ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ৩০ জুন ২০২২ ||  আষাঢ় ১৬ ১৪২৯ ||  ২৯ জিলক্বদ ১৪৪৩

বিশ্বে রোল মডেল হবে পাবিপ্রবি: উপাচার্য হাফিজা খাতুন

পাবনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৪৯, ২৩ মে ২০২২   আপডেট: ০৯:৫১, ২৩ মে ২০২২
বিশ্বে রোল মডেল হবে পাবিপ্রবি: উপাচার্য হাফিজা খাতুন

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‌‘বিশ্ববিদ্যালয়ে জ্ঞান অর্জন, আহরণ এবং জ্ঞান তৈরি করতে হবে। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে একটু একটু করে ভালো কাজ করে জমা করতে হবে এবং সেই জমানো ভালো কাজটিই একসময় বড় আকারে জীবনের ব্যাংকে জমা হবে। বিশ্বকে জয় করার জায়গা বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্বে রোল মডেল হবে এই বিশ্ববিদ্যালয়।’

রোববার (২২ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের (১৩তম ব্যাচের) শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খানের সভাপত্বিতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন। অনুষ্ঠানে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। স্বাগত বক্তব্য দেন অনুষ্ঠানের আহবায়ক অধ্যাপক ড. এসএম মোস্তফা কামাল খান। এরপর নবীণ শিক্ষার্থীদেন ফুল দিয়ে বরণ করে নেন উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য।
 
উপাচার্য বলেন, ‘পড়াশোনার পাশাপাশি তোমাদের শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি খেলাধুলাসহ অন্যান্য কর্মকাণ্ডও বাড়াতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়, বিভাগ, নিজের বন্ধুবান্ধব সর্বোপরি মানুষকে ভালোবাসতে হবে। ভালোবাসতে না পারলে ভালো কাজ করা যায় না।

উপাচার্য আরও বলেন, ‘জীবনে চলার জন্য শুধু নিজের দিকে না তাকিয়ে অন্যের চলার পথকেও পরিষ্কার করতে হবে। তোমরা যেমন অন্যের দেখানো পথে এগিয়ে যাবে, তেমনি তোমাদের দেখানো পথে অন্যরাও এগিয়ে যাবে। তোমাদের আলোকিত পথ বেছে নিতে হবে। অন্ধকার থেকে আলোয় যেতে হবে, যাতে পেছনের যাত্রীও সামনে যেতে পারে। তোমরা স্বপ্ন দেখবে। হোঁচট না খেলে বড় হওয়া যায় না। মনের জোর, সততা একাগ্রতা নিয়ে এগিয়ে যাবে।’ 

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান বলেন, ‘একুশ শতকের বিশ্বের সঙ্গে প্রতিযোগিতার জন্য অন্যতম মাধ্যম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি।  প্রযুক্তির বিকাশের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয় নতুন নতুন জ্ঞান তৈরি করছে। গবেষণার নতুন নতুন ক্ষেত্র সৃষ্টি করছে। পাশাপাশি গণতন্ত্র, মুক্ত চিন্তা সর্বোপরি বিশ্ব মানব তৈরি করছি আমরা। চতর্থ শিল্প বিপ্লবের যোগ্য ও সুনাগরিক তৈরি হচ্ছে এখানে। আগামী শতকের বাংলাদেশ গড়ে উঠবে তোমাদের হাত দিয়ে। তারুণ্যের শক্তি দিয়ে দেশ ও জাতির প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে আধুনিক বাংলাদেশ গড়ে তুলবে এখানকার শিক্ষার্থীরা।’

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. খায়রুল আলম, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. হাবিবুল্লাহ, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. কামরুজ্জামান, জীব ও ভূ-বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম, রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) বিজন কুমার ব্রহ্ম, প্রক্টর ড. হাসিবুর রহমান, ছাত্র উপদেষ্টা ড. সমীরণ কুমার সাহা। 

নবীন শিক্ষার্থী শমী কায়সার ও মুরসালিন হোসেন এবং অধ্যয়নরত সানজিদা স্মৃতি ও উৎসব কুমার দাস অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। নবীন বরণ অনুষ্ঠানের সদস্য সচিব ছিলেন অতিরিক্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ফজলে রাব্বি খান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মীর হুমায়ূন কবীর এবং ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রওশন ইয়াজদানী। 

অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শাহীন/এইচএম 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়