Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৮ ||  ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

কী হয়েছিল মাহমুদউল্লাহর সংবাদ সম্মেলনে? 

মাসকট থেকে সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০২, ২১ অক্টোবর ২০২১  
কী হয়েছিল মাহমুদউল্লাহর সংবাদ সম্মেলনে? 

চোয়ালবদ্ধ মুখ। কঠোর চাহনী। ঠোঁটে হাসির কোনো রেশ মাত্র নেই। অথচ মাত্রই বিশ্বকাপের মূল পর্ব নিশ্চিত করে এলেন তিনি। 

মুখের এমন ভঙ্গিমায় বলে দিচ্ছিল বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হৃদয়ে ঝড় বইছে! সেই ঝড়কে টাইফুন-টর্নেডো যে কোনো নামেই অবহিত করতে পারেন। মাসকটে ক্রীড়া সাংবাদিকদের সামনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এমন অচেনা রুপে হাজির হয়েছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। 

দলের অবস্থান, দলের ভেতর স্বস্তি বা বাড়তি কোনো চাপ, দুশ্চিন্তা আছে কী না এমন প্রশ্নে মাহমুদউল্লাহ উগড়ে দিলেন সব রাগ, ক্ষোভ আর হতাশা। সঙ্গে এও বললেন, ‘আমরাও মানুষ, আমাদেরও ভুল হতে পারে, আমাদেরও পরিবার আছে।’

অথচ পরিবেশটা হওয়ার কথা ছিল আনন্দময়। মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠে থাকার কথা ছিল উচ্ছ্বাস। বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে যাওয়ার আত্মতৃপ্তি। বিশ্বকাপে রেকর্ড রানে জয়ের অহংকর। পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে খেলেছেন ক্যারিয়ারের দ্রুততম হাফ সেঞ্চুরির ইনিংস। অথচ তার শক্ত আবরণ থেকে বেরিয়ে এল আবেগ, আক্ষেপ আর হাহাকার। 

নির্দিষ্ট কারো দিকে আঙুল তোলেননি। দুইবার বললেন, ‘সবার প্রতি।’ সেই সবাই কারা? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাধারণ মানুষ-সমর্থক, গণমাধ্যম ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কর্তারা। বিষয়টা আরও স্পষ্ট হওয়ার জন্য দিনে চারেক পেছনে যাওয়া যেতে পারে। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৬ রানে হার দিয়ে বিশ্বকাপ শুরুর পর চারদিকে সমালোচনার ঝড় ওঠে। সেই ঝড়ে আরও হাওয়া দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। 

স্কটিশদের বিপক্ষে খেলোয়াড়দের অ্যাপ্রোচ পছন্দ হয়নি বিসিবি সভাপতির। তাইতো গণমাধ্যম কর্মীদের ভরা মজলিশে ক্রিকেটারদের নিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এভাবে, ‘কেন হেরে গেলাম... ক্রিকেটে এমনটা হতেই পারে। কিন্তু আমার যে জিনিসটা খারাপ লেগেছে সেটা হলো টিম অ্যাপ্রোচ।’ ওই হারে গণমাধ্যম হতে শুরু করে সামাজিক মাধ্যমগুলোতেও চলছিল সমালোচনা। 

ওমানের বিপক্ষে জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে এসে সাকিব আল হাসান রাগচটা উত্তর দিয়েছিলেন। এবার মাহমুদউল্লাহও একই ভঙ্গিমায় হাজির হলেন। মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘শক্ত হওয়াটাই মনে হয় স্বাভাবিক। আমরাও মানুষ আমরাও ভুল করি। এই কারণে একেবারে ছোট করে ফেলা ঠিক না। এটা আমাদের দেশ আমরা সবাই এক সঙ্গে খেলি। আমরা যখন খেলি পুরো দেশ এক সঙ্গে খেলি। এটা আমাদের মাথায় থাকে। আমাদের থেকে ফিলিংস কারও বেশি না আমার মনে হয়। সমালোচনা অবশ্যই হবে কারণ খারাপ খেলেছি। কিন্তু একেবারে ছোট করে ফেলা ঠিক না। এটা আমাদের সবারই খারাপ লেগেছে।’

মাহমুদউল্লাহ এসব বলে যাচ্ছিলেন আর সংবাদ সম্মেলন কক্ষে পীন-পতন নীরবতা। আইসিসির মিডিয়া ম্যানেজারের এক প্রশ্নেও ঠিক এভাবে উত্তরগুলো দিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে মাহমুদউল্লাহ যখন বেরিয়ে যাওয়ার জন্য আসন ছেড়ে উঠলেন, তখন এক সংবাদকর্মী শুভকামনা জানান। কোনোদিকে না তাকিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মাহমুদউল্লাহ বলেন ‘ঠিকাছে ভাই।’

মাসকট/রিয়াদ/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়