত বুঝার হার অনেক বেড়েছে।

২০০৭ থেকে ২০১৭ সালের স্বাস্থ্য ও পুষ্টির তথ্য বিশ্লেষণ করে গবেষকেরা বলছেন, বাংলাদেশে বিবাহিত নারীদের মধ্যে ওজন কমজনিত অপুষ্টি উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। ২০০৭ সালে ছিল ৩০ শতাংশ। ২০১৭-১৮ সালে তা কমে ১২ শতাংশে দাঁড়ায়। অন্যদিকে ২০০৭ সালে ওই বয়সী ১২ শতাংশ নারী ছিল স্থূল। ২০১৭-১৮ সালে তা বেড়ে হয় ৩২ শতাংশ। অর্থাৎ ১০ বছরের ব্যবধানে সার্বিকভাবে পুষ্টি পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

মেয়া/এনএইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়