ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৫ ১৪৩১

ঈশ্বরদীতে ককটেল বিস্ফোরণ ও রেললাইনে আগুন দিলো দুর্বৃত্তরা

পাবনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০৬, ৫ নভেম্বর ২০২৩   আপডেট: ২২:১৯, ৫ নভেম্বর ২০২৩
ঈশ্বরদীতে ককটেল বিস্ফোরণ ও রেললাইনে আগুন দিলো দুর্বৃত্তরা

পাবনার ঈশ্বরদী রেলগেটে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া, রেললাইনে আগুন, একটি ট্রাক ও একটি মাইক্রোবাসে ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রোববার (৫ নভেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ঈশ্বরদী শহরের রেলগেটে এলাকায় ঘটনাগুলো ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে কয়েকজন যুবক ব্যানার নিয়ে রেলগেট এলাকায় অবরোধের সমর্থনে মিছিল করেন। এসময় তারা রেললাইনে আগুন জ্বালিয়ে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এরপর ওই যুবকরা একটি ট্রাক ও একটি মাইক্রোবাসের গ্লাস ভাঙচুর করে। ঘটনা জানতে পেরে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শিরহান শরীফ তমাল, যুবলীগ নেতা মিলন চৌধুরী, তৌহিদুজ্জামান দোলন বিশ্বাস, স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহ্বায়ক মাসুদ রানাসহ দুই সংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে আসেন। এসময় ধাওয়া দিলে অবরোধের সমর্থকরা পালিয়ে যান।

এর কিছুক্ষণ পরেই অবরোধ বিরোধীরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে রেলগেটস্থ বিএনপি নেতা জাকারিয়া পিন্টুর ব্যাক্তিগত অফিস ও পশ্চিটেংরি এলাকায় যুবদল নেতা মেহেদী হাসানের ব্যাক্তিগত অফিস ভাঙচুর করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ও বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাসহ ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবীর কুমার দাশ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) টিএম রাহসিন কবির ঘটনাস্থলে আসেন। এরপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

ভাঙচুর করা ট্রাক চালক সুমন হোসেন জানান, তিনি রেলগেট অতিক্রমকালে তার ট্রাকের সামনের কাঁচ ভেঙে দেয় কয়েকজন ব্যক্তি।  

যুবলীগ নেতা মিলন চৌধুরী বলেন, শান্ত ঈশ্বরদীকে অশান্ত করার জন্য যারা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ মিন্টু বলেন, ধ্বংসাত্মক রাজনীতির অংশ হিসেবে অগ্নিসন্ত্রাসীরা চোরের মতো ককটেল ফাটিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। বিস্ফোরণের পর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ধাওয়া করলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকার বলেন, কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছি। রেললাইনে আগুন সঙ্গে সঙ্গে নিভিয়ে ফেলা হয়। পুলিশ যাওয়ার আগেই দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পুলিশের রিকুইজিশন করা একটি মাইক্রোবাসের  গ্লাস ভাঙচুর করা হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার গোস্বামী জানান, এ ঘটনায় পুলিশ সতর্ক অবস্থায় আছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ও টহল পুলিশের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবীর কুমার দাশ বলেন, পরিস্থিতি এখন প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

শাহীন/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়