ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||  আশ্বিন ১২ ১৪২৯ ||  ২৯ সফর ১৪৪৪

ঘুমিয়ে বাড়তি ওজন কমাবেন যেভাবে

মুজাহিদ বিল্লাহ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৩২, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২  
ঘুমিয়ে বাড়তি ওজন কমাবেন যেভাবে

মুখরোচক খাবার খেয়ে শরীরে মেদ জেমেছে, বেড়েছে ওজন। অতিরিক্ত ওজন নিয়ে চিন্তিত নন, এমন মানুষ কম। কাজের চাপে নিয়মিত হাঁটা কিংবা শরীরচর্চা করা সম্ভব হয় না অনেকেরই। ওজন কমানোর দুশ্চিন্তায় ঘুম না এলেও সেই ঘুমেই রয়েছে ওজন কমানোর টোটকা। অবাক হওয়ার কিছু নেই। ঘুমের মধ্যেও কমবে ওজন- এমন কথা বলছে গবেষণা।

ঘুম আমাদের দেহ ও মস্তিষ্কের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক ঘুমের নিয়ম মেনে চললেই শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমানো সম্ভব। ঘুমানোর সময় শরীরে বিপাকের হার সবচেয়ে বেশি কাজ করে তাই ঘুম মেদ কমানোর উত্তম পন্থা বলে মনে করছেন একদল স্বাস্থ্যবিশেষজ্ঞ। 

তাদের মতে, সঠিক নিয়মে ঘুমানোর অভ্যাস শরীরের মেদ কমিয়ে শরীর ফিট রাখতে পারে। একটা নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চললে শরীরের মেটাবলিজম রেট নিয়ন্ত্রণে থাকে। একজন মানুষের জন্য ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে অনেকেই আবার ঘরে হালকা আলো জ্বালিয়ে রাখেন। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে সম্পূর্ণ অন্ধকারে ঘুমালে শরীরে ক্যালোরি বার্ন বেশি হয়।

মেদ কমানোর জন্য ঘুমানোর আগে খাবার খাওয়ার ক্ষেত্রেও সতর্ক থাকতে হবে। অন্তত ঘুমানোর ১.৫-২ ঘণ্টা আগে খেতে হবে রাতের খাবার। অনেকে খেয়েই শুয়ে পড়েন। এই অভ্যাস মেদ বাড়াতে সাহায্য করবে। খেতে হবে হালকা খাবার যাতে প্রোটিন রয়েছে। পুষ্টিকর হালকা খাবার খাওয়ার অন্তত ২ ঘণ্টা পর বিছানায় যেতে হবে। 

ক্যাসেইন প্রোটিন এক ধরনের দুগ্ধজাত প্রোটিন, যা হজম হতে অনেকটা সময় নেয়। তাই রাতে যদি এই ধরনের কোনো প্রোটিন শেক খেতে পারেন, তাহলে সারা রাত ধরে আপনার হজম প্রক্রিয়া সচল থাকবে। ক্যালোরিও ঝরবে। 

এছাড়াও মেদ কমাতে চাইলে পরতে হবে পাতলা কাপড়। ঘুমানোর আগে অনেকেই মোটা কাপড় পরে ঘুমাতে যান, যা একেবারেই ঠিক নয়। অনেকেই টাইট পোশাক পরেও ঘুমান, এতে শরীরে রক্ত চলাচলে সমস্যা হয়। মোটা ও ঢাকা পোশাক থাকার ফলে নিজেকে গরম রাখতে শরীরকে খুব একটা শ্রম করতে হয় না, ফলে ক্যালোরি বার্ন কম হয়। তাই ঘুমের মধ্যেও শরীরের ক্যালোরি কমাতে চাইলে হালকা কাপড়ই উত্তম পোশাক।

ঘুমানোর আগে ফোন চালানোর অভ্যাস এখন অনেকেরই- এটা ঠিক নয়। মোবাইল, টিভি ও ল্যাপটপের স্ক্রিন থেকে আসা নীল আলো শরীরে মেলাটোনিন হরমোন উৎপাদন বন্ধ করে দেয়। মেলাটোনিন ক্যালোরি ঝরানোর অন্যতম প্রধান উপাদান। এই হরমোন ঠিকঠাক না পেলে মেদ কমানো সম্ভব নয়, তাই ঘুমাতে যাওয়ার আগে এসব ডিভাইস ব্যবহার না করেই ভালো। 

রুমে এসি থাকলে এসি চালিয়ে ঘুমান। এসি না থাকলে গরম পানিতে স্নান করে নিন, মাথা না ভিজিয়ে শরীর ভেজান। ফ্যান চালিয়ে ঘুমান। ঘুমের মধ্যে নিজেকে গরম রাখতে শরীর নিজেই বেশি ক্যালোরি খরচ করে। এতে সহজেই শরীরের মেদ কমে। ঠান্ডা কিংবা এজমার সমস্যা থাকলে অবশ্য ভিন্ন কথা, তখন বিষয়টি এড়িয়ে চলতে হবে। 

/তারা/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়