RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৮ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ১৩ ১৪২৭ ||  ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কেন সবজি বিক্রেতা হয়েছেন জানালেন অভিনেতা

বিনোদন ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:০০, ৩০ জুন ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
কেন সবজি বিক্রেতা হয়েছেন জানালেন অভিনেতা

ভারতীয় টিভি ও চলচ্চিত্র অভিনেতা জাভেদ হায়দার। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এতে তাকে সবজি বিক্রি করতে দেখা যায়। এরপর থেকে আলোচনায় তিনি।

আমির খানের ‘গুলাম’, সালমান খানের ‘দাবাং-থ্রি‘ সিনেমায় অভিনয় করেছেন জাভেদ হায়দার। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি সবজি বিক্রি করছি না। আমি পেশায় অভিনয়শিল্পী এবং লকডাউনের কারণে এখন কিছুই করছি না। অভিনেতা হওয়ায় নিজেকে ব্যস্ত রাখতে একটি অ্যাপে মিউজিক ভিডিও নির্মাণ শুরু করি। আমার মেয়ে এই ভিডিওগুলো তৈরি করতে উৎসাহ দেয়। সবার মধ্যেই মানসিক চাপ কাজ করছে, মানুষ আত্মহত্যা করছে, আর্থিক সংকটে পড়েছে, তাদের কোনো কাজ নেই, বর্তমান পরিস্থিতি দেখে আমি ভিডিও নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিই। আমি জানি অনেক অভিনয়শিল্পী কাজ পাচ্ছেন না। শুরুতে আমি কিছু বার্তামূলক ভিডিও তৈরি করি। এরপর একজন সবজি বিক্রেতার অনুমতি  ও তার ঠেলাগাড়ি নিয়ে একটি ভিডিও শুটিং করি।’

এই অভিনেতা আরো বলেন, ‘হঠাৎ করে ভিডিওটি সবাই দেখতে শুরু করল এবং এক মিলিয়ন ভিউ হয়। আমি খুবই খুশি হলাম এবং লকডাউনের কারণে আমার ভেতরের যে অভিনেতা সত্ত্বা হতাশ হয়ে পড়েছিল তা আবার জেগে ওঠে। এরপর অনুপ্রেরণামূলক ভিডিও তৈরি শুরু করলাম। সবাইকে বললাম, কোনো কাজই ছোট নয়। সৃষ্টিকর্তার কৃপায় আমার কোনো আর্থিক সমস্যা নেই। কিন্তু ভবিষ্যতে যদি এমন কোনো পরিস্থিতিতে পড়ি তাহলে সবজি বিক্রি করতে আমার লজ্জা নেই। কারণ কোনো কাজই ছোট নয়।’

সাবেক বিগ বস প্রতিযোগী ডলি বিন্দ্রাও ভিডিওটি শেয়ার করে ক্যাপশনে লেখেন, “তিনি একজন অভিনেতা এবং এখন সবজি বিক্রি করছেন। জাভেদ হায়দার বাবর (২০০৯), টিভি সিরিজ ‘জেনি অউর জুজু (২০১২)-তে কাজ করেছেন। ২০১৭ সালে মুক্তি পেয়েছে ‘লাইফ কি অ্যাইসি কি ত্যাইসি’। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে তার কোনো কাজ নেই।”

তবে জাভেদ বলেন, “আমার সর্বশেষ বড় কাজ ‘দাবাং-থ্রি’। এটি সুপারহিট ছিল। এরপর মার্চে নতুন বাড়িতে উঠেছি। তারপরই লকডাউন শুরু হয়। প্রথমদিকে একটু হতাশ হয়েছিলাম কারণ অনেকগুলো টাকা খরচ হয়ে গিয়েছিল। এছাড়া কয়েকজন বন্ধুর দুঃসময়ে পাশে দাঁড়িয়েছি। প্রথমে ভেবেছিলাম ২১ দিন পর সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে, কিন্তু এটি চার মাস ধরে চলছে। আমিও একজন অভিনেতা। দিনশেষে আমিও কাজের জন্য হতাশ হয়ে পড়েছিলাম। তারপরই ভিডিওগুলো তৈরি শুরু করি। পাশাপাশি সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞ আমাদের কিছু অর্থ সঞ্চয় করা ছিল।”

 

ঢাকা/মারুফ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়