ঢাকা     রোববার   ২১ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

নৌকা প্রতীক চান আপন ৪ ভাই

পিরোজপুর সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৬, ২২ নভেম্বর ২০২৩  
নৌকা প্রতীক চান আপন ৪ ভাই

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চান আপন চার ভাই। মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) দলীয় মনোনয়ন ফরম তোলা ও জমা দেওয়ার শেষ দিনে এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য একেএএম আউয়াল এবং তার আপন তিন ভাই মনোনয়ন ফরম জমা দেন। 

মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়া চার ভাইয়ের অন্যরা হলেন- আউয়ালের মেজো ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মালেক, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আউয়ালের সেজো ভাই পিরোজপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান খালেক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আউয়ালের ছোট ভাই মসিউর রহমান মহারাজ। 

 

পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আউয়ালের ছোট ভাই মসিউর রহমান মহারাজ তাদের চার ভাইয়ের মনোনয়নপত্র কেনা ও জমা দেওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এছাড়া, সংসদীয় এই আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ.ম রেজাউল করিম দলীয় মনোনয়ন কিনে জমা দিয়েছেন। একই সঙ্গে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট চন্ডি চরন পাল, জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই ও সাবেক সংসদ সদস্য (প্রায়ত) শেখ এ্যানী রহমানের ছেলে শেখ খালিদ অরিন্দম (তান), জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইসহাক আলী পান্না, স্বেচ্ছসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক এ কে এম আজিম, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা গোলাম হায়দার, মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রোজিনা নাসরিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দ্বীপ্তিষ হালদার, সুপ্রিম কোর্টে বঙ্গবন্ধু আইনজীবী ফোরামের সদস্য মাহফুজা খাতুন।

নাজিরপুর, পিরোজপুর ও ইন্দুরকানী এই তিন উপজেলা নিয়ে গঠিত পিরোজপুর-১ আসন। এই আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৬৭ হাজার ৩৭ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৮৬ হাজার ৩০৬ জন। নারী ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ৮০ হাজার ৭৩১ জন। এই তিন উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে নাজিরপুর উপজেলায় ভোটার বেশি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাবেক সংসদ সদস্য আউয়াল দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত। ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আলি আকবর বাদী হয়ে আউয়াল ও তার স্ত্রী লালয়া পারভীনকে আসামি করে পৃথক ৩টি মামলা করেন। ওই মামলার বিচার কাজ শুরু হয় চলতি বছরের ৬ এপ্রিল। এছাড়া, তার ভাই পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মালেকও দুর্নীতির অভিযোগে দুদকের মামলার আসামি। 

মনোনয়নপত্র কেনা ও জমা দেওয়ার বিষয়ে সাবেক সংসদ সদস্য আউয়াল বলেন, দলের জন্য কাজ করছি। তাই আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন চাই।    

প্রসঙ্গত, গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শ.ম রেজাউল করিম দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মানবতা বিরোধী অপরাধে অমৃত্যু সাজাপ্রাপ্ত দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর মেজো ছেলে শামীম সাঈদীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি প্রথমে সরকারের গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ও পরে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পান।  

নাজিরপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান রঞ্জু বলেন, শ.ম রেজাউল করিম গত ৫ বছরে এলাকায় যে উন্নয়ন করেছেন তা স্বাধীনতার ৪৫ বছরেও হয়নি। তার সময়ে নিয়োগ, ঘুষ ও টেন্ডারসহ সব প্রকার দুর্নীতির অবসান হয়েছে। পিরোজপুরে বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, অর্থনৈতিক জোন ঘোষণা ও স্কুল কলেজের নতুন ভবনসহ রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে তার আমলে।

মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে মন্ত্রী শ.ম রেজাউল করিম জানান, বঙ্গবন্ধু কন্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। সেই উন্নয়নের একজন কর্মী হিসাবে এলাকার উন্নয়নের চেষ্টা করেছি। এক সময়ের সন্ত্রাসের এ জনপদকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করার চেষ্টা করেছি। আজ আর সাধারণ ব্যবসায়ীদের চাঁদা দিতে হয় না। টেন্ডার বাণিজ্য বন্ধ করে প্রকৃত ঠিকাদাররা ব্যবসা করছেন। সব মিলিয়ে পিরোজপুরকে একটি শান্তির শহর প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছি।

তাওহিদুল/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়