ঢাকা     বুধবার   ২৯ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪৩১

যে লাইব্রেরিতে নেই কোনো বই

হৃদয় তালুকদার || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:০৪, ১৯ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ১১:১০, ১৯ এপ্রিল ২০২৪
যে লাইব্রেরিতে নেই কোনো বই

লাইব্রেরি অব থিংকস-এর একাংশ। ছবি: সংগৃহীত

লাইব্রেরি! শব্দটি কল্পনা করলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে বইয়ের স্বর্গ! সারি সারি বই থেকে পাঠক পছন্দমতো বই নিতে পারেন। কিন্তু এমন লাইব্রেরিও আছে যেখানে বইয়ের বদলে তৈজসপত্র পাওয়া যায়।

এমন এক অভিনব লাইব্রেরির দেখা মিলবে লন্ডনে। এটির নাম ‘লাইব্রেরি অব থিংকস’। এখানে বই নেই, তবে পাওয়া যায় ওয়াশিং মেশিন, গ্লাস, সাউন্ড সিস্টেমসহ বিভিন্ন জিনিস। স্থানীয় বাসিন্দারা সেখান থেকে চাইলে নির্ধারিত ভাড়ার বিনিময়ে নিতে পারেন তৈজসপত্র।

২০১৬ সালে লন্ডনের বাসিন্দা রেবেকা  ট্রেভালিয়নের উদ্যোগে শুরু হয় রিসাইকেল মুভমেন্ট। এই রিসাইকেল মুভমেন্ট থেকেই জন্ম হয় লাইব্রেরি অফ থিংসের। মানুষের ব্যবহৃত বা ফেলে দেওয়া জিনিস যে নতুন করে আবারো ব্যবহার করা যায় সে বিষয় তুলে ধরতে কাজ শুরু করেন রেবেকা। রেবেকার স্বপ্ন ছিলো সারাবিশ্বের মানুষ যেন তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফেলে না দিয়ে, নতুন করে ব্যবহার করে; সেই বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করা।  সম্পদের অপচয় ও আবর্জনা থেকে রক্ষা পাওয়ার বিষয়টিও সে সময় তুলে ধরেন রেবেকা। এই লাইব্রেরিতে যেসব তৈজসপত্র পাওয়া যায়, তার সব জিনিসই সংগ্রহ করা হয়েছে আবর্জনার স্তুপ থেকে।

জিনিসপত্রের অপচয় রুখতেই মূলত লাইব্রেরি অফ থিংসের যাত্রা শুরু হয়। লন্ডন শহরে এই ধরনের ৬টি লাইব্রেরি রয়েছে। নারীদের মাধ্যমে পরিচালিত এই লাইব্রেরিতে সদস্য সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৬ হাজার। এ পর্যন্ত ৫০ হাজার টনের অধিক বর্জ্য তারা প্রক্রিয়াজাত করে ব্যবহার উপযোগী করেছেন। পুরাতন এসব জিনিস প্রক্রিয়াজাত করে অভাবীদের ব্যবহার করতে দিয়েছেন এই লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষ। 

/লিপি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়