ঢাকা     শনিবার   ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  চৈত্র ৩০ ১৪৩০

কুবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ী নীল দল

কুবি সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:১২, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪   আপডেট: ১৭:৫৬, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
কুবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ী নীল দল

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে সভাপতি হয়েছেন পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন মার্কেটিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মেহেদী হাসান।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বেলা ৩টায় ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. মোহাম্মদ রেজাউল করিম।

এর আগে ১৫ সদস্যের কার্যনির্বাহী পর্ষদের নীল দলের ১৪ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। এবারের নির্বাচনে শুধু সাধারণ সম্পাদক পদে লড়াই হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ সম্পাদক পদে নীল দল সমর্থিত মার্কেটিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মেহেদী হাসান এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী লোক প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. জিয়া উদ্দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে মেহেদী হাসান পান ১৩০ ভোট এবং মো. জিয়া উদ্দিন পান ৪১ ভোট।

১৫ সদস্যের কার্যনির্বাহী পর্ষদের নীল দলের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ১৪ জন হলেন- সভাপতি ড. মো. আবু তাহের, সহ-সভাপতি ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন ও মো. তোফায়েল হোসেন মজুমদার, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ড. মাহমুদুল হাছান, কোষাধ্যক্ষ মো. মুর্শেদ রায়হান, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক ড. জান্নাতুল ফেরদৌস, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাহফুজুর রহমান।

এছাড়া কার্যকরী সদস্য পদে ড. বিশ্বজিৎ চন্দ্র দেব, ড. মো. শামিমুল ইসলাম, ড. দুলাল চন্দ্র নন্দী, মোহাম্মদ আইনুল হক, ড. মো. শাহাদাৎ হোসেন, স্বর্ণা মজুমদার এবং মাহমুদুল হাসান রাহাত নির্বাচিত হন।

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. রেজাউল করিম বলেন, 'একটি প্যানেল থেকে আমরা ১৫ জনের নাম দিয়েছি আরেকজন স্বতন্ত্র থেকে দাঁড়িয়েছে। একটা পদে আমরা প্রতিদ্বন্দ্বী পেয়েছি। শুধু সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। বাকী পদগুলোতে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় প্রাথমিকভাবে ১৪ জনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।'

২০১৭ ও ২০১৮ সালের শিক্ষক সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন ড. মো. আবু তাহের। এবারও তিনি সভাপতি হলেন। অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, শিক্ষক-শিক্ষার্থী একে অপরের পরিপূরক। শিক্ষার্থীদের উন্নয়ন না হলে আমাদের ভালো লাগবে না। উভয়েরই উন্নয়নে এই সমিতির সদস্যরা কাজ করে যাবে।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০২২ সালের ১ ডিসেম্বর তৎকালীন শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ভণ্ডল হওয়ার পর এক বছর বন্ধ ছিল সমিতির কার্যক্রম। এবার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) জামায়াত সমর্থিত সাদা দল কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষক সমিতির নির্বাচন বয়কট করেন।

/এমদাদুল/মেহেদী/

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়