ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪৩১

প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে প্রস্তুত রাজশাহী

শিরিন সুলতানা কেয়া, রাজশাহী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:১৩, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩  
প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে প্রস্তুত রাজশাহী

নৌকার আদলে প্রস্তুত করা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভাস্থলের মঞ্চ

পাঁচ বছর পর আগামীকাল রোববার (২৯ জানুয়ারি) রাজশাহী আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বক্তব্য দেবেন দলীয় জনসভায়। তার দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য শোনার জন্য অধীর অপেক্ষায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করে নিতে ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতিও শেষ হয়েছে।

রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর সারদায় বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে যাবেন নবীন বিসিএস পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শনে। এরপর দুপুরে রাজশাহীর মাদরাসা ময়দানে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের জনসভায় অংশ নিয়ে ভাষণ দেবেন। এই জনসভায় রাজশাহী ও আশপাশের জেলাগুলো থেকে পাঁচ থেকে সাত লাখ নেতাকর্মীর উপস্থিতি আশা করা করছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। 

এদিকে, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অনেক নেতা ও মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী রাজশাহীতে এসে পৌঁছেছেন। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে রাজশাহী সেজেছে নতুন সাজে। নেতাদের ব্যানার-ফেস্টুন ও তোরণে ভরে গেছে পুরো শহর। ছিমছাম সাজানো-গোছানো শহরটিকে সাজানো হয়েছে আরও দৃষ্টিনন্দনভাবে। সড়ক বিভাজকগুলো নতুন করে রং করা হয়েছে। পদ্মাপাড়ের শহরটির এখানে-ওখানে দেখা মিলছে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকারও।

গত শুক্রবার বিকালে সভার মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। মাঠও প্রস্তুত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ প্রচার করতে শহরজুড়ে আগেই লাগানো হয়েছে মাইক। মাঠের পরিধি বড় করতে দক্ষিণ পাশের সীমানা প্রাচীরটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। এর দক্ষিণে থাকা ঈদগাহ ময়দানেও নেতাকর্মীরা অবস্থান নেবেন। 

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের পক্ষ থেকে মাঠের পাশে বসানো হয়েছে অস্থায়ী টয়লেট। রাজশাহী ওয়াসা ব্যবস্থা করছে পানি সরবরাহের। মাঠের চারপাশে ইতোমধ্যে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শহরজুড়েও চলছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর টহল।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মাদরাসা ময়দান থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহীতে বাস্তবায়িত ২৫টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। এছাড়া ছয়টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী জনসভা থেকে উত্তরাঞ্চলের আরও উন্নয়নে নিজের চিন্তার কথা প্রকাশ করবেন বলে মনে করছেন দলীয় নেতারা।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের যাওয়া-আসার সুবিধায় সাতটি বিশেষ ট্রেন ভাড়া দিয়েছে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন রুট থেকে এসব ট্রেন নেতাকর্মীদের নিয়ে আসবে এবং যাবে। আরও একটি ট্রেন ভাড়া দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার।

অসীম কুমার তালুকদার জানান, ‘আমাদের কাছে ১৫দিন আগে ট্রেন চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটি সিটের যাওয়া-আসা ভাড়া হিসাব করে আগাম টাকা নিয়ে ট্রেন ভাড়া দিয়েছি। এ পর্যন্ত সাতটি ট্রেন ভাড়া দিয়েছে। আরও একটি ট্রেন দেওয়া হতে পারে। আমরা প্রায় ৩০ হাজার লোক আনা-নেওয়া করবো।’

প্রধানমন্ত্রীর জনসভা উপলক্ষে শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সেখানে দলের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘এক মাসেরও কম সময়ের প্রস্তুতিতে এই জনসভা হচ্ছে। তারপরও মাদরাসা ময়দানে নেতাকর্মীদের জায়গা দেওয়া সম্ভব হবে না। সে জন্য ময়দানের সঙ্গে ঈদগাহ ময়দানও মিলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই জনসভায় পাঁচ থেকে সাত লাখ নেতাকর্মী যোগ দেবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাঠে জায়গা সংকুলান সম্ভব হবে না বলে আশপাশের সব সড়কেও নেতাকর্মীরা থাকবেন। এ জন্য ২০০টি মাইক লাগানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে যেন তারা দেখতে পান, সেজন্য ১২টি এলইডি স্ক্রিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। দেড় লাখ পানির বোতল সরবরাহ করা হবে মাঠে। রাজশাহী ওয়াসাও দুটি গাড়িতে পানি নিয়ে প্রস্তুত থাকবে। সকাল ৯টা থেকেই নেতাকর্মীরা মাঠে প্রবেশ করতে শুরু করবেন।

এদিকে বিএনপির নেতারা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর এই জনসভাতেও মাঠ ভরবে না। 

বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপির যেসব নেতারা এসব বলছেন, তাদের রাজশাহীতে আমন্ত্রণ জানাই। দরকার হলে তাদের হেলিকপ্টার ব্যবস্থা করে দেব। তারা এসে দেখবেন।’

সুলতানা

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়