RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৫ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ১০ ১৪২৭ ||  ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

যেসব কারণে ভোগান্তি বেড়েছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে

জাহিদুল হক চন্দন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:১৭, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ০৮:৩০, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
যেসব কারণে ভোগান্তি বেড়েছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট। এ নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই হাজার যানাবাহন পারাপার করা হয়ে থাকে। তবে ঈদসহ অন‌্যান‌্য ছুটির সময় এবং শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট বন্ধ থাকলে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়।

সম্প্রতি শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে পারাপার ব্যাহত হওয়ায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছোট গাড়ি ও যাত্রীবাহী বাস পারাপারের সুযোগ পেলেও পণ্যবাহী ট্রাককে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ২ থেকে ৩ দিন।

ঘাট কর্তৃপক্ষ ও পরিবহন শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মূলত চারটি কারণে এ ঘাটে ভোগান্তি বেড়েছে।

লক্কর-ঝক্কর ফেরি

ডেনমার্ক ও চীন থেকে আনা বহু বছরের পুরনো ১২টি ফেরি দিয়ে এখনো পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার করা হয়ে থাকে। ফেরিগুলোতে প্রায়ই যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। নাব্যতা সংকট বা তীব্র স্রোতের বিপরীতে এসব ফেরি চলতে পারে না।

এ নৌরুটে ১১টি রো রো ফেরির মধ্যে ৮টি দিয়ে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। গোলাম মওলা, খান জাহান আলী, শাহ আলী, আমানত শাহ, শাহজালাল, শাহ পরাণ, এনায়েতপুরি, ভাষা শহীদ বরকত ফেরি চলাচল করছে। কেরামত আলী নামের একটি ফেরি ভাসমান কারখানা মধুমতিতে মেরামত করা হচ্ছে। এছাড়া, বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ও রুহুল আমিন ফেরিকে নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে মেরামতের জন‌্য পাঠানো হয়েছে।

৬টি ইউটিলিটি ফেরির মধ্যে রজনীগন্ধ্যা নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে মেরামত করা হচ্ছে। বনলতা নামের আরেকটি ফেরি ভাসমান কারখানা মধুমতিতে মেরামত করা হচ্ছে। এ নৌরুটে শাপলা শালুক, চন্দ্র মল্লিকা, মাধবীলতা ও হাসনাহেনা নামের ৪টি ইউটিলিটি ফেরি চলাচল করছে।

কে-টাইপ দুটি ফেরির মধ্যে কেতকী নামের ফেরিটি মেরামত করা হচ্ছে। শুধু ঢাকা নামের ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৯টি ফেরির মধ্যে ১৩টি ফেরি সচল আছে।

নাব্যতা সংকট

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরিগুলোকে বিকল্প চ্যানেলে যানবাহন পারাপার করতে হয়। প্রায় ৩ কিলোমিটার পথ ঘুরে ফেরি চলাচল করায় দিগুণ সময় লাগে। সম্প্রতি নাব্যতা সংকট দূর হওয়ায় মূল চ্যানেল দিয়ে চলাচল করতে পারলেও মাঝেমাঝেই ডুবোচরে আটকে যাচ্ছে ফেরি।

যানবাহনের বাড়তি চাপ

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট বন্ধ হওয়ার আগে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে প্রতিদিন ২ থেকে আড়াই হাজার যানবাহন পারাপার করা হতো। তবে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট বন্ধ হওয়ার পর পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যানবাহনের চাপ দিগুণ হয়ে যায়। ফলে অল্প সংখ্যক ফেরি দিয়ে এসব বাড়তি যানবাহন পারাপার করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এ যানবাহনের চাপ সামাল দিতে ফেরি বহরে কয়েকটি ফেরি যুক্ত করা হলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা অনেক কম।

সিরিয়াল বাণিজ্য

বাড়তি যানবাহনের চাপে পাটুরিয়া ঘাটের দুটি টার্মিনাল প্রায় সময়ই ট্রাকে পূর্ণ থাকে। ঘাট এলাকার বাড়তি চাপ কমাতে ঘাট থেকে ৭ কিলোমটিার দূরে উথুলী সংযোগ এলাকায় পণ্যবাহী ট্রাকগুলো দাঁড় করিয়ে রাখে শিবালয় থানা পুলিশ। ঘাট এলাকায় ও উথুলী সংযোগ সড়কে বাড়তি টাকা দিয়ে অনেকেই সিরিয়াল ছাড়াই ফেরিতে ওঠার সুযোগ পায়। এ বিষয়কে কেন্দ্র করে ঘাট এলাকায় প্রায়ই ট্রাকচালকদের মধ‌্যে সংঘর্ষ হয়।

মানিকগঞ্জ/চন্দন/রফিক

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়