ঢাকা     সোমবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১৪ ১৪৩০

গোপালগঞ্জে ফারুক খানের মনোনয়নপত্র দাখিল

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৩১, ৩০ নভেম্বর ২০২৩  
গোপালগঞ্জে ফারুক খানের মনোনয়নপত্র দাখিল

মনোনয়নপত্র জমা দিচ্ছেন মুহাম্মদ ফারুক খান

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে গোপালগঞ্জ-০১ আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ৫ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার মুহাম্মদ ফারুক খান। এ ছাড়া জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দলের ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম ইমাম রাজী টুলুর কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন ফারুক খান। এ সময় তার সঙ্গে তার কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য কানতারা খান, মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রবিউল আলম শিকদার, সিরাজুল ইসলাম মিয়া, হুজ্জাত হোসেন লিটু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক সাহিদুর রহমান টুটুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আহম্মেদ মুক্তু মুন্সী, সাব্বির খানসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

গোপালগঞ্জ-০২ থেকে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী কাজী শাহীন এবং গোপালগঞ্জ-০৩ আসনে জানতার কথা দল থেকে সৈয়দা লিমা হাসান জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলমের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন। 

মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর মুহাম্মদ ফারুক খান বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। তার প্রমাণ আমার আসনে বর্তমান বিরোধী দল জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা এবং স্বতন্ত্রপ্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর গত ১৫ বছরের উন্নয়ন, সুশাসন ও সেবার ওপর আস্থা রেখে এই নির্বাচনেও জনগণ নৌকাকে বিপুল ভোট দিয়ে ক্ষমতায় নিয়ে আসবে।’

মুহাম্মদ ফারুক খান বলেন, ‘আমি মনে করি নির্বাচন মানেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা, সুতরাং যারা যারা স্বতন্ত্র অথবা বিভিন্ন দল থেকে নিবাচন করার জন্য ফরম কিনেছেন এবং জমা করবেন আমি তাদের স্বাগত জানাই। আমরা বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্র্যাকটিস করি। গণতন্ত্র মানেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা মানেই জনগণকে পছন্দ করতে দেওয়া— আপনারা কাকে চান? সুতরাং আমি তাদের স্বাগত জানাই এবং আমরা সকলে মিলেমিশে যে শান্তিপূর্ণভাবে সুষ্ঠু এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে।’

গোপালগঞ্জ-০২ থেকে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী কাজী শাহীন আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে বলেন, ‘এটা গোপালগঞ্জ। এ জেলা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হলেও আমি বড় দল জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচন করছি। আমি এখানে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে বিগত দিনে সরকার উন্নয়ন করেছে ব্যাপক কিন্তু নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। যদি আওয়ামী লীগের পরাজয় হলে এ জন্যই হবে।’

জানতার কথা দলের প্রার্থী সৈয়দা লিমা হাসান বলেন, তিনি জয় রাভ করতে পারলে এলাকার উন্নয়ন করবেন।

১৫ নভেম্বর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। তফসিল অনুযায়ী, প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর রিটার্নিং কর্মকর্তারা তা বাছাই করবেন ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৫ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি।
 

বাদল/বকুল 

সম্পর্কিত বিষয়:

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়