RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১৪ ১৪২৭ ||  ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বাবাকে না জানিয়ে চলছে তামান্নার ‘তারুপাট’  

শেখ নাসির উদ্দিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:১১, ২৮ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১২:৪০, ২৮ নভেম্বর ২০২০
বাবাকে না জানিয়ে চলছে তামান্নার ‘তারুপাট’  

পড়ার টেবিলের এক পাশে পাঠ্যবইয়ের সারি আর অন্য পাশের জায়গাজুড়ে কোথায় রঙ-তুলি অথবা বাহারি পেন্সিল ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। আর এই টেবিল ঘিরেই একটি জগৎ তৈরি হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মুশফিকা জাহান তামান্নার।

কখনো টেবিলের পাশের জানালা দিয়ে বিকেলবেলার ডুবে যাওয়া সূর্যের দিকে অপলক তাকিয়ে থাকা। আবার যখন শীতের রৌদ টেবিলে আলো ফেলে, তখন চলে পড়াশোনা। একটু অবসাদ এলে এই টেবিলেই রঙ-তুলি নিয়ে কখনো বুক মার্ক আঁকা আবার কখনো কাঠে বাহারি নকশায় চলে গহনা তৈরির শৈল্পিক কারুকাজ। শিল্পীর ক্যানভাস তো সারাদুনিয়া, তাই তামান্নাও কখনো থেমে থাকে না।

আরও অবাক করা তথ্য হলো তামান্না নিজের এই সৃজনশীলতাকে কাজে লাগিয়ে আত্মনির্ভশীল হয়েছেন। নিজের হাতে আঁকা বুক মার্ক আর কাঠে নানা নকশায় তৈরি গহনা বিক্রি করেছেন ফেসবুক পেজ ‘তারুপাট’ থেকে। ইতোমধ্যে ব্যাপক সাড়াও পেয়েছেন তরুণ এই উদ্যোক্তা।

তার ফেসবুক পেজ ‘তারু পাট’ থেকে এখন নিয়মিত বিক্রি হচ্ছে কাঠের গহনা, বুক মার্ক আর মেটালের গহনা। এতে মাস শেষে বেশ আয়ও করেছেন।

মুশফিকা জাহান তামান্না বলেন, ‘শুধু মেয়েদের নয়, প্রতিটি মানুষকে আত্মনির্ভশীল হওয়া উচিত। কারণ জীবনে কখন কোন পরিস্থিতি সামলাতে হয় বলা যায় না। আর আমি যদি পড়াশোনা ও সামাজিকতা বজায় রেখে কোনো কাজ করতে পারি, তাহলে সমস্যা কোথায়! এখন মেয়েরা পিছিয়ে নেই। আর তথ্য প্রযুক্তির যুগে এগিয়ে যাওয়ার পথে আগের মতো বাঁধা আছে বলে মনে করি না। এখন অনেক মেয়ে অনলাইনে ব্যবসা করছে। তাই সবাইকে বলবো নিজের সৃজনশীলতা কাজে লাগান।

তামান্নার বলেন, ‘করোনার প্রথম দিকে বাসায় বসে থাকতে ভালো লাগত না। একদিন ফেসবুকে কাঠের গহনা দেখি। তারপর মনে হয় আমি তো আঁকতে পারি। এরপর আমার টিউশন আর উপবৃত্তির জমানো টাকা দিয়ে অনলাইন থেকে প্রয়োজনীয় উপকরণ অর্ডার দিলাম। এরপর কাঠে নিজের মতো আঁকতে শুরু করলাম। ফেসবুক পেজ খুলে মানুষের সাড়াও পেলাম। এভাবেই শুরু হলো তারুপাটের যাত্রা।’

তামান্না আরও বলেন, ‘বিশ্বাসযোগ্য ডেলিভারি সার্ভিস পাচ্ছিলাম না বলে সমস্যা হচ্ছিল। কিন্তু এখন আর সেই সমস্যা নেই। পরিবারের সবাই সহযোগিতা করলেও বাবা চান না আমি ব্যবসা করি। তাই বাবাকে লুকিয়ে আমি অনলাইনে ব্যবসা করছি। বাবা মনে করেন পড়াশোনার ক্ষতি করে অন্যকিছু করার দরকার নেই। আমার বন্ধুরা সবসময় পাশে ছিল।’

এসবের পাশাপাশি ভবিষ্যতে তারুপাটে নিজের আঁকা কাপড় যোগ করতে চান তরুণ উদ্যোক্তা মুশফিকা জাহান তামান্না।

তারু পাট-https://www.facebook.com/tarupaat/

লেখক: শিক্ষার্থী, ছাফদার আলী কলেজ। 

টাঙ্গাইল/মাহি

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়