ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৯ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

রাতে সেক্সপার্টি, সকালে উপদেশ বাণী

ক্রীড়া ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৫ ৬:২৯:২৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৫ ৬:২৯:২৮ পিএম

শিরোনাম দেখে ভড়কে গেলেও, এমন ঘটনাই ঘটিয়েছেন ম্যানচেস্টার সিটির ইংলিশ ফুটবলার কাইল ওয়াকার। রাতে বন্ধুকে নিয়ে কলগার্লের সাথে ফূর্তি করে কাটিয়েছেন সময়। পরদিন সকালে এক ইন্টারভিউয়ে ভক্তদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ঘরে থাকুন, নিরাপদ থাকুন।’

এই তথ্য ফাঁস করেছে বৃটিশ ট্যাবলয়েড ‘দ্য সান’। এমনকি তারা সে কলগার্লের পরিচয়ও তুলে ধরেছে। এমন দ্বিমুখী আচরণের জন্য তোপের মুখে পড়েছেন ইংলিশ ফুটবলার কাইল। পরে অবশ্য ক্ষমাও চেয়েছেন ভক্তদের কাছে।

করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা ঠেকাতে ২৩ মার্চ থেকে ২১ দিনের লকডাউনের ঘোষণা দেয় ইংল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। নিষিদ্ধ করা হয় সবধরনের গণজমায়েত। অথচ কাইল এর কোনো তোয়াক্কাই করেননি। পরদিন নিজের এপার্টমেন্টে ডেকে পাঠান কলগার্ল। এসময় কাইলের সঙ্গে তার বন্ধুও ছিলো। আর পুরো বিষয়টি ব্যবস্থা করেন তার বন্ধুই।

দ্য সানের তথ্যানুসারে, শুরুতে তারা ২১ বছর বয়সী লুসি ম্যাকনামারাকে আসতে বলেন। পরে তার সঙ্গে যুক্ত হন ২৪ বছর বয়সী আরেক ব্রাজিলিয়ান কলগার্ল। দুজন একটি ট্যাক্সি ক্যাবে করে রাত সাড়ে ১০টায় ওয়াকারের চেশায়ারের বাসায় পৌঁছান। কাইলের বন্ধু তাদের নিয়ে যায় ইংলিশ ফুটবলারের ঘরে।

কাইলের পরিচয় সম্পর্কে শুরুতে ধারণা ছিল না লুসির। তবে ব্রাজিলিয়ান কলগার্ল জানতো যে, তারা কোথায় যাচ্ছে। সেই প্রথম লুসিকে বিষয়টি জানায়। এ নিয়ে দ্য সানকে লুসি বলেন, ‘আমি ম্যানচেস্টারের এক এজেন্সির হয়ে কাজ করি। তারা আমাকে ক্যাবে করে পাঠায়। সে ক্যাবেই ছিলেন আরেকটি মেয়ে। সেই আমাকে জানায় যে, আমরা এক ফুটবলারের বাসায় যাচ্ছি। এর আগে আমি জানতাম না। কারণ ওয়াকার নিজের পরিচয় গোপন রেখেছিল। ক্যাবের ড্রাইভার আমাদের ঠিকানামতো নামিয়ে দেয়। সেখানে অপেক্ষায় ছিলেন কাইলের বন্ধু। তিনি আমাদের নিয়ে যান। আমি কাইলের বাসায় গিয়ে তার কিছু ছবি তুলে রাখি।’

লুসির তোলা ছবিতে দেখা গেছে, টাকা গুনছেন কাইল। তিনি ও তার বন্ধু তিন ঘণ্টা ফূর্তির বিনিময়ে ২ হাজার ২০০ পাউন্ড দিয়েছেন ওই দুই কলগার্লকে।

সে রাতেই ভক্তদের উদ্দেশ্যে এক টুইট বার্তায় কাইল লিখেন, ‘প্লিজ সবাই ঘরে থাকুন। এই কঠিন মুহূর্তে ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন কিন্তু তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাবেন না।’ আর পরদিন এক ইন্টারভিউয়ে বলেন, ‘ঘরে থাকুন। বিধিনিষেধগুলো মেনে চলুন। আর সুস্থ থাকুন।’

এমন দ্বিমুখী আচরণের জন্য তোপের মুখে পড়েন কাইল। কলগার্ল লুসি এ নিয়ে বলেন, ‘রাতে সে অচেনা কলগার্লদের ঘরে ডাকলো সেক্সপার্টির জন্য। পরদিন সবাইকে নিরাপদ থাকার লেকচার দিলো। সে একটা হিপোক্রেট, যে কিনা মানুষকে ঝুঁকিতে ফেলছে।’

ইংল্যান্ড জাতীয় দলের কোচ গ্যারেথ সাউথগেটও ক্ষেপেছেন কাইলের উপর। সমালোচনাও করেন এমন কাজের। পরে এক বিবৃতিতে ক্ষমা চেয়ে কাইল বলেন, ‘আমি যা করেছি তার জন্য সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। পেশাদার ফুটবলার হিসেবে সবার রোল মডেল হওয়া উচিত ছিল আমার। দ্বিমুখী আচরণের জন্য আমি আমার পরিবার, বন্ধুবান্ধব, ফুটবল ক্লাব এবং সমর্থকদের কাছে ক্ষমা চাই।’


ঢাকা/কামরুল