ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ মাঘ ১৪২৫, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

পণ্যের নিরাপত্তায় ‘কিউআর কোড’

মোখলেছুর রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৯-০১-০৬ ৩:০৯:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০১-০৬ ৩:০৯:২০ পিএম
প্রতীকী ছবি

মোখলেছুর রহমান : বর্তমানে বিভিন্ন পণ্যের মোড়কের ওপর আড়াআড়ি কিংবা বর্গাকার কালো বিন্দুর একটি বর্গাকার আবরণ দেখতে পাওয়া যায়। এই কালো বিন্দুর আবরণ নিয়ে অনেক সময়ই আমাদের মনে অনেকের মনে কৌতূহল দেখা দিলেও বেশিরভাগই তা এড়িয়ে যাই। কিন্তু কি আছে এই কালো বিন্দুর অংশটিতে?

এই অংশটি কিউআর কোড বা বারকোড নামে পরিচিত। এর মধ্যে লুকানো থাকে বিভিন্ন পণ্যের এবং কোম্পানির বিভিন্ন তথ্য। খালি চোখে এগুলো দেখা যায় না। বিভিন্ন ডিভাইস বা স্মার্টফোন দিয়ে স্ক্যান করে এই তথ্যগুলো সম্পর্কে জানতে হয়।

কিউআর কোড কী?
কিউআর কোড বা কুইক রেসপন্স কোড মূলত এক ধরনের মেট্রিক্স বা টুডি বারকোড। অপটিক্যাল মেশিন দ্বারা পাঠ যোগ্য লেবেলকেই বারকোড  বলে। একটি পণ্য সম্পর্কিত সকল তথ্য এতে সংযুক্ত থাকে। জাপানের জনপ্রিয় অটোমোবাইল কোম্পানি টয়োটার অধীনস্থ ডেনসো ওয়েব ১৯৯৪ সালে সর্বপ্রথম কিউআর কোড ডিজাইন করে। মূলত মোড়কজাত করার সময় গাড়িকে ট্র্যাক করার উদ্দ্যশ্যেই এটি তৈরি করা হয়েছিল, যা পরবর্তীতে পুরো জাপানেই ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠে।

কী কী কাজে লাগে?
ব্যবসার প্রচারণায় এবং বিপণন ও বিক্রয়ের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই কিউআর কোড ব্যবহার করা হয়। কিউআর কোডের কিছু উল্লেখযোগ্য ব্যবহারক্ষেত্র হলো-

* পণ্যের মোড়কজাতকরণে : আপনি যেকোনো পণ্যের চূড়ান্ত প্যাকেজিং এর ওপর এই কিউআর কোড ব্যবহার করতে পারেন। এতে একটি পণ্যের ব্যাখ্যা, কার্যকারিতা, ইউজার ম্যানুয়াল, গ্রাহক সেবার জন্য যোগাযোগের নম্বর এবং কোম্পানি সংক্রান্ত সাধারণ তথ্যাবলী সংযুক্ত করতে পারেন।

* ব্যবসায়িক কার্ড এবং বিজ্ঞাপন উপকরণ : আপিন আপনার ব্যবসায়িক কার্ড এবং বিজ্ঞাপন উপকরণের ওপর এই কিউআর কোড মুদ্রণ করতে পারেন। এর ফলে স্মার্টফোনের মাধ্যমে স্ক্যান করে যে কেউ আপনার ব্যবসার বিস্তারিত বিবরণ সহ ওয়েব পেজটিও দেখতে পারবে।

* ইভেন্ট টিকেটে : কোন ইভেন্ট টিকিটে কিউআর কোড যুক্ত করলে টিকেট ক্রেতা এতে জিপিএস এর মাধ্যমে সহজেই ইভেন্টের ভেন্যুটি সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবে।

কীভাবে কিউআর কোড স্ক্যান করবেন?
যেকোনো স্মার্টফোন দিয়েই বর্তমানে এই কিউআর কোড স্ক্যান করা যায়। তবে এজন্য আপনাকে প্রথমে কিউআর অ্যান্ড বারকোড স্ক্যানার নামের একটি অ্যাপ ইনস্টল করে নিতে হবে। যেকোনো অ্যাপ স্টোরেই এই অ্যাপটি রয়েছে। অ্যাপটি ওপেন করলে অনেকটা ক্যামেরাই মতোই দেখাবে। কিউআর কোডের সামনে অ্যাপটি ধরলেই এর ভেতর কি কি তথ্য আছে সবই প্রদর্শিত হবে।

কীভাবে একটি কিউআর কোড তৈরি করবেন?
কিউআর কোড তৈরি করতে প্রয়োজন একটি কিউআর কোড জেনারেটর। জনপ্রিয় কিছু কিউআর কোড জেনারেটর হল গোকিউআর, ভিজুয়ালিড, কিউআর কোড জেনারেটর। যেকোনোটির মাধ্যমে কিউআর কোডের সঙ্গে আপনার পছন্দের ইউআরএল সংযুক্ত করে দিন। কিউআর কোডে আপনার ফেসবুক, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম সহ যেকোনো ইউআরএল যুক্ত করতে পারবেন। এরপর আপনার ইউআরএল কোড তৈরি হয়ে গেলে দেখে নিন সেটি ঠিকমতো কাজ করছে কি না। একবার সেটি শেয়ার করে দিলে কোডটি ট্রাক করতে পারবেন। এবং সেটি কতজন স্ক্যান করল তাও দেখতে পারবেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৬ জানুয়ারি ২০১৯/ফিরোজ

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC