ঢাকা     শুক্রবার   ১২ আগস্ট ২০২২ ||  শ্রাবণ ২৮ ১৪২৯ ||  ১৩ মহরম ১৪৪৪

রাতে খাওয়ার পর হাঁটার পাঁচ উপকারিতা

এস এম ইকবাল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:০৭, ৪ আগস্ট ২০২২  
রাতে খাওয়ার পর হাঁটার পাঁচ উপকারিতা

রাতে খাওয়ার পরপরই ঘুমিয়ে পড়েন অথবা অলস বসে থাকেন? এটা কিন্তু ভালো অভ্যাস নয়। গবেষণা বলছে, রাতে খাওয়ার পর অল্প হাঁটাচলা করলে দারুন উপকার মিলে।

নিউ ইয়র্ক’স স্পোর্টস সায়েন্স ল্যাবের বায়োকেমিস্ট ও স্পোর্টস সায়েন্টিস্ট জুয়ান ডিলগাডো বলেন, ‘খাওয়ার পর হাঁটলে বা শরীরচর্চা করলে অনেক উপকার হয়। এটি রক্ত শর্করা কমায়, আন্ত্রিক নড়াচড়া বৃদ্ধি করে, ভালো ঘুমাতে সাহায্য করে এবং রক্ত চলাচল বাড়ায়।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রিসিশন নিউট্রিশনের অন্তর্গত পারফরম্যান্স নিউট্রিশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর অ্যাডাম ফেইট বলেন, ‘খাওয়ার পর হাঁটলে দ্রুত নয়, ধীরে হাঁটবেন। প্রতি মিনিটে ১০০ স্টেপের বেশি নয়। দ্রুত হাঁটলে পরিপাকতন্ত্রে রক্তপ্রবাহ কমে যেতে পারে, কারণ শরীর তখন ক্রিয়াশীল পেশিকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। এর ফলে হজম বিলম্বিত হতে পারে।’ এখানে রাতে খাওয়ার পর হাঁটার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে বলা হলো।

* ভালো হজমে সাহায্য করে

খাওয়ার পর শরীর খাবার ভাঙতে শুরু করে এবং পুষ্টি যেখানে প্রয়োজন সেখানে পাঠিয়ে দেয়।  ডা. ডিলগাডো বলেন, ‘হাঁটলে এই প্রক্রিয়া দ্রুত ও সহজ হয়।’ খাবার দ্রুত হজম হলে পেট ফেঁপে যাওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস পায়। আপনার খাবার খাওয়ার পর আলস্যে সময় কাটানোর অভ্যাস থাকলে এবং প্রায়সময় পেটফাঁপায় ভুগলে, তাহলে খাওয়ার পর একটু হাঁটাহাঁটি করতে পারেন- বিশেষ করে রাতে, কারণ ঘুমের সময় হজম ধীর হয়ে পড়ে।

* রক্ত শর্করা নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে

ডা. ফেইট বলেন, ‘খাওয়ার পর খাবার ভেঙে শক্তিতে রূপান্তর হয়, যা শরীর ব্যবহার করে থাকে।’ আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- রাতে খাওয়ার পর ১০ মিনিট হাঁটলে দিনের অন্যান্য সময়ের তুলনায় রক্ত শর্করা ভালোভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়। এটা ইনসুলিন সেনসিটিভিটি বা টাইপ ২ ডায়াবেটিসের মতো বিপাকীয় সমস্যার ঝুঁকি কমিয়ে ফেলে।’

* সুখের হরমোন বৃদ্ধি করে

মায়ো ক্লিনিকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- শরীরে এন্ডোরফিনের মতো সুখের হরমোন বাড়াতে ১০ মাইল দৌঁড়াতে হবে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই, ১০ মিনিট হাঁটলেও এসব হরমোন উৎপন্ন হতে পারে। ডা. ডিলগাডো বলেন, ‘রাতে খাওয়ার পর হাঁটলে সুখের হরমোন সেরোটোনিন নিঃসরিত হয়- এই নিউরোট্রান্সমিটার ঘুমের মান বাড়ায়, ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে রাখে, শিখন সামর্থ্য ও স্মৃতিশক্তি বাড়ায় এবং সুখানুভূতি বৃদ্ধি করে।’

* সংবহনতন্ত্র উন্নত করে

রাতে খাওয়ার পর হাঁটলে সংবহন কার্যাবলি বৃদ্ধি পায়। যখন আমরা হাঁটি, আমাদের শরীর বেশি করে রক্ত পাম্প করে। ডা. ডিলগাডো বলেন, ‘হাঁটলে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি পায়, যা পেশির জন্য প্রয়োজন। কেবল পেশি নয়, প্রান্তীয় অঙ্গ ও বিভিন্ন অর্গানও পর্যাপ্ত রক্ত পেয়ে উপকৃত হয়।সর্বোপরি, সংবহনতন্ত্রের সুস্থতা বজায় থাকে, যার ফলে শরীরের সকল অংশ প্রয়োজনীয় পুষ্টি পেয়ে ভালোভাবে কাজ করতে পারে।’

* ঘুমের মান বাড়ায়

রাতে খাওয়ার পরপরই শুতে যাওয়া উচিত নয়। বরং প্রতিরাতে একটি নির্দিষ্ট সময়ে খাবার খেয়ে একটু হেঁটে নিলে ভালোভাবে ঘুমানো সম্ভব হবে। ডা. ডিলগাডো বলেন, ‘রাতে খাওয়ার পর হাঁটলে দ্রুত ঘুম আসে ও ভালো ঘুম হবে। কারণ হাঁটলে সুখের হরমোন সেরোটোনিন উৎপন্ন হয়, যা ঘুমের হরমোন মেলাটোনিনের প্রিকার্সর।'

/ফিরোজ/

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়