ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ আষাঢ় ১৪২৭, ০৩ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

ময়নাতদন্ত : শ্বাসরোধের ফলে সৃষ্ট সমস্যায়ই মৃত্যু হয় ফ্লয়েডের

নিউজ ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৬-০২ ৫:৪৯:৫১ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৬-০২ ১০:২২:১৯ এএম

কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুতে উত্তাল গোটা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির বিভিন্ন রাজ্যে বিরতিহীনভাবে চলছে বিক্ষোভ। সঙ্গে ভাঙচুর এবং সহিংসতাও চলছে। তার মাঝে সোমবার (১ জুন) ফ্লয়েডের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। নিরপেক্ষ ডাক্তারদের নিয়ে গঠিত মেডিকেল বোর্ডের তদন্ত শেষে জানা গেছে শ্বাসরোধের ফলে সৃষ্ট সমস্যায়ই মৃত্যু হয়েছে ফ্লয়েডের। এমনটাই জানিয়েছেন ফ্লয়েডের পরিবার কর্তৃক নিযুক্ত আইনজীবী। খবর আল জাজিরার।

আইনজীবীর বিবৃতি থেকে জানা যায়, বিখ্যাত মেডিকেল পরীক্ষক ডা. মাইকেল বাডেন ও ডা. আলেসিয়া উইলসনের ময়নাতদন্তে উঠে এসেছে মূলত ঘাড় ও পেছনের দিকে সৃষ্ট চাপের কারণে মস্তিস্কে রক্ত প্রবাহ কমে যায়। অতিরিক্ত চাপ পড়ায় নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হয়। এর ফলে শ্বাসরোধজনিত সমস্যার কারণেই তার মৃত্যু হয়। পাশাপাশি হাতকড়া পরানো থাকার ফলে সমস্যা আরো প্রকট হয়। এর বাইরে আর কোনো স্বাস্থ্যগত সমস্যা ছিল না ফ্লয়েডের।

এদিকে মিনোসোটার মিনিয়াপোলিসের যে জায়গায় জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু হয়েছে সেখানে উপস্থিত হয়ে তার ভাই টেরেন্স ফ্লয়েড সবাইকে শান্ত হওয়ার আহব্বান জানিয়েছেন। শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করার আহব্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমি জানি আপনারা মর্মাহত হয়েছেন। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করে, সহিংসতা ও ভাঙচুর চালিয়ে আমার ভাইকে ফেরত পাওয়া যাবে না। আমাদের পরিবার একটি শান্তিপূর্ণ পরিবার। আমাদের পরিবার সৃষ্টিকর্তা ভীতু পরিবার। সুতরাং চলুন ভাঙচুর না চালিয়ে অন্য উপায়ে, অন্যকিছু করি।’

গেল মঙ্গলবার মিনেসোটার মিনিয়াপোলিস শহরে জালিয়াতির অভিযোগে ৪৬ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর হাতকড়া পরিয়ে গলায় হাঁটু দিয়ে চেপে রাখায় শ্বাসরোধ হয়ে পুলিশি হেফাজতে তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এরপরই শুরু হয় বিক্ষোভ। শুক্রবার পর্যন্ত বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণ থাকলেও শনিবার রাত থেকে রূপ নেয় সহিংসতায়।

 

ঢাকা/আমিনুল