ঢাকা, বুধবার, ৯ কার্তিক ১৪২৫, ২৪ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষণে স্বতন্ত্র আর্কাইভ স্থাপনের উদ্যোগ

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-১২-১৫ ২:৩০:০১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১২-২১ ৭:২২:৩৪ পিএম
‘মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ’-এর বিভিন্ন স্থিরচিত্রের কোলাজ

হাসান মাহামুদ : আমাদের স্বাধীনতার বয়স ৪৬ বছর। এই দীর্ঘসময়ে মুক্তিযুদ্ধের অনেক দুষ্প্রাপ্য আলামত নষ্ট হয়েছে, অনেক স্মৃতি অসংরক্ষিত রয়ে গেছে। এছাড়া এ যাবৎকালে সরকারিভাবে এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক অন্যান্য সংস্থার উদ্যোগে মুক্তিযুদ্ধের যত ধরনের সংগ্রহ রয়েছে, সেগুলোর প্রায় সবই ম্যানুয়াল ও কাগজে সংরক্ষিত। ফলে এসব আগামীতে নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সব ধরনের তথ্য ও দলিল ডিজিটাল পদ্ধতিতে সংগ্রহ করার উদ্দেশ্যে স্বতন্ত্র একটি আর্কাইভ স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে চলতি বছরের শুরুর দিকে জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিকথা ও সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এসব স্মৃতিকথা এবং ইতিহাসও এই আর্কাইভে সংরক্ষণ করা হবে। একই সঙ্গে এর সঙ্গে সংযুক্ত করা হতে পারে বর্তমানে চলমান ‘মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ’কেও।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, এ বিষয়ে প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) তৈরির কাজ চলছে। প্রয়োজনীয় নির্দেশনা এবং করনীয় সম্পর্কে সব জেলা প্রশাসককে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন যেখানে যে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে তা সংরক্ষণ করতে হবে। এখনো যে সব মুক্তিযোদ্ধা বেঁচে আছেন, তাদের স্মৃতিকথা রেকর্ড করে রাখতে হবে। যুগ যুগ ধরে এ সব স্মৃতি ধরে রাখার জন্য আর্কাইভ করে রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলা প্রশাসকদের। স্ব-স্ব জেলার জেলা প্রশাসককে মুক্তিযুদ্ধের এই গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে।’

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, এসব কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য গত ২৮ মে মন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে একটি প্রকল্প তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়। এ প্রকল্প তৈরির জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি তৈরি হলেই মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণের কাজটি দেশব্যাপী সম্পাদন করা হবে। মুক্তিযুদ্ধের সমস্ত সংগ্রহকে ডিজিটাল মাধ্যমে রূপান্তর করে তা দিয়ে আর্কাইভ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক এই আর্কাইভ স্থাপন করা হবে রাজধানীতে। যাতে কেন্দ্রিয়ভাবে এটি পরিচালনা করা সহজ হয় এবং সবার জন্য সহজলভ্য হয়।

এ ছাড়া ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কর্তৃক সৃষ্ট বধ্যভূমিসমূহ সংরক্ষণ ও স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ, মুক্তিযোদ্ধাদের সমাধিস্থল সংরক্ষণ ও উন্নয়ন, মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থানসমূহ সংরক্ষণ, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল শক্তিশালীকরণ, ঢাকার কাকরাইলে মুক্তি ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বিভিন্ন দেশের যারা জীবন বিসর্জন দিয়েছে তাদের ইতিহাস সংরক্ষণ আছে। কিন্তু আমাদের দেশের মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো ইতিহাস সংরক্ষণ নেই। যে যেখানে মরছে তাকে সেখানে কবর দেওয়া হচ্ছে। ৫০ থেকে ১শ’ বছর পর এগুলো আর কেউ মনে রাখবে না। তাই সব জেলা ও উপজেলায় একটা নির্দিষ্ট প্ল্যাটফর্ম থাকা উচিত, যেখানে প্রত্যেক জেলা-উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের ইতিহাস সংরক্ষণ করা হবে। প্রস্তাবিত আর্কাইভের প্রকল্পটি হতে পারে তেমন একটি উদ্যোগ।

এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন দেশের যেখানে যে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে তার সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যে সব মুক্তিযোদ্ধা এখনো বেঁচে আছেন তাদের সব ডকুমেন্ট ধারণ করে রাখা হবে। তাদের বক্তব্যও সংরক্ষণ করব আমরা। সমস্ত সংগ্রহকে ডিজিটাল মাধ্যমে রূপান্তর করে তা একটি আর্কাইভে রাখা হবে।

স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস কেন সংরক্ষণ করা হয়নি- এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘কেন সংরক্ষণ করা হয়নি সে উত্তর আমার কাছে নেই। তবে এতদিনে সংরক্ষণের উদ্যোগ না নেওয়াটা দুঃখজনক। বর্তমান সরকার বিলম্বে হলেও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিয়েছে। আমরা চাই আগামী প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হোক, সঠিক ইতিহাস জানতে পারুক।’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণের জন্য একটি প্রকল্প তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রকল্প তৈরির কাজ শেষ হলে দ্রুত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিকথা ও সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণের কাজটি সম্পাদন করা হবে।’

এদিকে, ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি বাহিনী দেশের যে সব স্থানে গণহত্যা চালিয়েছে তার মধ্য থেকে প্রায় ১০০টি স্থান বাছাই করা হয়েছে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য। এই ১০০ জায়গায় স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জায়গার মালিক ও দখলদারদের বিবরণ, গণকবরের স্ক্যাচ ম্যাপ তৈরি এবং ভূমি অধিগ্রহণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু পরে ওই কার্যক্রমের আর কোনো অগ্রগতি হয়নি। এ ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের দলিল সংরক্ষণের জন্য গঠিত কমিটির কাছে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লাখ লাখ দলিল জমা পড়েছিল। দেশের মানুষ নিজ উদ্যোগেই দলিলগুলো দিয়েছিলেন সংরক্ষণের জন্য। এর মধ্যে থেকে অল্প কিছু দলিল অন্তর্ভূক্ত করে প্রকাশিত হয়েছে ১৫টি নথি আর বাকি দলিলগুলো নষ্ট হতে বসেছে।

এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের বক্তব্য হচ্ছে, মুক্তিযুদ্ধের সমস্ত দলিল সংরক্ষণ করা অনেক জরুরি। না হলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধ অপরিচিত থেকে যাবে। ইতিমধ্যেই অনেক দলিল নষ্ট হয়েছে। অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নষ্ট করা হয়েছে ইচ্ছাকৃতভাবে। তবে দেরি হলেও এখনো সময় চলে যায়নি। এ জন্য এখনই উদ্যোগী হওয়া উচিত নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে মুক্তিযুদ্ধের তথ্যগুলোকে অবিকৃত অবস্থায় সংরক্ষণ করার।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণ একটি চলমান প্রক্রিয়া। সব সময়ই এটা সংরক্ষণ করা যায়। এখনো অনেক দলিল আছে অবিকৃত। এগুলো চিরতরে হারিয়ে যাওয়ার আগে সংরক্ষণ করা প্রয়োজন। কাগুজে ইতিহাস সংরক্ষণ করা যেমন ব্যয়বহুল, তেমনি নষ্ট করাও অনেক সহজ। আর তাই ডিজিটাল মাধ্যমে আমাদের সবচেয়ে গৌরবের এ সময়টা সংরক্ষণ করতে হবে।

বর্তমানে চলমান ‘মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ’: ‘মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ’ মূলত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ডিজিটাল পাবলিক লাইব্রেরি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ও আদর্শে উজ্জীবিত একদল তরুণ দীর্ঘ দশ বছরের ঐকান্তিক চেষ্টা ও পরিশ্রমে গড়ে তুলেছে এই আর্কাইভ। এই আর্কাইভে আছে প্রায় চার হাজার মুক্তিযুদ্ধের বই, মুক্তিযুদ্ধকালীন বিভিন্ন দলিল, মুক্তিযুদ্ধ ও পরবর্তী সময়ের উল্লেখযোগ্য ঘটনার পেপারকাটিং, মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেট, মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্যচিত্র, ভিডিও ফুটেজ ও প্রায় পাঁচ হাজার আলোকচিত্র। এই আর্কাইভ সবার জন্য উন্মুক্ত। বিনামূল্যে যে কেউ এই আর্কাইভ থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।

মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভে ব্রাউজ করার ঠিকানা: www.liberationwarbangladesh.org । আর্কাইভটি ২০০৭ সালে ‘বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার ও গবেষণা কেন্দ্র’ নামে কাজ শুরু করে। ২০১৪ সালে মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ পরীক্ষামূলকভাবে পাঠকদের জন্য সম্প্রচার শুরু করে। ২০১৬ সালে এটি ‘মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ ট্রাস্ট’ নামে নিবন্ধন করা হয়।

এ আর্কাইভে ইতোমধ্যে ১৫ লাখের বেশি নিবন্ধিত হয়েছে। আর্কাইভে প্রতিদিনই যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন তথ্য। এই ট্রাস্টের অন্যান্য উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক শিক্ষা কার্যক্রম ‘মুক্তিযুদ্ধ পাঠশালা’, মুক্তিযোদ্ধাদের ভিডিও সাক্ষাৎকার ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা ও প্রকাশনা কার্যক্রম।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে পাকিস্তানিদের সংঘটিত বাঙালি গণহত্যা, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ ও অভিযান, শরণার্থীদের করুণচিত্র, বঙ্গবন্ধু, বাঙালির রাজনৈতিক সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের এরকম পাঁচ হাজার ছবি ফটোগ্রাফারের নাম ও মূল ক্যাপশনসহ অনলাইনে বিনামূল্যে প্রদর্শনের জন্য উন্মুক্ত করে মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ।

মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ ট্রাস্টের পরিচালক সাব্বির হোসাইন বলেন, ‘ছবিগুলো স্টক ফটোগ্রাফি আর্কাইভ- ম্যাগনাম, গেটি, এপি, হুলটন, ব্যাটম্যান, ম্যাজরিটি ওর্য়াল্ডসহ বিভিন্ন ফটোগ্রাফারের ব্যক্তিগত আর্কাইভ হতে সংগ্রহ করা হয়।

জানা গেছে, ছবিগুলোর কপিরাইটের মালিক মূল স্টক ফটোগ্রাফি আর্কাইভগুলো বিনামূল্যে উন্মুক্ত প্রদর্শনের জন্য হাই রেজুলেশনে একটি নির্দিষ্ট প্রিভিউ সাইজ নির্ধারণ করে দেয়। বর্তমানে এরকম দেড় হাজারের মতো হাই রেজুলেশন ছবির প্রদর্শন অনলাইনে উন্মুক্ত করেছে আর্কাইভটি।

বাংলাদেশি ফটোগ্রাফার রশীদ তালুকদার, মোহাম্মদ শফি, নাইব উদ্দিন আহমেদ, আফতাব আহমেদ, আবদুল হামিদ রায়হান, গোলাম মাওলা, জালালুদ্দীন হায়দার, আনোয়ার হোসেন, মনজুর আলম বেগ, শফিকুল ইসলাম স্বপন, আবুল লাইস শ্যামল, সাখাওয়াত হোসেইন, ভারতীয় ফটোগ্রাফার রঘু রায়, কিশোর পারেখ, অমিয় তরফদার, বাল কৃষ্ণা, রবীন সেনগুপ্ত, সন্তোষ বসাক, মানবেন্দ্র মন্ডল, জার্মান ফটোগ্রাফার থমাস বিলহার্ডট, হর্স্ট ফাস, আমেরিকান ফটোগ্রাফার ডেভিড কেননারলি, ডেভিড বার্নেট, ম্যারি এলেন মার্ক, ডিক ডুরান্স, ব্রিটিশ ফটোগ্রাফার উইলিয়াম লাভলেইস, ডর ম্যাকক্যালিন, ক্রিস পার্কিনস, জন ডাউনিং, মার্ক এডওয়ার্ডস, মেরিলিন সিলভারস্টোন, সুইডিশ ফটোগ্রাফার বো কার্লসন, আফ্রো-ইউরোপিয়ান ফটোগ্রাফার ড্যানিস নিল্ড, ফ্রেঞ্চ ফটোগ্রাফার মাইকেল লরেন্ট, মার্ক রিবৌদ, ক্রিশ্চিয়ান সিমোনপিয়েত্রি, রেমন্ড ডেপার্ডন, ব্রুনো বার্বে, আব্বাস আত্তারসহ দেশি-বিদেশি ফটোগ্রাফার ও সংবাদমাধ্যমের তোলা মুক্তিযুদ্ধের এই হাই রেজুলেশান ছবিগুলো বিনামূল্যে দেখা যাবে মুক্তিযুদ্ধ ই-আর্কাইভ ট্রাস্টের ওয়েবসাইটে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৫ ডিসেম্বর ২০১৭/হাসান/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop
 
     
Walton