ঢাকা     শনিবার   ২৫ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

নিউ জিল্যান্ড সিরিজে যেসব রেকর্ড ভাঙতে পারবেন বাবর

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:২৬, ১৫ এপ্রিল ২০২৪  
নিউ জিল্যান্ড সিরিজে যেসব রেকর্ড ভাঙতে পারবেন বাবর

বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে পাকিস্তান-নিউ জিল্যান্ড পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এই সিরিজে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিবেন বাবর আজম। তার সামনে রয়েছে বেশ কয়েকটি রেকর্ড গড়া ও ভাঙার সুযোগ। চলুন সেগুলো দেখে নেওয়া যাক।

১. অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি জয়:
অধিনায়ক হিসেবে বাবর আজম ৭১ ম্যাচে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিয়ে ৪২টিতে জয় পেয়েছিলেন। এবার তার সামনে রয়েছে নতুন রেকর্ড গড়ার সুযোগ। নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতলেই উগান্ডার ব্রিয়ান মাসাবার রেকর্ড ভেঙে অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ জয়ের রেকর্ড গড়েবন বাবর। মাসাবা ৫৬ ম্যাচে উগান্ডাকে নেতৃত্ব দিয়ে ৪৪টিতে জয় তুলে নিয়ে শীর্ষে আছেন। ৫২ ম্যাচে আফগানিস্তানকে নেতৃত্ব দিয়ে ৪২ জয় তুলে নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন আসগর আফগান।

২. সবচেয়ে বেশি ম্যাচে নেতৃত্ব দেওয়ার রেকর্ড:
বাবর যদি পাঁচ ম্যাচই খেলতে পারেন তাহলে অ্যারোন ফিঞ্চের একটি রেকর্ড ছুঁতে পারবেন। অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ ৭৬ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ফিঞ্চ। বাবরের সামনেও সুযোগ রয়েছে এই কীর্তি গড়ার।

৩. অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি রান:
অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি রান আছে অস্ট্রেলিয়ার অ্যারোন ফিঞ্চের। তিনি ৭৬ ম্যাচে করেছিলেন ২ হাজার ২৩৬ রান। তার পরেই আছেন বাবর আজম। ৬৫ ম্যাচে তার রান এখন ২ হাজার ১৯৫। আর মাত্র ৪২ রান করলেই তিনি ফিঞ্চকে ছাড়িয়ে শীর্ষে অবস্থান নিবেন। বাবরের পেছনে আছেন কেন উইলিয়ামসন। ৭১ ম্যাচে তার মোট রান ২ হাজার ১২৫।

৪. ৪০০০ রানের মাইলফলক ছোঁয়ার সুযোগ:
আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি রানের মালিক বিরাট কোহলি। ১০৯ ইনিংসে তার রান সংখ্যা ৪ হাজার ৩৭। রোহিত শর্মা ১৪৩ ইনিংসে ৩ হাজার ৯৭৪ রান নিয়ে আছেন দ্বিতীয় স্থানে। ১০৩ ইনিংসে ৩ হাজার ৬৯৮ রান নিয়ে বাবর আজম আছেন তৃতীয় স্থানে। নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠের পাঁচ ম্যাচ সিরিজে ২৭৭ রান করতে পারলে রোহিত শর্মাকে পেছনে ফেলতে পারবেন। আর ৪০০০ রান করতে পারলে প্রথম কোনো পাকিস্তানি ক্রিকেটার হিসেবে নতুন মাইলফলক ছুঁতে পারবেন বাবর।

পাকিস্তান-নিউ জিল্যান্ড টি-টোয়েন্টি সিরিজের সময়সূচি:
১৮ এপ্রিল: প্রথম টি-টোয়েন্টি, রাওয়ালপিন্ডি (রাত ৮টা),
২০ এপ্রিল: দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি, রাওয়ালপিন্ডি (রাত ৮টা),
২১ এপ্রিল: তৃতীয় টি-টোয়েন্টি, রাওয়ালপিন্ডি (রাত ৮টা),
২৫ এপ্রিল: চতুর্থ টি-টোয়েন্টি, লাহোর (রাত ৮টা),
২৭ এপ্রিল: পঞ্চম টি-টোয়েন্টি, লাহোর (রাত ৮টা)।

ঢাকা/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়