ঢাকা     বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ২ ১৪২৯ ||  ১৮ মহরম ১৪৪৪

ঈদের এক সপ্তাহ আগেই সাদমানের খামারের সব গরু বিক্রি 

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪১, ৫ জুলাই ২০২২   আপডেট: ১৮:৫৩, ৫ জুলাই ২০২২
ঈদের এক সপ্তাহ আগেই সাদমানের খামারের সব গরু বিক্রি 

পেশাদার ক্রিকেটারদের অনেকেই নানা ধরনের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। বেশিরভাগই রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করেন। তবে ব্যতিক্রমও দেখা গেছে। যেমন টেস্ট দলের ক্রিকেটার সাদমান ইসলাম। এক কথায় তিনি ‘গরুর খামারি’। 

রাজধানীর ডেমরা এলাকায় সাদমানের গরুর খামার, যেটা তাদের পারিবারিক ব্যবসা। দাদা-বাবার পথ অনুসরণ করে ভাইয়ের সঙ্গে করছেন গরুর ব্যবসা। অবশ্য তার বাবা এখনও সময় দেন খামারে। আর সব দেখাশোনা করেন সাদমানের ছোট ভাই। 

কদিন বাদেই ইসলাম ধর্মালম্বীদের উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম ধর্মালম্বীরা সামর্থ্য অনুযায়ী পশু কোরবানি দিয়ে থাকেন এই দিনে। আর গরুর খামারিদেরও মূল ব্যবসা এই ঈদকে কেন্দ্র করেই। সারা বছর গরু লালন পালন করে খামারিরা তাকিয়ে থাকেন এই সময়ের দিকে। সাদমানও তাদের একজন। 

সাদমানের গরুর খামার তার নামেই- সাদমান অ্যাগ্রো। রাইজিংবিডির সঙ্গে খামার নিয়ে আলাপে প্রথমেই নারাজি। এনিয়ে কথা বলতে না চাওয়ার কারণটা ব্যাখ্যা করলেন সাদমান, 'আসলে আমি এটা নিয়ে কথা বলতে চাই না। অনেকেই বলে আমি নাকি শুধু খামারে সময় দেই। বিষয়টাকে খারাপভাবে নেয়। পেছন থেকে কথা বলে। তাই আমিও চুপচাপ থাকি। খামার নিয়ে এত কিছু করি না।'

তারপরও খামার নিয়ে অল্পস্বল্প কথা বললেন সাদমান। মূল কথা- তিনি সময় দেন না। অবশ্য কীভাবে খামারের ব্যবসায় এসেছেন সেটা জানালেন, 'খামারের ব্যবসাটা বংশপরম্পরায় এসেছে। আমার দাদা-বাবারা করতেন। এখন আমরা করছি। মূলত আমার বাবা আর ভাই দেখে থাকেন খামার। আমার ছোট ভাই এখনও খামারে। আমি মাঝে মাঝে যাই, বসে থাকি। দেখাশোনা আমি করি না।' 

সাদমান খামারে না গেলেও টুকিটাকি সবই খোঁজ রাখেন। চওড়া হাসিতে জানালেন, এবার সবগুলোই গরু বিক্রি করে ফেলেছেন, 'সপ্তাহখানেক আগেই আমাদের প্রায় সব গরু বিক্রি হয়ে গেছে। প্রায় ৪০টা গরু। সবগুলোই বিক্রি হয়ে গেছে। ছোট-মাঝারি ধরনের গরু ছিল সব কিছু। ওদিকের লোকজন, আমার আত্মীয়সজন (ডেমরা) সব নিয়ে গেছে।' 

লাভ কেমন হয়েছে? সাদমান সরাসরি কোনো উত্তর দিতে চাননি। বিক্রি হয়েছে প্রায় কোটি টাকার গরু। তিনি বলেন, 'বিক্রিতে কোনো ঝামেলা হয়নি। খামার পরিচালনায় যে খরচ তার থেকে অল্প লাভে বিক্রি করে দিয়েছি। বেশি লাভের আশায় আটকে রাখিনি। আমাদের গরু সর্বোচ্চ বিক্রি হয়েছে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকায়।'

সাদমান বাংলাদেশের হয়ে ১৩টি টেস্ট খেলেছেন। ২৩.২৯ গড়ে তার রান ৫৫৯। অফ ফর্মের কারণে বাদ পড়েছেন। কয়েকদিন ধরে জ্বর থাকায় বাসায় কাটাচ্ছেন। ঈদের পর আবার অনুশীলন শুরু করবেন।

ঢাকা/রিয়াদ/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়