ঢাকা     বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১১ ১৪৩১

পাবনার সেই আ.লীগ নেতা মিন্টুকে শোকজ

পাবনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৩৮, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৬:৩৯, ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩
পাবনার সেই আ.লীগ নেতা মিন্টুকে শোকজ

মন্ডতোষ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম মিন্টু

‘মন্ডতোষ ইউনিয়নে ভোট হবে উৎফুল্ল মনে, একমাত্র নৌকার। একমাত্র মকবুল সাহেবের নৌকার। এর বাইরে কোনো লোক ও কোনো এজেন্টও থাকবে না, কিচ্ছু থাকবে না।’ এমন বক্তব্য দেওয়া পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার মন্ডতোষ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম মিন্টুকে শোকজ করেছে নির্বাচন অনুসন্ধানী কমিটি।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) সকালে নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটি পাবনা-৩ এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ মো. তাজউল ইসলাম শোকজ নোটিশ দিয়েছেন নুর ইসলামকে। আগামীকাল বুধবার (২০ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় কমিটির কাছে ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাকে।

আরও পড়ুন: ‘ভোট হবে একমাত্র নৌকার, এ ছাড়া এজেন্ট থাকবে না’

নোটিশে বলা হয়েছে, আপনি নুর ইসলাম মিন্টু গত রোববার (১৭ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার মল্লিকচক গ্রামে স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে  মতবিনিময় সভায় বক্তব্যে বলেছেন, ‘মন্ডতোষ ইউনিয়নে ভোট হবে উৎফুল্ল মনে, একমাত্র নৌকার। একমাত্র মকবুল সাহেবের নৌকার। এর বাইরে কোনো লোক কোনো এজেন্টও থাকবে না, কিচ্ছু থাকবে না। আমরা মমিনপাড়া সেন্টার (ভোটকেন্দ্র) দখল করে রাখবো। আমরা ওপেন ভোট দেবো। আপনারা শুধু সহযোগিতা করবেন আমাদের।’

আপনি আরো বলেছেন যে, ‘আফসারের সাঙ্গপাঙ্গ যা আছে, ওদের হাড়-হুড্ডি ভাইঙ্গে এই এলাকা থেকে আমরা শেষ কইরে দেবো।’

এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। যা নির্বাচন-পূর্ব একটি অনিয়ম। আপনার উক্তরূপ কাজ নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন মর্মে প্রতিয়মান হয়েছে। আইন ভঙ্গের কারণে কেন আপনার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না সে মর্মে আগামীকাল বুধবার (২০ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় স্বশরীরে নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে নিজে অথবা প্রতিনিধির মাধ্যমে লিখিতভাবে ব্যাখ্যা প্রদান করতে নির্দেশ দেওয়া হলো।

এ বিষয়ে নুর ইসলাম মিন্টু বলেন, ‘নোটিশ পেয়েছি। বুধবার কমিটির কাছে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দেবো।’

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ভাঙ্গুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরাফাত হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কোনো বিষয়ে জানার থাকলে অফিসে আসেন। তারপর কথা বলবো।’ এরপর তিনি ফোন কেটে দেন।

শাহীন/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়