ঢাকা     মঙ্গলবার   ১১ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৭ ১৪২৭ ||  ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

কাশ্মিরে গুলিতে নিহত দাদার বুকে বসে থাকা শিশুর ছবি ভাইরাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:০৪, ২ জুলাই ২০২০  
কাশ্মিরে গুলিতে নিহত দাদার বুকে বসে থাকা শিশুর ছবি ভাইরাল

ভারত শাসিত কাশ্মিরের সোপুরে গুলিতে নিহত দাদার বুকে বসে থাকা শিশুর আর্তনাদের একটি ছবি প্রকাশিত হতেই ক্ষোভে উত্তাল মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চল। নিহতের পরিবারের অভিযোগ নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেছেন ৬৫ বছরের ওই বৃদ্ধ। কাতারের সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এক প্রতিবেদনে এই খবর জানিয়েছে।

নিহত বশির আহমেদের ভাই নাজির আহমেদ বলেন, ‘আমার ভাই জঙ্গি ছিল না। সে বন্দুক সঙ্গে রাখতো না। কেন তাকে হত্যা করা হলো?’

পুলিশ পরিবারটির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা বলছে, সন্ত্রাসীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর গোলাগুলির মধ্যে পড়ে যায় ওই ব্যক্তির গাড়ি। কাশ্মির পুলিশের মহাপরিদর্শক বিজয় কুমার বলেছেন, বুধবার মসজিদ থেকে জঙ্গিরা নিরাপত্তা বাহিনীর দিকে গুলি ছুড়লে পাল্টা গুলি চালায় তারা। তাতে একজন নিরাপত্তা সদস্য নিহত ও তিনজন আহত হন।

নিরাপত্তা বাহিনীকে দোষী করতে ওই পরিবারকে জঙ্গিরা চাপ দিচ্ছে বলে দাবি করলেন এই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা।

কিন্তু পুলিশের এই দাবির প্রেক্ষিতে বশিরের ছেলে সুহাইল আহমেদ বলেছেন, ‘ফোনে প্রথমে আমাদের জানানো হলো বাবার দুর্ঘটনা ঘটেছে। সোপুরে পৌঁছানোর পর আমাদের বলা হলো ক্রসফায়ারে মারা গেছেন তিনি। যদি ক্রসফায়ারই হতো, তাহলে তাকে গাড়ির ভেতরেই পাওয়া যেতো। কিন্তু তার মৃতদেহ রাস্তায় পড়ে ছিল।’

বশিরের ভাতিজা আইজাজ আহমেদ বার্তা সংস্থা আনদোলুকে জানান, তার চাচার গাড়ির কোনও ক্খষতি হয়নি, এমনকি একটি আঁচড়ও পড়েনি।’ তার দাবি, গাড়ি থেকে নামিয়ে এনে হত্যা করা হয়েছে বশিরকে।

পরিবারের সদস্যরা আরও অভিযোগ করেন, ‘ছবি তোলার জন্য’ ওই শিশুকে মৃতদেহের বুকে বসিয়ে রাখা হয়েছিল। দাদার বুকে বসে থাকার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ভারতের সরকারি দল ভারতীয় জনতা পার্টির একজন মুখপাত্র এমন ছবি তোলার জন্য ব্যঙ্গ করেছেন, ‘পুলিৎজার প্রেমী?’

তবে ওই বৃদ্ধের নিহতের পর বুধবার থেকে কাশ্মিরের শতাধিক লোক আন্দোলনে নামে। শ্রীনগরে বশিরের দাফন শেষে বিক্ষোভকারীরা স্লোগান দেয়, ‘আমরা মুক্তি চাই (ভারত শাসন থেকে)।’ মার্চে লকডাউনের পর থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর জঙ্গিবিরোধী অভিযান তীব্র হয়েছে।

জম্মু কাশ্মির কোয়ালিশন অব সিভিল সোসাইটির তথ্যসূত্রে অধিকার সংগঠনগুলো জানিয়েছে, জানুয়ারি থেকে শতাধিক সামরিক অভিযানে অন্তত ২২৯ জন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৩২ সাধারণ মানুষ রয়েছেন আর জঙ্গি ১৪৩ জন। নিরাপত্তা বাহিনীর ৫৪ জন প্রাণ হারান।


ঢাকা/ফাহিম

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়