RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১১ ১৪২৭ ||  ০৭ রবিউস সানি ১৪৪২

সেবাবঞ্চিত কালেঙ্গা পাহাড়ের ৪০০ পরিবার 

মামুন চৌধুরী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১২, ৩০ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১২:৫৭, ৩০ অক্টোবর ২০২০

হবিগঞ্জ শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে চুনারুঘাট উপজেলা। এ উপজেলা থেকে আরও ৭ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিলে পৌঁছানো সম্ভব কালেঙ্গা বনে। কালেঙ্গার বিভিন্ন টিলায় বাস করে ৪০০ পরিবার। যোগাযোগ ব‌্যবস্থা উন্নত না হওয়ায় এখানে যান না পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের লোকজন। ফলে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এ পাহাড়ের বাসিন্দারা।

সরেজমিন পরিদর্শনকালে কালেঙ্গার কালিয়াবাড়ি ত্রিপুরা পল্লীর বাসিন্দা মধুরাণী দেববর্মা বলেন, ‘পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কোনো কর্মী আমাদের কাছে আসে না। চিকিৎসার প্রয়োজনে কয়েক কিলোমিটার পায়ে হেঁটে চামলতলী বাজার হয়ে সিএনজি অটোরিকশা করে উপজেলা শহরে গিয়ে সেবা নিতে হয়। এভাবে সেবা নেওয়া কঠিন।’

রঙমালা দেববর্মা, গিলাপতি দেববর্মা, কমলা দেববর্মা বলেন, ‘পাহাড়ে আমাদের জন্ম, মৃত্যুও যেন এখানেই হয়। এ স্থানটা আমাদের কাছে খুব প্রিয়। পাহাড় রক্ষা করতে আপ্রাণ চেষ্টা চালাই। আমরা টিলা ও গাছ কাটি না, এসব রক্ষায় কাজ করি। তবে আমরা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সেবা থেকে বঞ্চিত।’ 

কালিয়াবাড়ির ত্রিপুরা পল্লীর হেডম্যান বিনয় দেববর্মা বলেন, ‘কালেঙ্গা বনবিটের আওতাধীন কালিয়াবাড়ি ত্রিপুরা পল্লী, কৃষ্ণছড়া, মঙ্গলিয়াবাড়ি, দক্ষিণবাড়ি টিলা, পুরানবাড়ি টিলা, ছনবাড়ি, রিজার্ভ টিলা, উড়াং পাড়া, ডেবরাবাড়িতে প্রায় ৪০০ আদিবাসী পরিবারে দেড় হাজার লোকজন বসবাস করছে। সবাই পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সেবা থেকে বঞ্চিত। কোনো সময়ই এ বিভাগের কর্মীরা আমাদের কাছে আসে না। আমরা কোনো ধরনের সেবা পাই না।’ 

ছবিচরণ দেববর্মা নামে একজন বলেন, ‘আমাদের সেবা নিতে হলে প্রায় ৭ কিলোমিটার দুর্গম পথ অতিক্রম করে উপজেলা শহরে যেতে হয়। রাস্তার বেহাল অবস্থায় গাড়ি চলাচল সীমিত। তাই কেউ অসুস্থ হলে তাকে ভার দিয়ে কাঁধে বহন করে উপজেলা শহরে নিয়ে যেতে হয়। বিনা চিকিৎসায় অনেক নারীর মৃত্যু হয়।’

মঙ্গলিয়াবাড়ি, দক্ষিণবাড়ি টিলা, পুরানবাড়ি টিলার হেডম্যান নরেশ দেববর্মা বলেন, ‘আমরাও এ দেশের নাগরিক। তাহলে কেন আমরা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সেবা থেকে বঞ্চিত আছি। দ্রুত এ পাহাড়ের একটি স্পেশাল মাতৃত্ব সেবা কেন্দ্র চালু করার দাবি জানাচ্ছি।’

কৃষ্ণছড়া পুঞ্জির হেডম্যান উমেশ খাড়িয়া বলেন, ‘খেয়ে না খেয়ে বন পহারা দিয়ে আসছি। আমাদের জীবন বড়ই কঠিন।’

হবিগঞ্জ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী পরিচালক মীর সাজেদুর রহমান বলেন, ‘৪০০ পরিবার সেবাবঞ্চিত হচ্ছে এটা মেনে নেওয়া যায় না। এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আপাতত স্যাটেলাইট সেবা দেওয়া হবে।’ 

হবিগঞ্জ/ইভা 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়