ঢাকা     বুধবার   ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ১৯ ১৪২৯

৩-১ গোলের জয়ে শেষ আটে ফ্রান্স

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৫৯, ৪ ডিসেম্বর ২০২২   আপডেট: ২২:৫৯, ৪ ডিসেম্বর ২০২২
৩-১ গোলের জয়ে শেষ আটে ফ্রান্স

শেষ ষোলোর দ্বিতীয় ম্যাচে পোল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। ব্লুজদের হয়ে জোড়া গোল করেন তারকা স্ট্রাইকার কালিয়ান এমবাপে। অপর গোলটি করেন অলিভার জিরোড। আর শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান কমান পোল্যান্ডের রবার্ত লেভানডোফস্কি। তাতে ৩-১ ব্যবধানের জয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে দিদিয়ের দেশমের শিষ্যরা।

এমবাপের জোড়া গোলে ব্যবধান ৩-০ করলো ফ্রান্স:

ম্যাচের যোগ করা সময়ে (৯০+১) আরও একটি গোল করেন এমবাপে। তাতে ব্যবধান হয় ৩-০। এ সময় মার্কাস থুরামের বাড়িয়ে দেওয়া বল ডানদিকে বক্সের মধ্যে পেয়ে যান তিনি। সেখান থেকেই আড়াআড়ি শট নেন। বল দূরের পোস্টের উপরের অংশ দিয়ে জালে জড়ায়।

এমবাপের গোলে ব্যবধান বাড়ালো ফ্রান্স:

ম্যাচের ৭৪ মিনিটে পাল্টা আক্রমণে যায় ফ্রান্স। এ সময় মাঝ মাঠের কিছুটা সামনে নিজেদের অর্ধে বল পান এমবাপে। সামনে এগিয়ে বামদিকে বাড়িয়ে দেন ওসমানে দেম্বেলেকে। এরপর চলে যান পোল্যান্ডের ডি বক্সের সামনে। সেখানে তাকে আবার বল বাড়িয়ে দেন দেম্বেলে। বক্সে ঢুকেই বল প্রায় ১০ গজ দূর থেকে ডান পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। তার দারুণ এক গোলে ফ্রান্স এগিয়ে যায় ২-০ ব্যবধানে।

৬৩ মিনিটে এমবাপের মিস:
ওসমানে দেম্বেলের বাড়িয়ে দেওয়া বল থেকে এ সময় গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন এমবাপে। কিন্তু তার নেওয়া শট বামপাশ দিয়ে বাইরে চলে যায়।

হার্নান্দেজের সুযোগ মিস:

বিরতি থেকে ফিরেই ৪৮ মিনিটে সুযোগ পেয়েছিলেন থিও হার্নান্দেজ। কিন্তু তিনি সেটি মিস করেন।

জিরোডের গোলে এগিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করলো ফ্রান্স:

ম্যাচের ৪৪ মিনিটে অলিভার জিরোডের গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। এ সময় মাঝমাঠের একটু সামনে থেকে এমবাপেকে বল বাড়িয়ে দেন তার সতীর্থ। তিনি বল বাড়িয়ে দেন জিরোডকে। জিরোডে বক্সের ভেতরে বলের নিয়ন্ত্রণ নেন। তার সামনে ছিলেন কেবল পোল্যান্ডের গোলরক্ষক সেজেসনি। তাকে পরাস্ত করে বাম পায়ের শটে দূরের পোস্ট দিয়ে বল জালে জড়ান।

এই গোলের মধ্য দিয়ে জিরোড পেছনে ফেলেন থিয়েরে অঁরিকে। হয়ে যান ফ্রান্সের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা। জিরোডের এটি ৫২তম গোল। অঁরি করেছিলেন ৫১ গোল।

জটলার মধ্যে পোল্যান্ডের সুযোগ মিস:
ম্যাচের ৩৮ মিনিটে ফ্রান্সের ডি বক্সের মধ্যে গোলের দারুণ সুযোগ তৈরি করেছিল পোলিশরা। এ সময় পিওতর জিলিনস্কির নেওয়া শট ফ্রান্সের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় ঠেকিয়ে দেন। এরপর সেটাতে শট নেন জ্যাকুব কামিনস্কি। সেটাও ঠেকিয়ে দেন রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা। নিশ্চিত গোল খাওয়ার হাত থেকে রেহাই পায় চ্যাম্পিয়নরা।

এমবাপের শট রুখে দিলেন পোল্যান্ডের গোলরক্ষক:

৩৫ মিনিটে গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন কালিয়ান এমবাপে। এ সময় বামদিক থেকে আক্রমণে উঠে কোণাকুনি শট নেন। কিন্তু তার নেওয়া শট কর্নারের বিনিময়ে সেভ করেন পোল্যান্ডের গোলরক্ষক সেজেসনি।

ক্যাশের মিস:

৩৪ মিনিটে গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন পোল্যান্ডের ম্যাটি ক্যাশ। কিন্তু তার নেওয়া শট বাম পাশ দিয়ে বাইরে চলে যায়।

নিশ্চিত সুযোগ মিস করলেন জিরোড:

২৯ মিনিটে গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিল ফ্রান্স। এ সময় আক্রমণে ওঠে তারা। ডানদিক থেকে ওসমানে দেম্বেলে বল বাড়িয়ে দেন বক্সের মধ্যে। সেখানে ছিলেন জিরোড। গোলরক্ষক ছিলেন কিছুটা সামনে। ফাঁকা পোস্টে বল জড়াতে ব্যর্থ হন তিনি। ডাইভ দিয়ে চেষ্টা করেও জালে জড়াতে পারেননি। বল পোস্ট ঘেষে বাইরে চলে যায়।

সুযোগ মিস করলেন লেভানডোফস্কি:

২১ মিনিটের মাথায় পাল্টা আক্রমণে গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন পোল্যান্ডের রবার্ত লেভানডোফস্কি। তার নেওয়া শট অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়।

দেম্বেলের শট ধরে ফেললেন গোলরক্ষক:

১৭ মিনিটের মাথায় গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন ফ্রান্সের ওসমানে দেম্বেলে। ডি বক্সের বাইরে থেকে তার নেওয়া শট ধরে ফেলেন পোল্যান্ডের গোলরক্ষক সেজেসনি।

ভারানের মিস:

ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই কর্নার পায় ফ্রান্স। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে হেড নেন আঁতোয়ান গ্রিজমান। তার নেওয়া হেড ডানদিক দিয়ে মিস হয়।

ফ্রান্স-পোল্যান্ডের শেষ আটে যাওয়ার লড়াই শুরু:

বিশ্বকাপের নকআউট পর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ফ্রান্স ও পোল্যান্ড। আল থুমামা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হয়েছে ম্যাচটি। যা সরাসরি দেখা যাচ্ছে বিটিভি, গাজী টিভি ও টি স্পোর্টসে।

ফ্রান্সের একাদশ:
হুগো লরিস, ডেওট উপমেকানো, রাফায়েল ভারানে, থিও হার্নান্দেজ, জুলেস কাউন্ডে, আঁতোয়ান গ্রিজমান, অ্যাড্রিয়েন র‌্যাবিওট, অরেলিয়ান চৌমেনি, অলিভার জিরোড, কিলিয়ান এমবাপে ও ওসমান দেম্বেলে।

পোল্যান্ডের একাদশ:
সেজেসনি, কামিল গ্লিক, জাকুব কিভিওর, বারতোস বেরেসজিনস্কি, ক্রাইচোয়াক, সেবাস্তিয়ান জাইমানস্কি, প্রজেমিস্লা ফ্রাঙ্কোস্কি, ম্যাটি ক্যাশ, রবার্ট লেভানডোফস্কি, জ্যাকুব কামিনস্কি ও পিওতর জিলিনস্কি।

পোল্যান্ডের সঙ্গে সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে গত সাত ম্যাচে অপরাজিত ফ্রান্স, জয় তিনটি, ড্র চার ম্যাচে। তাদের শেষ হার ১৯৮২ সালের আগস্টে একটি প্রীতি ম্যাচে (০-৪ গোলে)। এ নিয়ে বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বার দেখা হতে যাচ্ছে দুই দলের। প্রথমবার দুই দল মুখোমুখি হয়েছিল ১৯৮২ সালে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে, ৩-২ গোলে জিতেছিল পোল্যান্ড।

ঢাকা/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়