Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

কেমিক‌্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ভূমি উন্নয়নে ব্যয় হবে ১২৪ কোটি টাকা

কেএমএ হাসনাত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:০৫, ২ মার্চ ২০২১   আপডেট: ২১:০৬, ২ মার্চ ২০২১
কেমিক‌্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ভূমি উন্নয়নে ব্যয় হবে ১২৪ কোটি টাকা

‘বিসিক কেমিক‌্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক, মুন্সীগঞ্জ (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্পের মাটি ভরাটের কাজ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ১২৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিচালিত ডকইয়ার্ড অ‌্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ (ডিইডব্লিউ) লিমিটেড এ ভূমি উন্নয়ন কাজ করবে।

এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য বুধবার (৩ মার্চ) অনুষ্ঠিতব‌্য সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে বলে শিল্প মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) বাস্তবায়নাধীন ‘বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক, মুন্সীগঞ্জ (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্পটি ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল একনেকের বৈঠকে অনুমোদিত হয়। প্রকল্পের আরডিপিপিতে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) বাস্তবায়নের জন্য ৩১০ একর ভূমি উন্নয়ন বাবদ ১২৯ কোটি ১২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ও পুকুর খনন করে মাটি ভরাট বাবদ ১ কোটি ৪ লাখ ৩৯ হাজার টাকার সংস্থান আছে। প্রকল্পটির বাস্তবায়ন মেয়াদকাল ২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।

ভূমি উন্নয়ন ও পুকুর খনন করে মাটি ভরাটের কাজ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (ডিপিএম) বাস্তবায়নের জন্য পাওয়া দর প্রস্তাব মূল্যায়ন ও নেগোসিয়েশনের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় সাত সদস্যের মূল্যায়ন ও নেগোসিয়েশন কমিটি গঠন করে। কাজটি ডিপিএম পদ্ধতিতে বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ বিমান বাহিনী কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে বাস্তবায়নের জন্য দরপত্র প্রস্তাব সরাসরি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মতামত দেওয়া হয়, ‘বাংলাদেশ বিমান বাহিনী কল্যাণ ট্রাস্ট সরকারি প্রতিষ্ঠান নয়, তাই সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে কাজ দেওয়ার সুযোগ নেই।’ এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন কাজটি সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাস্তবায়নের জন্য আবার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন কাজটি সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাস্তবায়নের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর চিঠি দেয় ডিইডব্লিউ লিমিটেড। এর পরিপ্রেক্ষিতে একই বছরের ৭ অক্টোবর যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে ডিইডব্লিউ লিমিটেড এক চিঠির মাধ্যমে দরপত্র প্রস্তাব দাখিলের জন্য অনুরোধ জানায়। দরপত্র প্রস্তাব দাখিলের সর্বশেষ সময়সীমা ২০২০ সালের ১১ নভেম্বর দুপুর ১২টা পর্যন্ত ধার্য করা হয়। ডিইডব্লিউ লিমিটেড নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্প কার্যালয়ে দরপত্র প্রস্তাব দাখিল করে।

ডিইডব্লিউ লিমিটেডের দাখিল করা দর প্রস্তাব মূল্যায়ন ও নেগোসিয়েশনের জন্য এ সংক্রান্ত কমিটির দুটি সভা হয়। প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন কাজ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাস্তবায়নের জন্য ডিইডব্লিউ লিমিটেডের দাখিল করা দর প্রস্তাব যাচাই-বাছাই ও মূল্যায়ন শেষে সার্বিক পরিস্থিতি ও বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় বিসিকের দাপ্তরিক প্রাক্কলিত দর ১৩০ কোটি ১৩ লাখ ৭৬ হাজার টাকা থেকে ৫ শতাংশ নিম্ন দরে ১২৩ কোটি ৬৩ লাখ ৭ হাজার টাকার ভূমি উন্নয়ন প্রস্তাবটি সর্বসম্মতভাবে গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক, মুন্সীগঞ্জ (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্পের মাটি ভরাটের কাজটি নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়নের জন্য ডিইডব্লিউ লিমিটেড-কে কার্যাদেশ দেওয়ার জন্য সুপারিশ করে। প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য পিপিআর ধারা ৩৬(৩) অনুযায়ী সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদন নেওয়ার বাধ্যবাধকতা থাকায় ক্রয় প্রস্তাবটি কমিটির সভায় উপস্থাপন করা হবে বলে সূত্র জানিয়েছে।

ঢাকা/হাসনাত/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে