ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১২ ১৪৩১

বিপুল সংখ্যক বেসামরিক নাগরিককে হত্যার অনুমতি দিয়েছিল ইসরায়েলি কর্মকর্তারা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:১৪, ৩ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ২২:২৮, ৩ এপ্রিল ২০২৪
বিপুল সংখ্যক বেসামরিক নাগরিককে হত্যার অনুমতি দিয়েছিল ইসরায়েলি কর্মকর্তারা

গাজায় ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর বোমা হামলার অভিযানের আগে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) চালিত ডাটাবেস ব্যবহার করা হয়েছিল। এর মাধ্যমে হামাসের সাথে সম্পর্কিত ৩৭ হাজার সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তু চিহ্নিত করেছিল ইসরায়েল। যুদ্ধের সাথে জড়িত গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে দ্য গার্ডিয়ান এ তথ্য জানিয়েছে।

ল্যাভেন্ডার নামে পরিচিত এআই ব্যবস্থার ব্যবহার সম্পর্কে কথা বলার পাশাপাশি গোয়েন্দা সূত্রগুলো জানিয়েছে, ইসরায়েলি সামরিক কর্মকর্তারা বিশেষ করে সংঘাতের প্রথম সপ্তাহ এবং মাসগুলিতে বিপুল সংখ্যক ফিলিস্তিনি বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করার অনুমতি দিয়েছিল।

তাদের এই অকপট সাক্ষ্য ইসরায়েলি গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের প্রথম ধাপের অভিজ্ঞতার একটি বিরল ইঙ্গিত দিচ্ছে। তারা ছয় মাস ধরা চলা যুদ্ধে লক্ষ্য চিহ্নিত করতে যান্ত্রিক ব্যবস্থা ব্যবহার করছে।

হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ইসরায়েলের শক্তিশালী এআই সিস্টেমের ব্যবহার অনেক আইনি এবং নৈতিক প্রশ্ন উত্থাপন করেছে। এই যুদ্ধে ইসরায়েল সামরিক কর্মী ও মেশিনের মধ্যে সম্পর্ককে রূপান্তরিত করেছে।

ল্যাভেন্ডার এআই ব্যবস্থা ব্যবহারকারী একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেছেন, ‘আমার স্মৃতিতে এটি অতুলনীয়।’

তিনি জানান, তারা একজন শোকাহত সৈনিকের চেয়ে ‘পরিসংখ্যানগত প্রক্রিয়াতে’ বেশি বিশ্বাস করেন। ‘যন্ত্র ঠান্ডাভাবে কাজগুলো করেছে। এটি যুদ্ধকে আরও সহজ করেছে’- বলেন তিনি।

দুটি সূত্র জানিয়েছে,  যুদ্ধের প্রথম সপ্তাহগুলিতে নিম্ন পদস্থ জঙ্গিদের উপর বিমান হামলার সময় তাদের ১৫ থেকে ২০ জন বেসামরিক লোককে হত্যা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। এই ধরনের লক্ষ্যবস্তুতে আক্রমণগুলি সাধারণত ‘বোবা বোমা’ নামে পরিচিত অনিয়ন্ত্রিত অস্ত্র ব্যবহার করে পরিচালিত হয়। এ ধরনের আক্রমণ পুরো বাড়ি ধ্বংস করে এবং সব বাসিন্দাকে হত্যা করে।

ঢাকা/শাহেদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়