Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৭ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ১১ ১৪২৮ ||  ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

Risingbd Online Bangla News Portal

জাতীয় লিগ: ইয়ো ইয়ো টেস্টে ক্রিকেটারদের ফিটনেস পরীক্ষা

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:০৩, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৭:১৬, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
জাতীয় লিগ: ইয়ো ইয়ো টেস্টে ক্রিকেটারদের ফিটনেস পরীক্ষা

অক্টোবরে পুরোদমে ঘরোয়া ক্রিকেট ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছে বিসিবি। জাতীয় ক্রিকেট লিগ দিয়ে ২০২১-২২ মৌসুমের ক্রিকেট ক্যালেন্ডার শুরু করার পরিকল্পনা। এরপর বিপিএল, ঢাকা লিগ ও বিসিএল আয়োজন করা হবে।

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর চলতি বছরের ২২ মার্চ শুরু হয় জাতীয় ক্রিকেট লিগ। কিন্তু দুই রাউন্ডের খেলা না হতেই অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায় লিগের খেলা। নতুন মৌসুমে নতুন করে শুরু হবে জাতীয় লিগ। বিভাগীয় দলগুলোকে এরই মধ্যে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। শিগগিরই খেলোয়াড়দের ফিটনেস পরীক্ষা হবে। ইয়ো ইয়ো টেস্ট দিয়ে ফিটনেস টেস্ট নেবে বিসিবি।

জাতীয় নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন আজ রোববার বলেছেন, ‘এবার আমরা একটু সময় নিয়েই জাতীয় ক্রিকেট লিগ শুরু করতে যাচ্ছি। দলগুলোকে যথেষ্ট সময় দেওয়া হচ্ছে। সাধারণত যখন জাতীয় লিগ শুরু করি, দলগুলো খুব একটা সময় পায় না। এবার প্রায় এক মাসের সময় পাচ্ছে।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘২০-২২ জনের একটা দল করে দেওয়া হয়েছে। এখন ফিটনেস ট্রেনিং চলছে। ১ অক্টোবর থেকে ফিটনেস টেস্ট হবে। এর আগে ওরা ট্রেনিংয়ের সুযোগ পায়নি। এবার সুযোগটা করে দেওয়া হয়েছে। ফিটনেস টেস্টের পর আমরা ১৬ জনের দল করে দিব। সবসময় আমরা ১৪ জনের দল দেই। এবার করোনার জন্য দুইজন বেশি রাখা হচ্ছে। এরপর ওরা টুর্নামেন্টে চলে যাবে।’

গত বছর থেকে ইয়োইয়ো টেস্ট দিয়ে ফিটনেস পরীক্ষা হয়েছিল ক্রিকেটারদের। এবারও ইয়ো ইয়ো টেস্ট থাকছে। এর আগে অনেক বছর ধরে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ফিটনেস যাচাই করা হতো বিপ টেস্ট দিয়ে। ইয়োইয়ো ও বিপ টেস্টের মূল পার্থক্য বিরতিতে। বিপ টেস্টে বিভিন্ন ধাপে টানা দৌড়াতে হয়। কোনো বিরতি থাকে না। ইয়ো ইয়ো টেস্টে বিভিন্ন ধাপে দৌড়াতে হয়। কিন্তু সেখানে ১০ সেকেন্ডের বিশ্রাম নেওয়া যায়। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ডসহ অনেক দেশ ফিটনেস দেখতে জন্য এই আধুনিক টেস্ট ব্যবহার করে।

আয়োজকরা হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে জাতীয় লিগ আয়োজন করার ব্যাপারে বারবার আশা দেখালেও কখনো তা পারেনি। এবারও তা সম্ভব হচ্ছে না। এবারের ‘অজুহাত’ কোভিড পরিস্থিতি। হাবিবুল বাশার সেই কথাই বললেন, ‘কোভিডের সঙ্গে আমাদের এখনো লড়াই করতে হচ্ছে। ট্রাভেলিংটা একটু ঝুঁকিপূর্ণ। ট্র্যাভেলিংটা করতে গিয়েই গতবার আমাদের বন্ধ হয়েছে। এখন পর্যন্ত যতদূর জানি দুটি ভেন্যুতে খেলা হবে। একটা কক্সবাজার, আরেকটা সিলেটে। পরিস্থিতি উন্নতি হলে আমরা নতুন করে ভাবতে পারব।’

ঢাকা/ইয়াসিন/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়