Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     শুক্রবার   ৩০ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ১৫ ১৪২৮ ||  ১৮ জিলহজ ১৪৪২

পরকীয়ায় জড়িয়েছিলেন যে বলিউড নায়িকারা

আমিনুল ইসলাম শান্ত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:৪২, ১২ জুন ২০২১   আপডেট: ১১:৩৫, ১২ জুন ২০২১
পরকীয়ায় জড়িয়েছিলেন যে বলিউড নায়িকারা

‘সে আমায় না হোক, কেউ অন্তত কাউকে
ভালোবাসার মতো করে ভালোবাসুক
সময় বিরুদ্ধে যাক
অসুখ তাড়া করে ফিরুক
তবু হাত না ছাড়ুক,
তবু হাত না ছাড়ুক’—রুদ্র গোস্বামীর এ কবিতার চরণগুলো যেকোনো প্রেমিক-প্রেমিকার মনে ভাবের উদ্রেগ ঘটাবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই! পৃথিবীর অনেক প্রেমিক যুগল পরস্পরের হাতে হাত রেখে কাটিয়ে দিয়েছেন এক জীবন। আবার প্রিয় মানুষটির প্রেম প্রত্যাশা করে অনেকে হাত বাড়িয়েছেন। তাদের মনে ভাব-ভালোবাসার কমতি না থাকলেও সামাজ খলনায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেছে। বলিউডের বেশ কজন অভিনেত্রী রয়েছেন, যারা সব বাধা উপেক্ষা করে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়েছিলেন। তাদের কারো প্রেম পরিণয় পেয়েছিল, কেউ কেউ বিচ্ছেদের আগুনে পুড়েছেন। বলিউডের এসব নায়িকাদের নিয়েই এই আয়োজন।

রেখা

বলিউডের চলচ্চিত্র ইতিহাসের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রোমান্টিক জুটি অমিতাভ বচ্চন ও রেখা। রুপালি পর্দায় এই জুটির সোনালি দিন পেরিয়ে গেছে বহু আগে। কিন্তু তাদের সেই চিরকালীন আবেদন আজও মলিন হয়নি। ‘দো আনজানে’ (১৯৭৬) দিয়ে তাদের রুপালি পর্দার রসায়ন শুরু, আর ‘সিলসিলা’ (১৯৮২) দিয়ে শেষ। এরই মাঝে ছড়িয়ে পড়ে এই জুটির মধ্যে স্রেফ সহকর্মীসুলভ সম্পর্ক নয়, তারও বেশি কিছু রয়েছে। ফলে তাদের সিনেমা নিয়ে যতটা না আলোচনা হয়েছে তার চেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে প্রেমকাহিনি। ‘দো আনজানে’ সিনেমা করার সময় দু’জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কের শুরু। যদিও তখন জয়া ভাদুরি অমিতাভের স্ত্রী। জনশ্রুতি রয়েছে—‘আলাপ’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় রেখার বান্ধবীর একটি বাংলোয় নিয়মিত দেখা হতো দু’জনার। এছাড়া ‘কুলি’ সিনেমার শুটিং চলাকালে মারাত্মক আহত হয়ে অমিতাভ হাসপাতালে ভর্তি হলে রেখা নাকি সেখানে ছুটে গিয়েছিলেন। সারাদিন নাকি সেখানেই বসে ছিলেন। চিকিৎসকদের বলেছিলেন, যত রক্ত লাগে আমার শরীর থেকে নিন, অমিতাভকে সুস্থ করে তুলুন। তবে এসব বিষয়ে অমিতাভ বা রেখা দুজনই বরাবরই নীরব থেকেছেন।

পারভিন ববি

বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও অভিনেত্রী পারভিন ববির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন মহেশ ভাট। প্রায় তিন বছর লিভ টুগেদার করেছেন তারা। কিন্তু প্রতারিত হওয়ায় ভেঙে পড়েছিলেন ববি। শুধু তাই নয়, ববির সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে মহেশ ভাট নির্মাণ করেন সেমি-অটোবায়োগ্রাফি সিনেমা ‘অর্থ’। এতে ববি আরো ভেঙে পড়েন। পরবর্তী সময়ে সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হন। ২০০৫ সালের ২২ জানুয়ারি নিজের ফ্ল্যাটে মৃত অবস্থায় এই অভিনেত্রীকে পাওয়া যায়। পারভিন ববির জীবনের এই করুণ পরিণতির জন্য অনেকেই মহেশ ভাটকে দোষারোপ করেন।

শ্রীদেবী

১৯৭৬ সালে জগিতা বালির সঙ্গে সংসার বাঁধেন মিঠুন চক্রবর্তী। কিন্তু তার সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল বলিউড ডিভা শ্রীদেবীর। তাদের এই পরকীয়া প্রেম কাহিনি বলিপাড়ায় কারো অজানা নয়। ১৯৮৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘জাগ উঠা ইনসান’ সিনেমার সেট থেকে তাদের প্রেমের সূত্রপাত। গুঞ্জন উঠেছিল, মিঠুনের সঙ্গে গোপনে বিয়েও সেরেছেন শ্রীদেবী। যদিও মিঠুন এই দাবি মিথ্যা বলে উড়িয়ে দেন। পরে জানা যায়, বিভিন্ন কারণে মিঠুন তাদের সম্পর্ক প্রকাশ্যে আনতে দেননি। আর সেজন্যই শ্রীদেবীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় মিঠুনের। এর মাঝে এনট্রি নেন প্রযোজক বনি কাপুর। যদিও তখন বনি কাপুর ও মোনা শৌরি বিয়ে করে সংসার করছেন। সর্বশেষ ১৯৯৬ সালে শ্রীদেবীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন বনি।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার নাম বলিউডের ‘খিলাড়ি’ খ্যাত অভিনেতা অক্ষয় কুমারের সঙ্গে জড়িয়েছিল। তাদের প্রেমের কথা বিটাউনের পথেঘাটে শোনা গেছে। অক্ষয় কুমার ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ‘আন্দাজ’, ‘মুঝসে শাদি করোগে’, ‘এতরাজ’, ‘ওয়াক্ত-রেস অ্যাগেইনস্ট টাইম’ সিনেমায় একসঙ্গে কাজ করেছেন। অক্ষয়ের স্ত্রী সাবেক বলিউড তারকা টুইংকেল খান্না তাদের প্রেমকাহিনি শুনে রাগে ফেটে পড়েছিলেন। এমনকি অক্ষয়কে ছেড়ে যাওয়ার হুমকি পর্যন্ত দিয়েছিলেন তিনি। এ ঘটনার পর বলিউডের ‘খিলাড়ি’ আর প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সম্পর্ক রাখেননি। টুইংকেল খান্না শর্ত দিয়েছিলেন—‘অক্ষয় যেন কোনো দিন আর প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে কোনো সিনেমা না করেন।’ অক্ষয় কুমার এখনো তার স্ত্রীকে দেওয়া কথা মেনে চলছেন।

মালাইকা আরোরা

১৯৯৮ সালে আরবাজ খানের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন মালাইকা আরোরা। ২০১৬ সালে দীর্ঘ ১৮ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানতে আদালতে বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করেন এই দম্পতি। ২০১৭ সালের মে মাসে তাদের বিচ্ছেদ মঞ্জুর করেন মুম্বাইয়ের বান্দ্রার পারিবারিক আদালত। তবে গুঞ্জন রয়েছে, আরবাজের সঙ্গে মালাইকার দাম্পত্য কলহের কারণ অভিনেতা অর্জুন কাপুর। যদিও শুরুতে বিষয়টি স্বীকার করেননি তারা। তবে মালাইকা-অর্জুনের প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি এখন কারো অজানা নয়। খুব শিগগির বিয়ে করবেন বলেও শোনা যাচ্ছে।

কঙ্গনা রাণৌত

২০০০ সালে সুজান খানকে বিয়ে করেন বলিউড অভিনেতা হৃতিক রোশান। তাদের ঘর আলো করে আসে দুই পুত্রসন্তান। ভালোই চলছিল তাদের সংসার জীবন। ২০০৯ সালে ‘কাইট’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় কঙ্গনার সঙ্গে হৃতিকের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। এ সময়ে সুজানের সঙ্গে হৃতিকের দাম্পত্য জীবন ভালো যাচ্ছিল না! কঙ্গনাও কিছু বিষয় নিয়ে ঝামেলায় ছিলেন। তারপর অনেকটা সময় কেটে যায়। পরবর্তীতে তারা পরস্পরের সান্নিধ্যে আসেন এবং একে অন্যের আরো ভালো বন্ধু হয়ে উঠেন। আর তাদের এই বন্ধুত্ব হৃতিকের স্ত্রীর কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ২০১৩ সালে ‘কৃষ-থ্রি’ সিনেমায় তারা আরো কাছে আসেন। জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। ২০১৪ সালে বিয়েবিচ্ছেদ ঘটে সুজান-হৃতিকের। যদিও কঙ্গনা-হৃতিকের সম্পর্ক স্থায়ী হয়নি।

ঢাকা/শান্ত

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়