ঢাকা     শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ১৭ ১৪২৯ ||  ০১ জিলহজ ১৪৪৩

এত ধীরগতিতে আগে কখনও ব্যাটিং করেননি মুশফিক!

ক্রীড়া প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম থেকে || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১১, ১৮ মে ২০২২  
এত ধীরগতিতে আগে কখনও ব্যাটিং করেননি মুশফিক!

ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি পেতে ১৮ ইনিংস অপেক্ষা করতে হলো মুশফিকুর রহিমকে। কোভিডের আগে সবশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুরে অপরাজিত ২০৩ রান করেছিলেন। এরপর শুধু অপেক্ষা আর অপেক্ষা।

সেই অপেক্ষা মুশফিকের ফুরাল চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে, যেখানে ২০১০ সালে ভারতের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন। ক্যারিয়ারের ৩৩তম ইনিংসে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন। আজ খেলছেন ১৪৯তম ইনিংস। মানে, সাদা পোশাকে বাকি ৭ সেঞ্চুরির জন্য মুশফিককে খেলতে হয়েছে ১১৬ ইনিংস!

আশিথা ফার্নান্দোর বল লেগ সাইডে ফ্লিক করে ফাইন লেগ দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে সেঞ্চুরিতে পৌঁছান মুশফিক। দীর্ঘ অপেক্ষার পর সেঞ্চুরি পাওয়ায় তার উদযাপনও ছিল খ্যাপাটে। বল সীমানায় পৌঁছার আগেই ফিস্ট বাম্প করেন। এরপর হেলমেট খুলে দেন হুংকার। ব্যাটে চুমু খেয়ে সতীর্থ, দর্শকদের অভিবাদনের জবাব দেন। এরপর সিজদাহ। ড্রেসিংরুম থেকে বেরিয়ে করতালিতে তাকে স্বাগত জানান সতীর্থ, কোচিং স্টাফরা। সেঞ্চুরিতে পৌঁছাতে ডানহাতি ব্যাটসম্যানকে খেলতে হয়েছে ২৭০ বল! ক্যারিয়ারে এটিই তার মন্থরতম সেঞ্চুরি।

এর আগে ভারতের বিপক্ষে তাদের মাটিতে সেঞ্চুরি পেতে খেলেছিলেন ২৩৫ বল। ইনিংসটি ছিল ১২৭ রানের। সেঞ্চুরি পেতে দুইশর বেশি বল খেলেছেন আরো একটি ইনিংসে। ২০১৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ১১৬ রান করেছিলেন। সেবার সেঞ্চুরির জন্য খেলেছিলেন ২২১ বল।

এছাড়া তার অন্য সেঞ্চুরিগুলো এসেছে ১৮৭ বল (জিম্বাবুয়ে, ২১৯), ১৬০ বল (জিম্বাবুয়ে, ২০৩*), ১৬২ বল (শ্রীলঙ্কা, ২০১৩), ১৭৯ বল (নিউ জিল্যান্ড, ২০১৭) ও ১১২ (ভারত, ২০১০)।

মন্থরতম এই ইনিংসে বাউন্ডারি মারা যেন ভুলেই গিয়েছিলেন মুশফিক। সেঞ্চুরিতে পৌঁছাতে মাত্র চারটি ৪ হাঁকান। এর আগের সাত সেঞ্চুরির ইনিংসে এতটা কম বাউন্ডারি কখনও মারেননি। ক্যারিয়ার সেরা ২১৯ রান যেবার করেছিলেন সেবার সেঞ্চুরিতে পৌঁছাতে ৮ চার মেরেছিলেন।

আগের দিন মুশফিক হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন ১২৫ বলে। পরের ৫০ রান পেতে ডানহাতি ব্যাটসম্যানকে খেলতে হয়েছে ১৪৫ বল। হাফ সেঞ্চুরির আগে দুটি বাউন্ডারি। হাফ সেঞ্চুরি থেকে সেঞ্চুরিতে পৌঁছাতে মেরেছেন বাকি ২টি।

কোনো ঝুঁকি না নিয়ে, আগ্রাসী মনোভাবে না খেলে, স্থির থেকে মুশফিক সাজিয়েছেন তার ম্যারাথন ইনিংস। ৪৪৯ মিনিট ক্রিজে কাটিয়ে প্রতিপক্ষকে কোনো সুযোগ না দিয়ে ১০৫ রানে থেমেছেন মুশফিক। লেগ স্টাম্পের উপরের বল সুইপ করতে গিয়ে মিস করে বোল্ড হন।

এই ইনিংস খেলার পথে মুশফিক ৫ হাজার রানের মাইলফলক পেরিয়েছেন। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে অনন্য এই রেকর্ড গড়েছেন। সব মিলিয়ে ৮১ ইনিংসে তার রান ৫০৩৭। ব্যাটিং গড় ৩৬.৭৬।

চট্টগ্রাম/ইয়াসিন/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়