ঢাকা     সোমবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১৪ ১৪৩০

কোনো দল আবেদন করলে তফসিল পেছানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত: ইসি আহসান 

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:১৯, ২৭ নভেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৭:২০, ২৭ নভেম্বর ২০২৩
কোনো দল আবেদন করলে তফসিল পেছানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত: ইসি আহসান 

নির্বাচন কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আহসান হাবিব খান বলেছেন, ‘কোনো দল নির্বাচনের তফসিল পেছানোর আবেদন করলে আমরা কমিশনের মিটিংয়ে বিবেচনা করার চেষ্টা করবো। আলোচনার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবো।’ 

সোমবার (২৭ নভেম্বর) দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। 

আহসান হাবিব বলেন, ‘আমরা একবারও বলিনি তফসিল পেছানোর কথা। সব দল অংশগ্রহণ করুক এটা আমাদের মনে প্রাণে চাওয়া। আমাদের বাধ্যবাধকতা রয়েছে ২৮ জানুয়ারির মধ্যে শপথ নেওয়াতে হবে। সময় থাকলে আমরা কমিশন বসে আলোচনা করবো, আমাদের টাইম ফ্রেমের মধ্যে যদি সম্ভব হয় অবশ্যই  করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘একটি গণতান্ত্রিক দেশে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নির্বাচন। সারাদেশের মানুষ, রাজনৈতিক দলসহ সবার চাওয়া একটি সুষ্ঠু নির্বাচন। আর সাংবিধানিকভাবে এই গুরুদায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের ওপর ন্যস্ত। শপথ নেওয়ার পর থেকে আমাদের একমাত্র লক্ষ্য একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন জাতিকে উপহার দেওয়া। আমাদের আন্তরিক প্রচেষ্টা রয়েছে একটি অংশগ্রহণমূলক ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করার।’

নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব বলেন, ‘পশ্চিমা দেশের কোনো চাপ মোটেও নেই। যেটা আছে, সেটা রাজনৈতিক সমস্যা। আমাদের সমস্যা না। আমাদের প্রতি কোনো চাপ নেই। দেশের প্রতি চাপ আছে কিনা আমি জানি না। সেটা সরকার বুঝবে, সেটা রাজনৈতিক ব্যক্তিরা বুঝবেন।’

তিনি বলেন, ‘ইভিএম যখন ছিল আমাদের একটা কন্ট্রোল ছিল। ব্যালটেও সঠিকভাবে নির্বাচন করা সম্ভব। সবার সহযোগিতায় এমন একটা নির্বাচন উপহার দেবো যা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে। ভবিষ্যতে যারা নির্বাচন করতে আসবেন তারা এখান থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে নতুন পথ অবলম্বন করে আরো ভালো করবেন ইনশাআল্লাহ। এবারের নির্বাচনে ভোটার পার্সেন্টেজ ভালো হবে বলে আমরা আশা করি।’

নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘আপনাদের মনে রাখতে হবে আপনারা সবাই প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। নির্বাচন কমিশনের প্রত্যাশা সবাই যেন তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব শতভাগ নিরপেক্ষ হয়ে পালন করেন। কখনো দলীয় মনোভাব পোষণ করা যাবে না বা রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের দ্বারা প্রভাবিত হওয়া যাবে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কখনো অতিউৎসাহী হয়ে এমন কোনো আচরণ করবেন না, যাতে আপনাদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে এবং নির্বাচন কমিশনের ভাবমূূর্তি নষ্ট হয়। নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নীতিমালা অনুসরণ করে খবর সংগ্রহের জন্য গণমাধ্যমকর্মীরা দেশব্যাপী কর্মরত থাকেন। তারা নির্বাচনী এলাকার এবং বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রের সংবাদ সংগ্রহ করে ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচার করেন। তাদের কাজে যাতে বাধা সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে নিশ্চিত করবেন।’

সভায় খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. হেলাল মাহমুদ শরীফ সভাপতিত্ব করেন। উপস্থিত ছিলেন- মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মোজাম্মেল হক, রেঞ্জ ডিআইজি মো. মঈনুল হক, বিজিবি ও কোস্টগার্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, বাগেরহাট ও খুলনা জেলার রিটার্নিং অফিসার, পুলিশ সুপার, সহকারী রিটার্নিং অফিসার,  আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, সিনিয়র/জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। 

নূরুজ্জামান/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়