ঢাকা     বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১১ ১৪৩১

আচরণবিধি লঙ্ঘন 

নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৭ জনকে নোটিশ 

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:১১, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩  
নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৭ জনকে নোটিশ 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ (সাভার-আশুলিয়া) আসনে আচরবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, স্বতন্ত্র প্রার্থী, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরষদের চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি।

গতকাল রোববার (২৪ ডিসেম্বর) এই আসনের নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান ও সিনিয়র সহকারী জজ জাকির হোসেন স্বাক্ষরিত নোটিশ পৃথকভাবে দেওয়া হয়েছে। 

কারণ দর্শানোর নোটিশপ্রাপ্তরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত ‘নৌকা’ প্রতীকের প্রার্থী এনামুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াসমিন চৌধুরি সুমি, পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. পারভেজ দেওয়ান। অন্যরা হলেন- রকি, মো. সাইদ ও টিপু।  

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এনামুর রহমানকে দেওয়া নোটিশে বলা হয়েছে, গত বুধবার রাতে সাভারের থানা স্ট্যান্ড এলাকায় এনামুর রহমানের উপস্থিতিতে তার কর্মী-সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের পোষ্টার ছিড়ে ফেলেন। এসময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকদের মারধর করে তাড়িয়ে দেওয়া এবং বিভিন্ন ধরণের হুমকি দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার একটি অনলাইন প্রত্রিকায় এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। এটি আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ৬(ক) ও ৭(২) বিধির লঙ্ঘন। 

স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ সাইফুল ইসলামকে দেওয়া নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার নির্বাচনি প্রচরণায় পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিন্দুরিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, মাদরাসা ও কবরস্থানের উন্নয়নের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের তহবিল থেকে টাকা হস্তান্তর করেন। কোনো প্রার্থী বা তার পক্ষ থেকে কোনো ব্যক্তি নির্বাচনি এলাকার কোন প্রতিষ্ঠানে প্রকাশ্যে বা গোপনে কোনো প্রকার চাঁদা বা অনুদান দিলে তা জাতীয় সংসদ আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ৩ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। অনুদান দেওয়ার ছবি ও সংবাদ অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে । উক্ত আসনের ভিজিল্যান্স ও অবজারভেশন টিমের এসংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার মাধ্যমে পেয়েছেন নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি। 

উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াসমিন চৌধুরি সুমিকে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, নৌকার প্রচারণায় অংশ নিতে গিয়ে মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী নুরন্নাহার আক্তার আলোকে মারধর ও লাঞ্ছিত করেছেন ইয়াসমিন চৌধুরি সুমি এমন অভিযোগ সংক্রান্ত সংবাদ গত বুধবার একটি অনলাইন প্রত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এমন ঘটনা সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ৬ (ক) ও ১১ (৭) বিধির লঙ্ঘন।

পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. পারভেজ দেওয়ানকে দেওয়া নোটিশে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার স্বতন্ত্র প্রার্তী মুহাম্মদ সাইফুল ইসলামের নির্বাচনি প্রচরণায় পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিন্দুরিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, মাদরাসা ও কবরস্থানের উন্নয়নের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের তহবিল থেকে টাকা হস্তান্তর করেছেন। এটি আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ৩ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। উক্ত আসনের ভিজিল্যান্স ও অবজারভেশন টিমের এসংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তার মাধ্যমে পেয়েছে নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি। 

রকিকে দেওয়া নোটিশে বলা হয়, রকিসহ অন্যান্য ব্যক্তিরা ঢাকা-১৯ (সাভার-আশুলিয়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী তালুকদার তৌহিদ জং ওরফে মুরাদের পক্ষে নির্বাচনি প্রচার করা আব্দুল হালিমকে হুমকি দেন ও ভয়ভীতি দেখিয়েছেন। গত সোমবার দিবাগত রাতে  রকিসহ অন্যরা সাভার পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাতলাপুরের হালিম মার্কেটে আব্দুল হালিমের নিজস্ব কার্যালয়ে হামলা চালায় ও ভাঙচুর করে। বিশ্বজিৎ কর্মকার নামে নিরাপত্তারক্ষী হামলাকারিদের বাঁধা দিলে নিরাপত্তারক্ষীকে নির্বাচনি প্রচারণা না করার জন্য হুমকি দেন। এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার মাধ্যমে পেয়েছে নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি। এমন ঘটনা সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ১১ (গ) বিধির লঙ্ঘন। একই অভিযোগে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া দেওয়া হয়েছে মো. সাইদকে।  

টিপুর কারণ দর্শানোর নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, টিপুসহ অন্য ব্যক্তিরা স্বতন্ত্র প্রার্থী তালুকদার মো. তৌহিদ জং ওরফে মুরাদের পক্ষে নির্বাচনি প্রচারে জড়িত আবু সাইদকে হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়েছেন। গত সোমবার রাত ৩টায় তারা ভাগলপুর সিরামিক্স বাজারের দক্ষিণ পাশে আবু সাইদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে তার স্থাপন করা মুরাদ জংয়ের অস্থায়ী নির্বাচনি কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে চেয়ার, টেবিলসহ বিভিন্ন মালামাল ভাঙচুর করে। পরে ওই কার্যালয়ের পাশে  আবু সাঈদের বাড়িতে হামলা করে। এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার মাধ্যমে পেয়েছে নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি। এ ধরণের কর্মকাণ্ড সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা ২০০৮ এর ১১ (গ) বিধির লঙ্ঘন। 

এছাড়া নোটিশে বিধিমালা লঙ্ঘনের কারণে কেন নির্বাচন কমিশনে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন প্রেরণ করা হবে না এবং শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হবে না সে বিষয়ে মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) রকি, মো. সাইদ ও টিপুকে এবং পরদিন এনামুর রহমান, মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, ইয়াসমিন চৌধুরী সুমি ও  পারভেজ দেওয়ানকে ঢাকা-১৯ (সাভার-আশুলিয়া) আসনের নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান ও সিনিয়র সহকারী জজ জাকির হোসেনের কার্যালয়ে হাজির হয়ে লিখিত ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, নির্বাচনি অনুসন্ধান কমিটি ২জন প্রার্থীসহ ৭ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন।

সাব্বির/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়