ঢাকা     শুক্রবার   ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৬ ১৪৩১

নরসিংদী-৩: নৌকার সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস

নরসিংদী প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৪৭, ২৪ ডিসেম্বর ২০২৩  
নরসিংদী-৩: নৌকার সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস

সিরাজুল ইসলাম মোল্লা ও ফজলে রাব্বি খান

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নরসিংদী-৩ (শিবপুর) আসনে এবার নতুন মুখ দেখে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ফজলে রাব্বি খানকে। এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মোল্লা। এ দুই প্রার্থীর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রথম এবং নবম জাতীয় সংসদ ছাড়া বাকি সময় এ আসনটি বিএনপির প্রয়াত মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভূইয়ার দখলে ছিল। সংস্কারপন্থি হিসেবে দল থেকে ছিটকে পড়ায় নবম সংসদ নির্বাচনে বিএনপির এই হেভিওয়েট প্রার্থীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য হন আওয়ামী লীগের জহিরুল হক ভূইয়া মোহন। পরবর্তীতে দশম সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মোল্লা।

পরে একাদশ সংসদ নির্বাচনে পূনরায় নৌকা প্রতীক নিয়ে আসনটি নিজের করে নেন জহিরুল হক ভূইয়া মোহন। কিন্তু এবার দল থেকে মনোয়ন দেওয়া হয়েছে সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত রবিউল আউয়াল খান কিরুণের ছেলে ফজলে রাব্বি খানকে। কিন্তু তার বিপক্ষে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে লড়ছেন সিরাজুল ইসলাম মোল্লা। সিরাজুল ইসলাম মোল্লার শিবপুর উপজেলায় রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা। অন্যদিকে ফজলে রাব্বি খান হঠাৎ রাজনীতির মাঠে এসে কীভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে নৌকার বিজয় উপহার দেবেন এমন প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

স্থানীয়রা জানায়, শিবপুর উপজেলা বিএনপির ঘাঁটি, এই আসন থেকে যেহেতু এবার নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিচ্ছে না, তাই এই ভোটগুলো এবার স্বতন্ত্র প্রার্থীই পাবে। এছাড়াও শিবপুর উপজেলার তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা রাব্বি খানকে রাজনীতির মাঠে আগে কখনও সক্রিয় দেখেনি। শিবপুরের সাধারণ মানুষ ও তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বলেন, শিবপুর আসন থেকে যদি আওয়ামী লীগের কর্মীবান্ধব ও সাধারণ মানুষের দুঃখে পাশে থাকেন, এমন লোককে দল মনোনয়ন দিতো, তাহলে নৌকার বিজয় প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে পারতেন।

এ বিষয়ে কথা হয় জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নাদিম সরকারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ফজলে রাব্বি খান নতুন।  তার সঙ্গে নেতাকর্মীদের তেমন পরিচিতি নেই।’

পুটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাসান উল সানী এলিছ বলেন, ‘ফজলে রাব্বি খানের বয়স অল্প। আর সিরাজুল ইসলাম মোল্লার বেশি জনপ্রিয়তা রয়েছে। কারণ এর আগেও তিনি সংসদ সদস্য ছিলেন।’

শিবপুর উপজেলা ছাত্র লীগের সভাপতি সোহেল রানা বলেন, সিরাজুল ইসলাম মোল্লার কাছে বা তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে রাব্বি সমান নয়। ভোটে ঈগল প্রতীকে সিরাজুল মোল্লা এগিয়ে থাকবেন।

নৌকা মার্কা প্রার্থী ফজলে রাব্বি খান বলেন, ‘আমি শহীদ পরিবারের ছেলে। আমার বাবাসহ পুরো পরিবার দীর্ঘ দিন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আমিও দীর্ঘ ধরে রাজনীতি করছি। এবার নৌকা নিয়ে আমিই বিজয়ী হবো। মানুষ আমাকে ভোট দেবে।’ 

স্বতন্ত্র প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম মোল্লা বলেন, ‘রাব্বি কখনও রাজনীতি সঙ্গে ওইভাবে জড়িত নয়। মানুষ তাকে চায় না। শিবপুরের আমি সংসদ সদস্য থাকাকালীন অনেক উন্নয়ন করেছি। এবারও নির্বাচিত হলে করব। সাধারণ মানুষ আমাকে চায়।’ 
 

হৃদয়/বকুল

সম্পর্কিত বিষয়:

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়