RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১১ ১৪২৭ ||  ০৭ রবিউস সানি ১৪৪২

যুব ক্রিকেটারদের নিয়ে দূরদর্শী হতে পরামর্শ ডমিঙ্গোর

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:১০, ২৩ অক্টোবর ২০২০  
যুব ক্রিকেটারদের নিয়ে দূরদর্শী হতে পরামর্শ ডমিঙ্গোর

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে তামিম-মাহমুদউল্লাহদের সঙ্গে এবার খেলেছেন অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিশ্বকাপ জয়ী দলের খেলোয়াড়রা। তাদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে জাতীয় দলের কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর। তৌহিদ হৃদয়, রিশাদ হোসেন ও মাহমুদুল হাসান জয়ের পারফরম্যান্স মুগ্ধ করেছে তাকে। কিন্তু জাতীয় দলে তাদের জায়গা করে দিতে আরও সাবধানে পা ফেলতে হবে মনে করেন ডমিঙ্গো। যুব ক্রিকেটারদের নিয়ে আরও ধৈর্য ধরতে অনুরোধ করেছেন তিনি।

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে দূরদর্শী হতে পরামর্শ দিয়েছেন ডমিঙ্গো, ‘আমি মনে করি অনূধ্র্ব-১৯ দলের খেলোয়াড়দের উন্নতির জন্য অনেক বেশি সময় দেওয়াটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তাড়াহুড়ো করে হয়তো একজন তরুণ খেলোয়াড়কে দলে ডাকলেন, বিশেষ করে একজন ব্যাটসম্যান এবং সে কয়েক ম্যাচে ব্যর্থ হওয়ার পর তাকে দুই বা তিন বছরের জন্য বাদ দিলেন, একসময় ভুলেও গেলেন। এমন কিছু করা উচিত হবে না।’

যুব দলের খেলোয়াড়দের অনেক বেশি মূল্যায়নের পর তাদের জন্য পরবর্তী ধাপের দরজা খুলে দেওয়া উচিত বলে মত দক্ষিণ আফ্রিকান কোচের, ‘বরং এমন একজন খেলোয়াড়কে বাছাই করা নিশ্চিত করতে হবে যে কি না আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পারফর্মের জন্য প্রস্তুত। জাতীয় দলে জায়গা পাওয়া অবশ্যই কঠিন করতে হবে। জাতীয় দলের জন্য ইচ্ছামতো কাউকে বাছাই করতে পারেন না আপনি।’

যুব দল ও জাতীয় দল যে এক জিনিস নয়, তা ব্যাখ্যা করলেন ডমিঙ্গো, ‘ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো পারফরম্যান্স করতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে যে সে ট্রেনিং ও ফিটনেসে বেশ শৃঙ্খল। তার জীবন যাপন দেখতে হবে ও দলীয় সংস্কৃতির সঙ্গে উপযুক্ত হতে হবে। ব্যতিক্রমী প্রতিভাবান কেউ না হলে অনূর্ধ্ব-১৯ দল থেকে সরাসরি জাতীয় দলে কাউকে নেওয়া যাবে না। কারণ অনূর্ধ্ব-১৯ ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অনেক ফারাক। দক্ষিণ আফ্রিকায় অনূর্ধ্ব-১৯ বোলারের মুখোমুখি হওয়া মানে এই নয় যে, সে লর্ডসে জোফরা আর্চার কিংবা ওয়াকায় স্টার্কের মুখোমুখি হওয়ার জন্য প্রস্তুত। এটা একটা বড় ধাপ।’

আন্তর্জাতিক মঞ্চের জন্য অনূধ্র্ব-১৯ দলের ক্রিকেটারদের তৈরি করতে কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করেছেন তিনি, ‘এই খেলোয়াড়দের নিয়ে আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে এবং তাদের বিকশিত হওয়ার জন্য সঠিক সুযোগ সুবিধা দিতে হবে। জাতীয় দলের সঙ্গে আপনি তাদের ট্রেনিংয়ের সুযোগ দিতে পারেন বিভিন্ন সফরে, তারা দেখুক এটা কেমন। তাদের দলে রাখতেই হবে, এমন নয়। তাদের নিয়ে তাড়াহুড়ো করা মানে কিছু সম্ভাবনাময়ী ক্যারিয়ারকে ধ্বংসের মুখে ফেললেন।’

তিন দলের প্রেসিডেন্টস কাপে তরুণদের খেলা নিয়ে ডমিঙ্গো বলেছেন, ‘আমি তাদের খেলা উপভোগ করেছি। রিশাদের মতো বোলাররা ভালো করেছে। হৃদয়, জয় সুন্দর খেলেছে। প্রথমবার ইরফানকে খেলতে দেখলাম। আমাদের জন্য অনেক ইতিবাচক ব্যাপার রয়েছে। সিনিয়রদের সঙ্গে কয়েকজন তরুণ খেলছে, এটা চমৎকার অভিজ্ঞতা। তাদের শক্তি ও নিবেদন আমার ভালো লেগেছে।’

ঢাকা/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়